চট্টগ্রাম রবিবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৯

সর্বশেষ:

১৭ জুলাই, ২০১৯ | ১:৪৭ পূর্বাহ্ণ

ক্যাম্পাস পরিদর্শনকালে ড. মনিরুজ্জামান

বাংলাদেশে শিক্ষালয়গুলোর আদর্শ হয়ে উঠবে ইডিইউ

শিক্ষার মান আমাদের এখন আগের অবস্থানে আছে বলা যায় না। তার একটা কারণ পরিবেশ নিয়ে না ভাবা। ইস্ট ডেল্টা সেইদিকে দৃষ্টিটা প্রখর রেখেছে দেখে এবং বাংলাদেশে যে তা অসম্ভব নয় সেটি প্রমাণ করে তুলেছে তার দৃষ্টান্ত দেখে আমি শুধু মুগ্ধ হইনি, গর্বিতও বোধ করছি। এই বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের শিক্ষাকেন্দ্র বা শিক্ষালয়গুলির আদর্শ হয়ে উঠবে এতে আমার শতভাগ বিশ্বাস জন্মেছে। গতকাল মঙ্গলবার ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটি (ইডিইউ) ক্যাম্পাস পরিদর্শনে এসে উপরোক্ত মন্তব্য করেছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের প্রাক্তন ডিন ভাষাবিজ্ঞানী অধ্যাপক ড. মনিরুজ্জামান। ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক মু. সিকান্দার খান তাঁকে বিশ্ববিদ্যালয়ের অবকাঠামো ও শিক্ষাপরিবেশ সম্পর্কে ধারণা দিতে নিয়ে যান ক্যাম্পাস-ক্লাসরুম-লাইব্রেরি পরিদর্শনে। ড. মনিরুজ্জামান নজরুল ইনস্টিটিউটের প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী পরিচালক এবং লিঙ্গুইস্টিক সোসাইটি অব ইন্ডিয়া, দ্রাবিড়িয়ান লিঙ্গুইস্টিক এসোসিয়েশান, ফিলোলজিক্যাল এসোসিয়েশান অব গ্রেট ব্রিটেনসহ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক নানা সংস্থা ও সংঘের জীবনসদস্য। ভাষা, সাহিত্য ও ফোকলোর বিষয়ে এযাবৎ তার ২৭টি বই এবং শতাধিক গবেষণা-প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। ভূষিত হয়েছেন একাধিক সাহিত্য পুরস্কারে। ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটির প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান সাবেক মন্ত্রী আবদুল্লাহ আল নোমান স্মৃতিচারণ করে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ভাইস চেয়ারম্যান সাঈদ আল নোমান বলেন, বাংলাদেশে সাহিত্য ও জ্ঞানচর্চার অঙ্গনে ড. মনিরুজ্জামান একটি উজ্জ্বল নাম। তার মতো একজন গুণী ব্যক্তিত্ব এ জাতির জন্য সম্পদ। তার আগমন ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটিকে গৌরবান্বিত করেছে। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন ইডিইউর কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক সামস উদ-দোহা ও রেজিস্ট্রার সজল কান্তি বড়–য়া। বিজ্ঞপ্তি

The Post Viewed By: 69 People

সম্পর্কিত পোস্ট

Optimized with PageSpeed Ninja