নীড়পাতা » মহানগর » ছয়মাসের মধ্যে অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যার্পণে কার্যকর ব্যবস্থা

জে এম সেন হলে বসন্ত উৎসবে ভূমিমন্ত্রী

ছয়মাসের মধ্যে অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যার্পণে কার্যকর ব্যবস্থা

ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ এমপি বলেছেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টে স্বপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্যে দিয়ে স্বাধীনতা বিরোধী চক্র এদেশে অসাম্প্রদায়িক সংগঠন ও চেতনাকে ধ্বংস করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিলো। জাতির জনকের কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা দীর্ঘ একুশ বছর সংগ্রামের পর ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে পুণঃপ্রতিষ্ঠা করে সরকার পরিচালনা করেছেন। ২০০১ সালে সুক্ষ্ম কারচুপির মাধ্যমে বিএনপি-জামাত জোট সরকার ক্ষমতায় এসে দেশে আবারো সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস নিপড়নের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে চিরদিনের জন্য শেষ করতে চেয়েছিলেন। বাংলাদেশের জনগণের সহযোগিতা ও সমর্থনে পুনরায় আওয়ামীলীগ ক্ষমতা আসার পর আবারো মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সরকার ও রাষ্ট্র্র পরিচালিত হচ্ছে। বঙ্গবন্ধুর কন্যা জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ বিশে^র কাছে উন্নয়নের রোল মডেলের মর্যাদা অর্জন করেছে। বাংলা নববর্ষকে তিনি বাঙালি জাতির আইডেন্টিটি উল্লেখ করে বলেন, বাংলা নববর্ষ বাঙালি জাতির প্রাণের উৎসব। মুক্তিযুদ্ধের অসাম্প্রদায়িক চেতনা বিনষ্টের কোন ষড়যন্ত্র সফল হবে না। তিনি বলেন, অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যার্পন আইন সংসদে পাস হওয়ার দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও ভূক্তভোগীরা এখনো যথাযথ সুফল পাচ্ছেনা। আগামী ছয়মাসের মধ্যে অর্পিত সম্পত্তি দ্রুত প্রত্যার্পণে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। জে এম সেন হল প্রাঙ্গণে ৪ দিন ব্যাপি বাসন্তী পুজোয় বসন্ত উৎসব ও মিলনমেলার সমাপনী দিবসে পূজা উদযাপন পরিষদ কেন্দ্রীয় যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম জেলা শাখা সভাপতি শ্যামল কুমার পালিতের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভার প্রধান বক্তা আন্তজার্তিক যুদ্ধপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ও হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট রানা দাশগুপ্ত বলেন, সরকার ঘোষিত সন্ত্রাস, মাদক ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে ঘোষিত জিরো টলারেন্স নীতির যথাযথ বাস্তবায়ন চাই। তিনি ফেনীর মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাতের উপর হিং¯্রতা ও হত্যাকা-ের তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন, নারীর উপর সহিং¯্রতা বন্ধে জিরো টলারেন্স নীতির প্রয়োগ দেখতে চাই। দলীয় বা রাজনৈতিক পরিচয়ে কোন ঘৃণ্য সন্ত্রাসী যাতে আত্মরক্ষার সুযোগ না পায় সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি আহবান জানান তিনি। সভায় বক্তব্য রাখেন অনুষ্ঠানের মূখ্য আলোচক বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রের জেনারেল ম্যানেজার নিতাই কুমার ভট্টাচার্য, অধ্যাপক নারায়ণ চৌধুরী, এডভোকেট নিতাই প্রসাদ ঘোষ, অসীম কুমার দেব, সুগ্রীব মজুমদার দোলন ও কল্লোল সেন। আলোচনানুষ্ঠান শেষে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।-বিজ্ঞপ্তি

Share