নীড়পাতা » খেলাধুলা » ইস্পাহানি প্রিমিয়ার ক্রিকেটে শিরোপার দিকে এগুচ্ছে পাইরেটস ও বন্দর

ইস্পাহানি প্রিমিয়ার ক্রিকেটে শিরোপার দিকে এগুচ্ছে পাইরেটস ও বন্দর

নিজস্ব ক্রীড়া প্রতিবেদক

ইস্পাহানি প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগে পাইরেটস অব চিটাগাং ৫ উইকেটে ব্রাদার্স ইউনিয়নকে এবং বন্দর কর্তৃপক্ষ ক্রীড়া সমিতি ৯৯ রানে ফ্রেন্ডস ক্লাবকে হারিয়ে সমান তালে শিরোপার দিকে এগিয়ে চলেছে। ব্রাদার্স ইউনিয়ন: ২২০/৯/৫০ ওভার ও পাইরেটস: ২২২/৫/৪৫.৩ ওভার এবং বন্দর কর্তৃপক্ষ: ৩০১/৫/৫০ ওভার ও ফ্রেন্ডস ক্লাব: ২০২/১০/৪৪.৩ ওভার। তবে এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত খেলায় পাইরেটস দলের গতকালের জয়টা ছিলো সত্যিকার অর্থেই কৃতিত্বপূর্ণ। কেননা ব্রাদার্সের বিরুদ্ধে (৫০ ওভারে ৯ উইকেটে ২২০ রান) ২২১ রানের জয়ের টার্গেট নিয়ে খেলতে নেমে মাত্র ১৩ রানে ৪ এবং ৩৯ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে থর থর করে কাপছিলো পাইরেটস’র ইনিংস। সেখান থেকে ধ্বংসস্তুপে পরিনত দলের ইনিংসকে রেজাউল করিম (অপ.৯৯/১০চার) এবং ওমর ফারুক সজীব (অপ.৮৫/৭চার-১ছক্কা) সীমাহীন দৃঢ়তায় দলকে টেনে তোলেন। দু-জনের অবিশ^াস্য ব্যাটিং নৈপূণ্যে ইনিংসে ১৮৩ রান যোগ হলে নিশ্চিত পরাজয় থেকে জয়ের আনন্দে নেচে ওঠে নবাগত পাইরেটস অব চিটাগাং। অন্যান্যের মধ্যে ১৪ রান করেন ইনজামামুল হক। ব্রাদার্সের শাহীন মাহিদ ৩৭ রানে ৪টি এবং এ এস এম নকীব ৪৪ রানে ১ উইকেট নেন।আগে ব্যাট করা ব্রাদার্সও ৯৩ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে ব্যাকফুটে চলে গিয়েছিলো। সেখান থেকে সরোয়ার্দী শুভ (৭৬রান/৭চার-১ছক্কা) ও আব্দুল গফুর পন্টি (৫৪রান/২চার-২ছক্কা) দৃঢ়তার সাথে ইনিংসে ৯৯ রান যোগ করলে শেষ পর্যন্ত ২২০ রানে গিয়ে থামে দলের ইনিংস। অন্যান্যের মধ্যে রুবেল ২১(৪চার), রাব্বী ১২ (১চার), শরীফউল্লাহ ১২ (২চার) ও এ এস এম নকীব ১১ (১চার) রান করেন। পাইরেটস’র অংশুমান ঘোষ ৩১ রানে ৪টি, সোহাগ গাজী ৩৮ রানে ২টি এবং রেজাউল করিম ৩১ ও বেলাল হোসেন ৩৮ রানে ১টি করে উইকেট নেন।
অন্য ম্যাচে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের খেলায় বন্দরের দু-ওপেনার সাদিকুর রহমান (৭১রান/১০চার) ও ইফতেকার সাজ্জাদ (৬৭রান/ ৬চার-২ছক্কা) ১৪০ রান পর্যন্ত অবিচ্ছিন্ন থেকে বড় স্কোরের ইঙ্গিত দেয়। তার উপর দাড়িয়ে আশিকুল আলম ৬৬ (১চার/৪ছক্কা), রুবেল অপ. ৫২ (৪চার/৩ছক্কা) ও সাজ্জাদুলের ৩৩ (২চার) রানের উপর ভর করে ৩০১ রান করে ৫ উইকেটের বিনিময়ে। ফ্রেন্ডস ক্লাবের মো. শোয়েব ২ রানে ২টি এবং লিখন ৬ ও তানভীর ৫০ রানে ১টি করে উইকেট নেন। ফ্রেন্ডস ক্লাবের ইনিংসে লিখন (৬৭ রান/৪চার-১ছক্কা) ছাড়া বাকিদের মধ্যে কেউই তেমন সুবিধে করতে পারেনি। অন্যান্যের মধ্যে আল আমিন ৩৬ (২চার), শাহাদাত ২৭ (২চার), শরীফুল ইসলাম ১৬ (২ছক্কা), শোয়েব ১০ রান করলে ২০২ রানে অল-আউট হয় ফ্রেন্ডস ক্লাব।

Share