অনুপম কুমার অভি, বাঁশখালী

বাঁশখালী উপজেলা পরিষদ নির্বাচন আগামী ২৪ মার্চ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৮ প্রার্থীর প্রচারণায় মুখর হয়ে উঠেছে জনপদ।
নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন এলাকায় সমর্থকদের মাঝে উত্তাপ ছড়িয়ে পড়ছে। পোস্টার ও ব্যানারে ছেয়ে গেছে প্রধান সড়ক ও অলিগলি। বসতঘর থেকে চায়ের দোকান যেখানে মানুষ সমাগম হচ্ছে, সেখানে আলোচনা চলছে প্রার্থী যাচাই-বাছাইয়ের। কে জিতবেন, কে হারবেন, এখনো বলা যাচ্ছে না। তবে ভোটারদের মধ্যে এলাকাভিত্তিক আঞ্চলিকতার প্রশ্ন উঠেছে। বি.এন.পি, জাতীয় পার্টি, কমিউনিস্ট, জাসদ, বাসদ, এল.ডি.পি. ও জামায়াত সমর্থক ভোটাররা কেন্দ্রে গিয়ে ভোট প্রদান করবে এমন ধারণা করছেন প্রার্থী ও এলাকার সচেতন মহল। নীরব ভোটাররাই প্রার্থী বিজয়ে ভোট বিপ্লব ঘটাবে বলেও সচেতন মহলের ধারণা। বি.এন.পি, জাতীয় পার্টি, কমিউনিস্ট, জাসদ, বাসদ, এল.ডি.পি. ও জামায়াত সমর্থিত কোন দলীয় প্রার্থী না থাকায় ভোটাররা নির্বাচনী প্রচারণা থেকে দূরে রয়েছে। বি.এন.পি ও অন্য কোন বড় দলের প্রার্থী না থাকায় নির্বাচনী ইমেজ দেখা যাচ্ছে না। এদিকে দলীয় ও স্বতন্ত্র সকল প্রার্থী আওয়ামী লীগের হওয়ায় ভোট প্রচারণায় অনেক আওয়ামী লীগ নেতা বিভক্ত হয়ে পড়েছেন। উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন ও পৌরসভায় ১১০টি ভোট কেন্দ্রে ৩ লক্ষ ৩ হাজার ১৩০ জন ভোটার ভোট প্রদান করবেন। উপজেলা প্রশাসন নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করতে ইতোমধ্যে বিভিন্ন ধরনের প্রস্তুতিমূলক সভা সমাবেশ করেছেন।
জানা যায়, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী সকলেই আওয়ামী লীগ সমর্থক। কেন্দ্র থেকে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতীক পেয়েছেন চৌধুরী মোহাম্মদ গালীব সাদলি। অপর দুইজন প্রার্থীর মধ্যে দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের শ্রমবিষয়ক সম্পাদক খোরশেদ আলম (আনারস) ও উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক নেতা মৌলভী নূর হোসেন (কাপ-পিরিচ)। ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আবদুল গফুর (টিউবওয়েল), দক্ষিণ জেলা যুবলীগ নেতা মোহাম্মদ সোলাইমান (মাইক) ও ব্যবসায়ী আওয়ামী লীগ নেতা শাহাদত রশীদ চৌধুরী (তালা); মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রেহেনা আক্তার কাজমী (ফুটবল) ও মহিলা আওয়ামী লীগের নেত্রী নুরীমন আক্তার (প্রজাপতি) প্রতীক নিয়ে।
বাঁশখালী উপজেলা নির্বাচনী কর্মকর্তা মুহাম্মদ ফয়সাল আলম বলেন, ভোট কেন্দ্রগুলোতে যাতায়াতের সুবিধার্থে যোগাযোগ ব্যবস্থা স্বাভাবিক করা হয়েছে। ভোটাররা নির্বিঘেœ ভোট প্রদান করতে পারবেন। কেন্দ্রের দায়িত্ব পালনে প্রিজাইডিং ও সহকারী প্রিজাইডিং অফিসারদের প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে।
বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার মোমেনা আক্তার বলেন, নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে বিভিন্ন ভোট কেন্দ্রের অবস্থান পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে। শুনেছি অনেক প্রার্থী উঠান বৈঠকের মাধ্যমে বিভিন্ন এলাকায় প্রচারণাও চালিয়ে যাচ্ছে। নির্বাচন সুন্দরভাবে সম্পন্ন হবে। প্রার্থীদের মধ্যে নির্বাচনী আচরণবিধি লংঘন সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এই পর্যন্ত কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
বাঁশখালী থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কামাল হোসেন বলেন, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে প্রার্থীদের মধ্যে এখনো কোন অপ্রীতিকর ঘটনার সংবাদ পাওয়া যায়নি। এলাকাভিত্তিক পুলিশের টহল সবসময় রয়েছে।

Share