মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম, হাটহাজারী

আগামী ১৮ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী উত্তর জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম রাশেদুল আলম বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। এ কারণে হাটহাজারীতে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আছেন ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ৯ প্রার্থী। এর মধ্যে ৬ জনই আওয়ামী লীগের সমর্থক। তাই এদের মধ্যে কে জয়ী হতে যাচ্ছেন তা নিয়েই চলছে জল্পনা-কল্পনা উপজেলায়। বলা যায় ভোটাররা প্রার্থী পছন্দে বেশ বিভ্রান্তিতে পড়েছেন। কারণ প্রার্থীর মধ্যে অনেকেই দলের দিক দিয়ে শক্ত অবস্থানে আছেন। তাই অনুমান করা যাচ্ছে না কে হচ্ছেন ভাইস চেয়ারম্যান। তবে দুজন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের মধ্যে এগিয়ে রয়েছেন হাঁস প্রতীকের সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সাজেদা বেগম। অনেকের ধারণা, ভোটারদের সাথে ভাল সম্পর্ক এবং অভিজ্ঞ সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সাজেদা বেগমের জয়ের সম্ভাবনা বেশি। তবে আওয়ামী লীগ সমর্থিত কলস প্রতীকের মোক্তার বেগমও চষে বেড়াচ্ছেন উপজেলার বিভিন্ন এলাকা। তিনি জয় পেতে মরিয়া হয়ে কাজ করছেন। সুষ্ঠু নির্বাচন হলে দুই মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে বলে অভিজ্ঞ মহলের ধারণা।
এদিকে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী হাটহাজারী উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মাইক প্রতীকের নুরুল আলম বাসেক দলের সিনিয়র নেতা হিসেবে এগিয়ে থাকলেও কাছাকাছি অবস্থানে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রনেতা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান বৈদ্যুতিক বাল্ব প্রতীকের এম এ খালেদ চৌধুরী। চবি ছাত্রনেতা হিসেবে তিনিও শক্ত অবস্থানে রয়েছেন। এ দুজনের পাশাপাশি এগিয়ে থাকা উড়োজাহাজ প্রতীকের চবি’র সাবেক ছাত্রনেতা লায়ন কে এম জামাল উদ্দিনও প্রচার প্রচারণা চালাচ্ছেন সমান তালে। তাছাড়া ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাবেক সদস্য চশমা প্রতীকের জহির উদ্দিন চৌধুরী টিপুও পিছিয়ে নেই। মাঠে রয়েছেন উপজেলা শ্রমিক লীগ নেতা তালা প্রতীকের উদয় সেন। এছাড়াও দলের বাহিরে টিউবওয়েল প্রতীকের সৈয়দ মোস্তফা আলম মাসুম এবং ইসলামিক ফ্রন্টের কাজী আলাউদ্দিন চেয়ার প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানে প্রথমে পনেরজন প্রার্থী থাকলেও তিনজন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে একজন চেয়ারম্যান প্রার্থী মনোনয়ন জমা না দেয়ায় ও একজন প্রার্থিতা প্রত্যাহার করায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এস এম রাশেদুল আলম বেসরকারিভাবে উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী কেন্দ্রীয় ছাত্রনেতা কলিম প্রতীক পেলেও সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে সরে পড়েন নির্বাচন থেকে। সংবাদ সম্মেলনে তিনি তার মা ও এক বন্ধুর মৃত্যুতে মানসিকভাবে ভেঙে পড়ায় নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াচ্ছেন উল্লেখ করে তিনি কোন প্রার্থীকে সমর্থন দেননি বলে জানিয়েছিলেন সাংবাদিকদের।
হাটহাজারী নির্বাচন কর্মকর্তা আরিফুল হক জানান, হাটহাজারী উপজেলা পরিষদ নির্বাচন হতে যাচ্ছে দ্বিতীয় ধাপে। ১০৬টি কেন্দ্রে সকাল আটটা থেকে বিকাল চারটা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ চলবে। মোট ৩ লাখ ৮ হাজার ৪৬ জন ভোটার তাদের ভোটারধিকার প্রয়োগ করবেন এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লক্ষ ৫৮ হাজার ৫০৫ জন এবং মহিলা ভোটার ১ লক্ষ ৪৯ হাজার ৫৩১ জন।

Share