মফস্বল ডেস্ক

বাংলা ১৪২৬ বর্ষবরণ, ১৪২৫ বর্ষবিদায়ে চৈত্র সংক্রান্তি ও পাহাড়িদের বৈসাবিতে উপজেলাজুড়ে ১৩ ও ১৪ এপ্রিল উৎসব হয়েছে। বিশেষ করে পহেলা বৈশাখে প্রাণের স্পন্দন লক্ষ করা গেছে বিভিন্ন স্থানে আয়োজিত মেলায়।
মানিকছড়ি: নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রায় বাংলা নববর্ষকে বরণ করেছে উপজেলা প্রশাসন। স্বাগতম ১৪২৬ এসো হে বৈশাখ এসো এসো… গানের তালে উপজেলা প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তা, উপজেলা চেয়ারম্যান, জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও শিশু-কিশোরদের উপস্থিতিতে বের করা হয় বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা। উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে শুরু হয়ে শোভাযাত্রাটি ইংলিশ স্কুল ঘুরে এসে উপজেলা টাউন হলে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান ম্্রাগ্য মারমা, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. নোমান মিয়া, অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ রশীদ, আ.লীগ সাধারণ সম্পাদক মো. মাঈন উদ্দীন, ইউপি চেয়ারম্যান মো. শফিকুর রহমান ফারুক, মো. শহীদুল ইসলাম মোহন, মো. আবুল কালাম আজাদসহ বিভিন্ন দপ্তরের অফিসার, শিক্ষক, সাংবাদিক, ইউপি সদস্য, দফাদার ও শিশু-কিশোররা। এরপর শিল্পকলা একাডেমির সদস্য সচিব আবদুল মান্নান এর সঞ্চালনায় হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। পরে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. নোমান মিয়ার সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, উপজেলা চেয়ারম্যান ¤্রাগ্য মারমা।
মহামুনি মেলা: মং সার্কেলের আবাসস্থল মানিকছড়ি উপজেলার ঐতিহ্যবাহী মহামুনি মেলা প্রাঙ্গণে ছিল সকল ধর্মের মানুষের উপচেপড়া ভিড়। বেলা বাড়তে না বাড়তেই ১৩৫তম এ মেলায় জাতি, ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে জনতার ঢল নামতে শুরু করে। পরে সম্প্রীতির মিলন মেলায় পরিণত হয় মেলা প্রঙ্গণ। জনস্রােত সামলাতে বেগ পেতে হয়েছে নিরাপত্তায় নিয়োজিত প্রশাসন ও স্বেচ্ছাসেবীদের। এ সময় অনেকেই বলেন, পাহাড়ে বসবাসরত কোন মানুষ সংঘাত চায় না, চায় সম্প্রীতি। বর্ষ বরণ উৎসবের মধ্য দিয়ে এখানে বসবাসরত সকল সম্প্রদায়ের মানুষের মাঝে শান্তি, সম্প্রীতি ও ভ্রাতৃত্বের বন্ধন আরো দৃঢ় হবে।
সম্মিলিত বর্ষবরণ উদযাপন পরিষদ পটিয়া: নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, ১৩ এপ্রিল পটিয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে পরিষদের উদ্যোগে বর্ষবিদায় উপলক্ষে বলী খেলাশেষে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। প্রধান অতিথি থেকে পুরস্কার বিতরণ করেন চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার নুরুল আলম নিজামী। উদযাপন পরিষদের সমন্বয়ক আইয়ুব বাবু’র সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব বিশ্বজিৎ দাশে’র সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন পটিয়া উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরী, মুক্তিযোদ্ধা সামশুদ্দীন আহমদ, পৌর মেয়র অধ্যাপক হারুনুর রশিদ, ইউএনও হাবিবুল হাসান, দক্ষিণ জেলা যুবলীগের সভাপতি আ ম ম টিপু সুলতান চৌধুরী, উদযাপন পরিষদের নির্বাহী কমিটির আলমগীর আলম, মোহাম্মদ ছৈয়দ চেয়ারম্যান, মুক্তিযোদ্ধা মৃণাল কান্তি