নিজস্ব প্রতিবেদক

আবাসন ব্যবসা এক সময় কালো মেঘের অন্ধকারে থাকলেও এখন সে মেঘ সরে গেছে উল্লেখ করে ভূমি মন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ বলেছেন, আবাসন ব্যবসা দেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ সেক্টর। বিশে^র অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশে এ ব্যবসা বেশিদিনের না হলেও এর শুরুটা ছিল দুর্দান্ত। একসময় এসে এ ব্যবসা চ্যালেঞ্জের মধ্যে পড়েছিল। কিন্তু এখন সে কালো মেঘ অনেকটা কেটে গিয়ে ভবিষ্যৎ দেখতে পাচ্ছে আবাসন ব্যবসা। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে নগরীর পাঁচ তারকা হোটেল রেডিসন ব্লু’র মোহনা হলে ১২তম রিহ্যাব ফেয়ার-২০১৯ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।
দ্বাদশ বারের মতো এ মেলার আয়োজন করেছে আবাসন প্রতিষ্ঠানদের সংগঠন রিয়েল এস্টেট এন্ড হাউজিং এসোসিয়েশন অব বাংলাদশে (রিহ্যাব)। চারদিনব্যাপী এ মেলা চলবে আগামী রবিবার পর্যন্ত। এবারের মেলায় মোট ৫৬টি প্রতিষ্ঠান ৫ হাজার ফ্ল্যাট ও ২ হাজারের অধিক প্লট নিয়ে ৭৬টি স্টল বরাদ্দ দিয়েছে।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মন্ত্রী ‘গুটিকয়েক মন্দ লোকের কারণে আবাসন ব্যবসার সুনাম ক্ষুণœ হচ্ছে’ মন্তব্য করে বলেন, প্রত্যেক ব্যবসায় ভালোমন্দ লোক আছে। সব লোক ভালো হবে এমনটা আশা করা যায়না। তাই এসব মন্দ লোকদের বিষয়ে রিহ্যাবের সদস্যরা শক্ত পর্যবেক্ষণ ও নিয়ন্ত্রণ রাখা উচিত। কোন প্রতারক যেন রিহ্যাবের সদস্য হতে না পারে সে বিষয়েও নজর দিতে হবে এবং অভিযোগ পেলে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে হবে।
এসব প্রতারক ডেভেলপারের কারণে সাধারণ ক্রেতারা খুব ভোগান্তিতে পড়েন উল্লেখ করে তিনি বলেন, একজন লোক তাঁর সারাজীবনের সঞ্চয় দিয়ে ফ্ল্যাট কিনতে যান। কিন্তু যখন প্রতারণার শিকার হন, তখন সারাজীবনের কষ্টের সঞ্চয় হারান যা আবাসন ব্যবসার জন্য মঙ্গল বয়ে আনে না। আবাসন ব্যবসায়ী সবাই রিহ্যাবের সদস্য বলে দাবি করে। কিন্তু সদস্যদের একটি রেটিং থাকা দরকার। সব কাজের মনিটরিংও প্রয়োজন। কোন সদস্য যদি প্রতারণায় যুক্ত থাকে, তাহলে তাকেও কঠোর শাস্তির মুখোমুখি করতে হবে। তা না হলে এ ব্যবসার ভাবমূর্তি রক্ষা করা যাবে না।
ভূমিমন্ত্রী জাবেদ বলেন, দেশে রিয়েল এস্টেট ব্যবসায় ব্যপক সম্ভাবনা রয়েছে। আবাসন মানুষের মৌলিক চাহিদুসমূহের একটি। তাই এ চাহিদা পূরণে বর্তমান সরকারও কাজ করে যাচ্ছে। আগামীতে এ ব্যবসা আরও শক্ত অবস্থান নিয়ে সামনে এগুবে। তাই ব্যবসায়ীদের এফোর্টেবল হাউজিংয়ের বিষয়টি মাথায় রেখে কাজ করতে হবে। এ ববস্যার মূল লক্ষ্য থাকতে হবে কম দামে বাড়ি কিংবা ফ্ল্যাট ক্রেতার কাছে তুলে দেয়া। এ জন্য ‘লেস প্রফিট, মোর ভলিউম’ নীতি অনুসরণ করতে পারেন। তাহলেই ব্যবসায় গতি আসবে।
বর্তমান জনবান্ধব সরকার দেশের উন্নয়নের মাধ্যমে জনগণের শিক্ষা, চিকিৎসা ও বাসস্থানের জন্য কাজ করে যাচ্ছে উল্লেখ করে মন্ত্রী আরও বলেন, জনগণ এখন বুঝতে পারছে উন্নয়নের মূল শর্ত হচ্ছে একটি (স্টেবেল) ধারাবাহিক সরকার। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বিগত দশ বছর যেভাবে দেশের অবকাঠামোগত উন্নয়ন, মানুষের মৌলিক যে সমস্ত চাহিদা অন্ন, বস্ত্র, শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও বাসস্থান এগুলো চিহ্নিত করতে সক্ষম হয়েছে। সে কারণে সরকারের প্রতি মানুষের আস্থা বেড়ে গেছে।
রিহ্যাব প্রেসিডেন্ট আলমগীর শামসুল আলামিন কাজলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন রিহ্যাবের ভাইস প্রেসিডেন্ট-৩ কামাল মাহমুদ, রিহ্যাব চট্টগ্রাম রিজিওনাল কমিটির চেয়ারম্যান আবদুল কৈয়ুম চৌধুরী।
পরে ফিতা কেটে এবং বেলুন উড়িয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে ৪ দিনব্যাপী রিহ্যাব ফেয়ার, ২০১৯ এর উদ্বোধন করেন ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ।

Share