নিজস্ব প্রতিবেদক

নগরীর কাজীর দেউড়িতে নেশাগ্রস্ত ছেলের ছুরিকাঘাতে নিহত হয়েছেন বাবা। নিহত বাবা রঞ্জন বড়–য়া (৫২) রাউজান উপজেলার পাহাড়তলী এলাকার সমীরণ প্রসাদ বড়–য়ার ছেলে। গত রবিবার ভোর পাঁচটার দিকে কাজীর দেউড়ি দুই নম্বর গলিতে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর ছেলে রবিন বড়–য়া বাবুকে (২৪) গ্রেপ্তার করে পুলিশ।
এদিকে গতকাল সোমবার রবিনকে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।
পুলিশ জানায়, গত চার/পাঁচ বছর আগে রবিনের মা মারা যায়। পরে দ্বিতীয় বিয়ে করে রবিনের বাবা রঞ্জন। এরপর থেকে বাপ-ছেলের মধ্যে দূরত্ব ও ঝগড়া বিবাদ শুরু হয়। এর মধ্যে রবিন পুরোপুরি মাদক সেবনে জড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে বন্ধুদের বাসায় নিয়ে এসেও মাদক সেবন শুরু করে রবিন। নিয়মিত মাদক সেবন করতে প্রায় সময়ই পিতা ও দাদীর কাছ থেকে টাকাও চাইতো রবিন। টাকা না দিলে তাদেরকে মারধর করতো সে। রবিবার রাতেও মাদক সেবনের টাকা নিয়ে বাবা-ছেলের মধ্যে কথা কাটাকাটি ও ঝগড়া হয়। এক পর্যায়ে দুই জনের মধ্যে হাতাহাতি হলে হাতে থাকা ছুরি দিয়ে বাবার গলায় ও পিঠে আঘাত করে পালিয়ে যায় রবিন। পরে ছেলেকে রক্তাক্ত দেখে দাদী চিৎকার করে এবং আশপাশের লোকজন এসে পুলিশকে খবর দেয়।
কোতোয়ালী থানার এস আই ইকবাল হোসেন ভূঁইয়া জানায়, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে রঞ্জন বড়–য়াকে রক্তাক্ত অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরবর্তীতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে রবিনকে জমিয়াতুল ফালাহ জামে মসজিদের সামনে থেকে গ্রেপ্তার করে। রবিন ঘটনার বিষয়ে স্বীকারোক্তি জবানবন্দি দিয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ২০/২৫ দিন আগে এলাকার ছেলেদের সঙ্গে রবিনের ঝগড়া হয়। এরপর রিয়াজউদ্দিন বাজার থেকে ছুরিটি ক্রয় করে নিজের কাছে রাখে রবিন।

Share
  • 16
    Shares