বডুয়া, অধ্যাপক অভিজিৎ বডুয়া মানু, মাষ্টার শ্যামল দে, অধ্যাপক ভগিরত দাশ, নাজিম উদ্দিন পারভেজ, নুর আলম ছিদ্দিকী, আওয়ামী লীগ নেতা ফজলুল হক আল্লাই, শহিদুল ইসলাম চৌধুরী, ফরিদ আহমদ, এম এন এ নাছির, মুজিবুল হক চৌধুরী নবাব, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি বেলাল উদ্দীন ও বলিখেলার উপ কমিটির আহবায়ক নাজিম উদ্দিন। বলী খেলার ধারাভাষ্যকার ছিলেন মোহাম্মদ ইকবাল, আবদুল মান্নান ও হাফিজুর রহমান রুবেল। বলী খেলায় চ্যাম্পিয়ন হয় মহেষখালীর রাসেল বলী। যুগ্ম চ্যাম্পিয়ন হয় কক্সবাজারের কলিম বলী। এতে কক্সবাজারের লালু বলী, পটিয়ার আমজাদসহ বিভিন্ন এলাকার ১৬ জন স্বনামধন্য বলী অংশ নেন।
রাউজান কদলপুর স্কুল এন্ড কলেজ: নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, বাংলা নববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে আলোচনা সভা, পিঠা উৎসব, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান গত রবিবার স্কুলের মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রতিষ্ঠানের গভর্নিং বডির সভাপতি সোনালী ব্যাংক ঢাকা জোনের জেনারেল ম্যানেজার নিজাম উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী। প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ ওমর ফারুকের সভাপতিত্বে ও শিক্ষক সুমন বড়–য়ার সঞ্চালনায় অতিথি ছিলেন এস.এম ইব্রাহীম খোকন, গভর্নিংবডির সদস্য অধ্যাপক বাদল কিশোর দাশ, আবদুল শুক্কুর, সামশুল আলম, কাজী নাজিম উদ্দিন, সুভাষ ভট্টাচার্য্য, হাসিনা বেগম, শিক্ষক শফিউল আলম, সুপ্রিয় রঞ্জন বড়–য়া, মনোয়ারা চৌধুরী, পূরবী ধর, রিমি ঘোষ, ডেজি পাল। এতে ১৫টি পিঠার স্টলের মধ্যে ছিল অপরাজিতা, জিনিয়া, দোলন চাপা, চন্দ্র মল্লিকা, গাজালিয়া, ডালিয়া, নয়ন তারা, বাগান বিলাস, সিলভিয়া, হাসনা হেনা, কাঁঠাল চাঁপা, পিটুনিয়া, টিউলিপ, সবুজ বাংলা, সন্ধ্যা মালতী।
বরকল: চন্দনাইশের নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, উপজেলার বরকল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে গত ১৩ এপ্রিল বিকেলে বিশ্ব পুকুরের বলী খেলা অনুষ্ঠিত হয়। বলীখেলা উদযাপন পরিষদের সভাপতি হাফেজ আহমদ সভাপতিত্বে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান। সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হকের সঞ্চালনায় আলোচনায় অংশ নেন প্রকৌশলী নাজিম উদ্দীন, কাজী জাকের হোসেন, মেম্বার যথাক্রমে আবু জাফর, অমর কান্তি ভট্টাচার্য্য, নওশা মিয়া, আবুল মনজুর, রফিকুল আলম প্রমুখ। খেলায় টেকনাফের সামশু বলী চ্যাম্পিয়ন হয়। ইসলামী চিন্তাবিদ মনিরুজ্জামান ইসলামাবাদী প্রতিষ্ঠিত বিশ্ব পুকুরের এ বলী খেলা বিগত ৫৯ বছর ধরে চালিয়ে যাচ্ছেন এলাকাবাসী।
এবছর এ বলী খেলায় কক্সবাজার, রামু, উখিয়া, টেকনাফ, মহেশখালী, লামা, আলীকদম ও স্থানীয় বলীরা অংশগ্রহণ করে বলে জানা যায়।
রাউজান উরকরিচর উচ্চ বিদ্যালয়: বিদ্যালয়ের উদ্যোগে বৈশাখ উদযাপন উপলক্ষে আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও পিঠা উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতথি ছিলেন উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ নুর মুহাম্মদ। সভাপতিত্ব করেন প্রধান শক্ষিক বিলিাস কান্তি দাশ। মেরী বিশ্বাস ও শিক্ষার্থী মুহাম্মদ সাইমনের সঞ্চালনায় অতিথি ছিলেন মুহাম্মদ কাউছার আলম, জাহেদুল্লাহ। শিক্ষিকদের মধ্যে বক্তব্য দেন মুহাম্মদ সাইফুল আজম, অজয় কুমার ভট্টাচার্য্য, পরেশ চন্দ্র সাহা, মাওলানা মুহাম্মদ আবু তালেব, মৃণাল কান্তি দাশ, কীর্তি রঞ্জন বড়ুয়া, নন্দতিা দাশ, সুমী ঘোষ, মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম, মুহাম্মদ সাইফুদ্দীন, শ্যামল দাশ, মুহাম্মদ ইয়াছিন, মুহাম্মদ নুরুল আজিম প্রমুখ।
