চট্টগ্রাম রবিবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৯

সর্বশেষ:

১৭ জুলাই, ২০১৯ | ১:০৮ পূর্বাহ্ণ

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ

হাটহাজারী: উপজেলার দক্ষিণ মাদার্শা, মেখল, ইছাপুর, গুমানমর্দ্দন ইউনিয়নসহ বিভিন্ন ওয়ার্ডে বন্যার পানিতে ক্ষতিগ্রস্ত ৫০০ পরিবারের মাঝে নিজস্ব তহবিল থেকে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এস এম রাশেদুল আলম।
তিনি বলেন, বর্তমান বর্ষা মৌসুমে বিভিন্নস্থানে জোয়ারের পানি এবং অতিবৃষ্টির ফলে সৃষ্ট বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের জন্য ইতিমধ্যে উপজেলা প্রশাসনসহ সরকারি বিভিন্ন সংস্থা এবং স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন এ কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করেছে এবং তা চলমান থাকবে। আমি অতীতের মতো ভবিষ্যতেও এ ধারা অব্যাহত রাখব। ত্রাণ বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা প্রকল্প অফিসার, নেয়াজ মোর্শেদ, ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল মজিদ, মো. সালাউদ্দিন, খোরশেদ আজিজ, সরোয়ার মোরশেদ তালুকদার, মো. সরোয়ার, সাইফুল্লাহ, মনসুর, রাশেদুল ইসলাম, মোক্তার হোসেন, হানিফ বাদশা, মুহিত উল আলম প্রমুখ।
চন্দনাইশ: উপজেলায় বৈলতলী ইউনিয়নে পাক পাঞ্জাতন সংগঠনের উদ্যোগে বন্যাদুর্গত মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করা হয়। গত ১২ জুলাই শুক্রবার থেকে শঙ্খ নদীর পানি অস্বাভাবিক ভাবে বেড়ে গেলে চন্দনাইশের বন্যা পরিস্তিতি মারাত্মক আকার ধারণ করে। সেই সময় সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক জরুরি বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় সংগঠনের সকল সদস্যকে বন্যাকবলিত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর নির্দেশ দেয়া হয়। শঙ্খনদীর তীরবর্তী বৈলতলী ইউনিয়ন হওয়ায় তুলনামূলকভাবে বৈলতলীর ক্ষতির পরিমাণ বেশি। কিন্তু ক্ষতির পরিমাণ বেশি হলেও এ এলাকায় কোন ত্রাণসামগ্রী কারো কাছ থেকে না পৌঁছার দরুন পাক পাঞ্জাতনের পক্ষ থেকে তাক্ষণিকভাবে প্রাথমিক ধাপ হিসেবে ১ থেকে ৫ নং ওয়ার্ডের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করেন সংগঠনটি। ত্রানের মধ্যে ছিল চাল, আলু, পেঁয়াজ, মুড়ি, চানাচুর, মোমবাতি ও দিয়াশলাই। বন্যার পানিতে বৈলতলীর মেইন সড়ক, ঘরবাড়ি, রাস্তাঘাটে, গবাদিপশু সহ প্রচুর ক্ষতি সাধন হয়েছে।তাই বন্যা পরবর্তী দুর্যোগ মোকাবেলায় প্রসাশনের দৃষ্টি আকর্ষণ করে সবার সহযোগিতা কামনা করা হয় সংগঠনের পক্ষ থেকে।

The Post Viewed By: 139 People

সম্পর্কিত পোস্ট

Optimized with PageSpeed Ninja