নিজস্ব সংবাদদাতা, কক্সবাজার

চকরিয়ার মেধা কচ্ছপিয়ায় প্রায় এক কিলোমিটার লম্বা পাইপ দিয়ে ছোট খালে শ্যালো মেশিন বসিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছে একটি প্রভাবশালী সিন্ডিকেট। অপরিকল্পিভাবে খালে মেশিন বসিয়ে বালি উত্তোলনের ফলে আশপাশের ২০ একরের মতো জমির চাষাবাদ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। একদিকে খালের তীর ভাঙছে অন্যদিকে কৃষি ও লবণের চাষাবাদ তলিয়ে যাচ্ছে। এতে স্থানীয় চাষীরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। একই সাথে পরিবেশের ভারসাম্যও নষ্ট হচ্ছে। কিন্তু এ বিষয়ে স্থানীয় প্রশাসন কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না বলে স্থানীয়দের অভিযোগ।
স্থানীয় লোকজন অভিযোগ করে জানান, মেধা কচ্ছপিয়ার ‘বার খাল’ নামক স্থানে একসাথে ৩টি শ্যালো মেশিন বসিয়ে দিনে-রাতে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। স্থানীয় জিল্লুর রহমান, এনামুল হক বাদশা, ওসমান, আতিক উল্লাহ, আবছার, শফিকুল ইসলাম মানিক, কায়েস, অলি আহমদ ও রেজাউল করিমের নেতৃত্বে একটি সংঘবদ্ধ চক্র অবৈধ বালু উত্তোলনের সাথে জড়িত। এরা প্রশাসনের অনুমতি নিয়েই বালু উত্তোলন করছেন বলে এলাকায় প্রচার করছে। এতে স্থানীয় চাষীরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। এসব বিষয়ে একাধিকবার স্থানীয় প্রশাসনকে মৌখিকভাবে অবহিত করা হয়েছে। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। উল্টো অভিযোগ ও প্রতিবাদ করার কারণে প্রভাবশালী বালু উত্তোলনকারীরা এলাকাবাসীর ওপর হামলা করেন। এতে এলাকার আইনশৃংখলা পরিস্থিতিরও অবনতি ঘটছে। ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে চাষীদের মধ্যে। স্থানীয় কবির আহমদ বলেন, বালু উত্তোলনের পাইপ চালাতে চক্রটি চলাচলের রাস্তাটিও খুঁড়ে নষ্ট করে দিয়েছে। আগামী বর্ষায় চলাচলে বিঘœ সৃষ্টি হবে।
এ বিষয়ে পরিবেশ অধিদপ্তর কক্সবাজার কার্যালয়ের সহকারি পরিচালক কামরুল হাসান বলেন, তদন্ত করে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে। চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নুরুদ্দীন মুহাম্মদ শিবলী নোমান বলেন, সেখানে বালু উত্তোলনের জন্য কাউকে অনুমতি দেয়া হয়নি। কয়েক জায়গায় অভিযানও হয়েছে। দ্রুত সেখানে অভিযান চালিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে। দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলেন, এ বিষয়ে ইউএনওকে ব্যবস্থা নিতে বলা হবে।

Share
  • 22
    Shares