রাউজান পশ্চিম গুজরা বৈদ্যপাড়া কালচারাল পার্ক: সংগঠনের উদ্যোগে বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে আনন্দ শোভাযাত্রা, চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, সঙ্গীতানুষ্ঠান, নৃত্য, পিঠা উৎসব ও পুরস্কার বিতরণ করা হয়। রবিবার নিজস্ব মাঠে অনুষ্ঠানের উদ্বোধক ছিলেন শিক্ষক ও সমাজকর্মি স্মৃতি কণা বড়–য়া।
প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা ডা. নান্টু বড়–য়ার সভাপতিত্বে ও প্রণব বড়–য়ার সঞ্চালনায় প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা বক্তব্য দেন।
সৈয়দপুর এ নুর ব্লসম স্কুল: বোয়ালখালীর নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, মঙ্গল শোভাযাত্রা, নৃত্য, গান, আবৃত্তি, আলোচনা সভা আর পান্তা ভাতের আয়োজনসহ নানা বৈচিত্র্যে সৈয়দপুর এ নুর ব্লসম স্কুলে উদযাপিত হয়েছে বাংলা নতুন বছরের প্রথম দিনটি। এ উপলক্ষে স্কুলকে সাজানো হয় বাঙালি ঐতিহ্যে।
সভায় সভাপতিত্ব করেন স্কুলের প্রধান শিক্ষক সেকান্দর আলম বাবর। বক্তব্য রাখেন হাজী শেখ মো. সালাউদ্দিন, শহিদুল ইসলাম খান শিমুল, মো. মাহবুবুল আলম, ইউপি সদস্য মো. হাসান চৌধুরী, শিক্ষক মো. ফজলুল কবির, মো. সেজুয়ান হোসেন ফয়সাল, মো. ইমরান হোসেন, জাবেদ হোসেন টিপু, মো. শোয়াইবুল ইসলাম, ইউনুস আজম খোকন প্রমুখ।
হাইদচকিয়া মৈত্রী সংঘ: ফটিকছড়িস্থ সংঘের উদ্যোগে বর্ষবিদায় ও বর্ষবরণ অনুষ্ঠান হয়েছে। সংঘের সভাপতি বিপ্লব বড়–য়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ৬নং পাইন্দং ইউনিয়ন পরিষদের সম্মানিত চেয়ারম্যান এ কে এম ছরোয়ার হোসেন (স্বপন)।
বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রকৌশলী মৃগাংক প্রসাদ বড়–য়া, সূর্যগিরি আশ্রমের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ লায়ন ডা. বরুণ কুমার আচার্য বলাই, হাইদচকিয়া বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এ বি এম গোলাম নূর, হাইদচকিয়া বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মাস্টার আবদুল হালিম, ফটিকছড়ি বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজের অধ্যাপক এন এম রহমত উল্লাহ, ফটিকছড়ি ছাত্রলীগের সভাপতি মো. জামাল উদ্দিন, পাইন্দং ইউনিয়ন যুবলীগের নাছির উদ্দিন, ইউপি সদস্য মো. ফজলুল করিম চৌধুরী, উপদেষ্টা সবেশ বড়–য়া চৌধুরী, পাইন্দং ইউপি প্যানেল চেয়ারম্যান বাবু গৌতম সেবক বড়–য়া, রূপক বড়–য়া, চিনু বড়–য়া, সঞ্জীব বড়–য়া, মাস্টার উত্তম বড়–য়া। মঙ্গলাচরণ করেন ভান্তে বিমলানন্দ মিত্র। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন নান্টু বড়–য়া, পবন বড়–য়া পঙ্কজ, উদয়ন বড়–য়া।
অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পলাশ বড়–য়া, রাহুল বড়–য়া, সলিল বড়–য়া, বাঁধন বড়–য়া, রুবেল শীল, কৃষ্ণ আচার্য, দিটু বড়–য়া, অভি বড়–য়া, সৈজত বড়–য়া, রাসেল বড়–য়া, রীতেশ বড়–য়া, বিপুল বড়–য়া, প্রমিজ বড়–য়া, চম্পক বড়–য়া, মিথুন বড়–য়া।

Share