সংবাদ: সম্পাদকীয়

স্মরণ : নুরুল কবির কন্ট্রাক্টর

ডা. এ. এস.এম. তাওহীদুল আলম
চকরিয়া উপজেলা তরজঘাটা এলাকার নুরুল কবির কন্ট্রাক্টর সাহেব ২১ মার্চ ২০১৯ রোজ বৃহস্পতিবার সকাল ৭ ঘটিকায় ইন্তেকাল করেন (ইন্না….. রাজিউন) প্রায় শতায়ু প্রাপ্ত কন্ট্রাক্টর সাহেব জীবন সায়াহ্নে দুরারোগ্য ইরষরধৎু ঈধৎপরহড়সধ রোগে আক্রান্ত হন। ঊজঈচ সহ বিভিন্ন চিকিৎসা নিয়েও দীর্ঘ একমাস মৃত্যুর সাথে যুদ্ধ করে পরাজিত হলেন। তিনি ১২ জন সন্তান-সন্তানাদির পিতা ছিলেন। অসংখ্য নাতি-নাতনি, পুত্র, পৌত্রি রেখে গেছেন। নুরুল কবির কন্ট্রাক্টর সাহেব অত্যন্ত ধর্মপরায়ণ ব্যক্তি ছিলেন। তিনি তার গ্রামের বাড়িতে মসজিদ, মাদ্রাসা ও এতিম খানা প্রতিষ্ঠা করেন। এই ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর ব্যয় নির্ধারণের জন্য তিনি জায়গা জমিও দান করে গেছেন। তিনি একজন সমাজ সেবক ছিলেন। তাঁর গ্রামের বাড়ির চারপাশের মানুষজনকে জমি দান করে বসতবাড়ি তৈরি করে দেন। এছাড়াও সমাজসেবামূলক বিভিন্ন কর্মকা-ে তিনি অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন। তিনি ব্যক্তিজীবনে একজন সফল ব্যবসায়ী ছিলেন। তার জীবনের একটি দীর্ঘ সময়ে কাপ্তাইয়ে কাটিয়েছেন। অনেকগুলো সরকারি-বেসরকারি প্রজেক্ট-বাগান তিনি সফলভাবে অনেক পরিশ্রমের বিনিময়ে সম্পন্ন করেছেন। তিনি অনেক কর্মঠ ছিলেন। রাঙ্গুনিয়া এবং কাপ্তাই-এর পাহাড়ে-পাহাড়ে বিচরণ করে কাঠের ব্যবসা

বাংলাদেশের অর্থনীতিতে নারীর অংশগ্রহণ এবং মজুরি…

অর্থনীতিতে উৎপাদন নিয়ে ব্যাপক বিশ্লেষণ করা হয়। ক্লাসিক্যাল অর্থনীতিবিদদের পূর্বে উৎপাদন বলতে কোন কিছু সৃষ্টি করাকে বুঝানো হতো। সময়ের পরিবর্তন হয়েছে। অর্থনীতিবিদরা বাস্তবতার মুখোমুখি হয়ে

আমার স্কুল, আমার অক্ষর, আমার অবাধ্য…

১৮ মার্চ রাঙ্গামাটি জেনারেল হাসপাতালস্থ নিজস্ব কর্মস্থলে যাই নি। যেহেতু পার্বত্য এলাকাগুলোতে উপজেলা নির্বাচন। সকাল ৯ টার দিকে আমার প্রাণপ্রিয় স্কুল রাউজান ছালামত উল্লাহ উচ্চ

প্রাণের ভাষায় মনের কথা

স্বপ্নের ভোর আসবেই একদিন

পুকুরের বোয়াল মাছটা সবসময়ই রাজা বনে থাকতে চাই। শোল, কাতাল, রুই এরা কিন্তু দল বেঁধে থাকার অভিনয় করে। আর ঝামেলা বাড়ায় না। অন্যান্য ছোট প্রজাতিরা

সহিংসতার কারণ ও প্রতিকার

কথা য় কথায় সহিংসতার মাত্রা ইদানীং বিস্তার লাভ করেছে। হঠাৎ রেগে যাওয়া, আর রেগে গিয়ে চরম নিষ্ঠুরতার পরিচয় দিয়ে আরেকটি জীবন শেষ করে ফেলার মনোবৃত্তির

অব্যাহত সড়ক দুর্ঘটনার প্রতিকার কোন্ পথে

বাংলাদেশে সড়কনৈরাজ্য কোন পর্যায়ে পৌঁছেছে তা আরেকবার চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিল বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস-এর মেধাবী শিক্ষার্থী আবরার আহমেদ চৌধুরীর মর্মান্তিক মৃত্যু। ট্রাফিক সপ্তাহ চলাকালে জেব্রা ক্রসিংয়েই আবরারকে পিষে মারলো ঘাতক বাস। এই আবরারই সড়কে নৈরাজ্যের বিরুদ্ধে গত বছর রাজধানীতে রাস্তায় নেমেছিলেন। তুমুল বিক্ষোভের মুখে সরকারের কাছ থেকে এসেছিল

চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩৫ হোক

আমরা কয়েক লাখ উচ্চশিক্ষিত বেকার তরুণ-তরুণী সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ন্যূনতম ৩৫ বছর করার দাবিতে গত সাত বছর ধরে আন্দোলন করতে করতে হতাশাগ্রস্ত। নবম, দশম ও একাদশ সংসদে বহুবার এবং পয়েন্ট অব অর্ডারসহ (কমপক্ষে ৫ বার) প্রস্তাব উঠেছে এবং জনপ্রশাসনের সংসদীয় স্থায়ী কমিটি কমপক্ষে ৫ বার সুপারিশ করেছে। আমরা অতীতে

কৃষিমূল্য নীতি চাই

সরকারের ধান-চাল সংগ্রহের মূল উদ্দেশ্য হলো, বাজার স্থিতিশীল রেখে কৃষকের ফসলের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করা। নিঃসন্দেহে এটা ভালো উদ্যোগ। তবে প্রশ্ন হলো-আসলেই কৃষকের স্বার্থ রক্ষা হচ্ছে কি? কৃষক ন্যায্য মূল্য পাচ্ছে কি? একটা উদাহরণ দিলেই বিষয়টা পরিষ্কার হয়ে যাবে। বর্তমানে দেশের হাটবাজারগুলোতে প্রতি মণ স্বর্ণা ৫ জাতের ধান ৬৩০ থেকে

মুক্তিযুদ্ধ এবং আমি

আমি বেগম হাছিনা মামুন সার্টিফিকেট বিহীন একজন মুক্তিযোদ্ধা। আমি আমার জীবনে অস্ত্র হাতে যুদ্ধ করিনি কিন্তু মুক্তিযোদ্ধাদের অনেক ভাবে সহযোগিতা করেছি। আমি জানি আমার মত

শ্রবণশক্তি কেড়ে নিচ্ছে শব্দ-সন্ত্রাস

শব্দ দূষণ। খুব সহজেই আমরা এ দূষণের সাথে মানিয়ে চলি। কিন্তু এই শব্দ দূষণ বর্তমানে এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে একে ‘শব্দ-সন্ত্রাস’ নামে অভিহিত করা যায়।