নিজস্ব সংবাদদাতা, রাউজান

দ্বিতীয় তলায় একটি বড়সড় পরিপাটি সাজানো গোছানো রুম। সেখানে আছে টিফিন কেক, বিস্কুট, প্যাকেটজাত মটর ডাল, কুড়কুড়ে চানাচুর, জুস ও লাচ্ছিসহ বিভিন্ন ধরনের খাবার আইটেম। থরে থরে সাজিয়ে রাখা হয়েছে কলম, পেন্সিল, কাটার, কালো রাবার, স্ট্যাপলার মেশিন ও খাতাসহ বিভিন্ন শিক্ষা উপকরণও। এগুলোর কোনটির কি দর, তার তিনটি তালিকা লেমিনেটিং করে দেয়ালের পশ্চিম দিকটাতে টাঙানো হয়েছে। তার পাশেই বসানো হয়েছে একটি বক্স। যেটাতে লেখা আছে ‘ক্যাশ বক্স’। স্কুলের শিক্ষার্থীরা রুমটিতে এসে নির্দিষ্ট মূল্যে টাকা ক্যাশ বক্সে রাখছে, আর যার যা প্রয়োজন তা নিয়ে যাচ্ছে। তখন স্কুলের প্রধান শিক্ষক ওই রুমটিতে আর কি কি প্রয়োজন, সে সম্পর্কে ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে আরো কিছু ধারণা নিচ্ছিলেন। গত ১১ এপ্রিল দুপুরে এই দৃশ্য দেখা গেছে রাউজান সদরে অবস্থিত উপজেলার একমাত্র সরকারি হাইস্কুল রাউজান আর.আর.এ.সি মডেল সরকারি হাই স্কুলে। না এখানে কোন দোকান খোলা হয়নি, দোকানের আদলে খোলা হয়েছে সততা স্টোর। এ স্কুলে গত ১০ এপ্রিল প্রথমবারের মতো চালু করা হয়েছে সততা স্টোর। উপজেলা পরিষদের সন্নিকটে শতবর্ষী প্রাচীন এ ঐতিহ্যবাহী স্কুলে গত ১০ এপ্রিল এ সততা স্টোরের উদ্বোধন করা হয়। প্রধান অতিথি থেকে ফিতাকেটে এর উদ্বোধন করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীম হোসেন। অতিথি ছিলেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা তৌহিদ তালুকদার। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রধান শিক্ষক মোস্তাক আহমদ ও সহকারী প্রধান শিক্ষক অজিত কুমার বড়–য়া। এছাড়াও স্কুলের সব শিক্ষকগণ উপস্থিত ছিলেন।

Share