চট্টগ্রাম শুক্রবার, ২৩ আগস্ট, ২০১৯

সর্বশেষ:

১৮ জুলাই, ২০১৯ | ১:৩০ পূর্বাহ্ণ

স্পোর্টস ডেস্ক

‘দীর্ঘমেয়াদে দায়িত্ব পেলে কাজ করতে সুবিধা হয়’

শ্রীলংকা সিরিজ খুব গুরুত্বপূর্ণ : সুজন

বিশ^কাপ থেকে দেশে ফেরার পর বিদায় নিয়েছেন জাতীয় দলের ইংলিশ কোচ স্টিভ রোডস। আসন্ন শ্রীলংকার সফরে খালেদ মাহমুদ সুজনকে অন্তর্বর্তীকালীন দায়িত্ব দিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। দায়িত্ব পাওয়ার পরপরই তিনি দীর্ঘমেয়াদে দায়িত্ব নেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। এ নিয়ে বিসিবির সঙ্গে এখনও অফিসিয়াল কোনো আলাপ-আলোচনা হয়নি তার। তবে টাইগারদের নিয়ে কাজ করার সুবিধার্থেই লম্বা সময়ের জন্য কোচ হতে আগ্রহী তিনি। গতকাল মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন অস্থায়ী কোচ খালেদ মাহমুদ সুজন। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমি চেয়েছি দীর্ঘমেয়াদে কোচ হতে। আমার সঙ্গে এখনও কোনো কথা হয়নি এই ব্যাপারে। বোর্ড আমার সঙ্গে কোনো আলোচনা করেনি। আকরাম ভাই (বিসিবির ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান আকরাম খান) আমাকে বলেছে, তুই আপাতত দেখাশোনা কর, যেহেতু এখন আমাদের কোচ নেই। বোর্ড এখন পর্যন্ত আমার সঙ্গে অফিসিয়ালি কোনো যোগাযোগ করেনি। সবচেয়ে বড় কথা, আমি এতদিন বাংলাদেশ ক্রিকেটের সঙ্গে আছি। দেশের স্বার্থে আমি সবসময় কাজ করে যেতে চাই।’ আগামী ২৬ জুলাই মাঠে গড়াবে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার মধ্যকার তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডে। সে লক্ষ্যে আগামী ২০ জুলাই দেশ ছাড়বে বাংলাদেশ দল। তার আগে প্রস্তুতি সেরে নিতে চলছে অনুশীলন ক্যাম্প। তাই সফরের আগে বোর্ডের সঙ্গে সুজনের বৈঠকে বসার সম্ভাবনা কমই। সাবেক অলরাউন্ডার সুজন আরও জানান, ‘দেশের যদি আমাকে প্রয়োজন হয়, তবে আমি প্রস্তুত। তবে এখনও আমার সঙ্গে সেভাবে যোগাযোগ হয়নি। এর মধ্যে আমরা নতুন কোচ পেয়েও যেতে পারি। এমন যদি হয়, তাহলে তো ভালোই। আপাতত এই দুই-তিনদিন অনুশীলন সেশনে অবশ্যই কাজ করব। এরপর বোঝা যাবে, কি হবে না হবে। আপাতত যে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, সেটাই করি।’ তারপরও দীর্ঘ সময়ের জন্য সুযোগ পেলে যে কোনো মানুষের জন্য কাজ করতে অবশ্যই সুবিধা হয়’, যোগ করে বলেন তিনি।
এই সিরিজে আগেই বিশ্রাম নিয়ে রেখেছেন দলের সেরা তারকা সাকিব আর হাসান। আর ব্যক্তিগত কারণে ছুটি নিয়েছেন লিটন দাশ। তবে কোচ সুজন জানিয়েছেন, এই সিরিজ দলের কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সুজন বলেন, ‘প্রতিটা ট্যুরই বাংলাদেশের জন্য চ্যালেঞ্জিং। দলের সঙ্গে যখন আমি থাকি তখন আমিও চ্যালেঞ্জের মধ্যেই থাকি। ম্যানেজার হিসেবে কাজ করলেও চ্যালেঞ্জ থাকে। শ্রীলংকা সিরিজটি আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি সিরিজ। যদিও আমরা এই সিরিজে কিছু খেলোয়াড়কে মিস করব, তবে আমি মনে করি আমাদের দলটি যথেষ্ট ভারসাম্যপূর্ণ। শ্রীলংকার বিপক্ষে আমরা এর আগেও খেলেছি। তবুও আমি আশা করি আমরা ভালো করবো।’ সাকিবের না থাকা সর্ম্পকে তিনি বলেন, ‘সাকিবের জায়গা তো পূরণীয় নয়। সাকিব তো সাকিবই। বিশ্বের সেরা অলরাউন্ডার। ও না থাকায় স্বাভাবিকভাবে আমাদের দলের ভারসাম্যে ব্যাঘাত ঘটবে।’ সাকিবের জায়গায় তাইজুল ইসলামকে দলে নিয়েছে বাংলাদেশ। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পাঁচ বছরে ¯্রফে চারটি ওয়ানডে খেলার সুযোগ মিলেছে বাঁহাতি এই স্পিনারের। মাহমুদের আশা সুযোগ পেলে তাইজুল দেখাবেন তার সামর্থ্য। ‘তাইজুল ওয়ানডে খেলার সুযোগ পায় না। ভারতে দারুণ ফর্মে আছে। বিসিবি একাদশের হয়ে খেলছে। ভারতে দুই ম্যাচে ১৪ উইকেটের মতো নিয়েছে। সত্যি কথা বলতে গেলে এটা তার জন্য বড় সুযোগ। এখানে অনেকের জন্যই সুযোগ হতে পারে। হয়তো সাকিব বিভিন্ন কারণে নাও থাকতে পারে, সে জায়গায় যেই আসে নতুন করে তার জন্য এটা বড় সুযোগ।’ ‘সাকিব তিন নম্বরে ব্যাটিং করতো। এখন সে নাই। এখন তিন নম্বরে অন্য কেউ ব্যাট করবে। তার জন্য এটা বড় সুযোগ। তাকে সে দায়িত্বটা নিতে হবে। নিজেকে প্রমাণ করতে হবে।’

The Post Viewed By: 113 People

সম্পর্কিত পোস্ট