নীড়পাতা » শেষের পাতা » মুরগির সাথে পাল্লা দিচ্ছে মাছ ও সবজির দাম

মুরগির সাথে পাল্লা দিচ্ছে মাছ ও সবজির দাম

নিজস্ব প্রতিবেদক

মুরগির দাম নাগালের বাইরে। একইসাথে বেড়ে গেছে মাছ, মাংস ও সবজির দামও। পনের দিন আগে থেকেই একটু একটু বাড়ছে সবজির দামও। মুরগির দাম এক সপ্তাহ আগেই বেড়েছে। এসপ্তাহে আবার প্রতি কেজিতে ৪০ টাকা করে বেড়েছে। গত সপ্তাহে ফার্মের মুরগি ছিল ১৬০ টাকা। গতকাল বাজার ঘুরে দেখা গেছে ১৭০ টাকায় বিক্রি করছে প্রতি কেজি মুরগি। কক মুরগি ২৯০ টাকা, সোনালী মুরগি ৩০০ টাকা দরে বিক্রি করছে। হাড়ছাড়া গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে ৬০০-৬৫০ টাকা, হাড়সহ ৪৫০, ৪০০ টাকায় বিক্রি করছে। ছাগলের মাংস কেজি ৭০০ টাকা। মুরগি বিক্রেতা মোহাম্মদ শাহাদাত বলেন, মুরগির ডিম, বাচ্চা ও খাবারের দাম বেশি। আবার এখন বিয়ের সিজন হওয়াতে বাজারে মুরগির চাহিদা বেশি তাই মুরগির দাম বেড়েছে। গতকাল নগরীর চকবাজার ঘুরে দেখা যায় এমন দৃশ্য। প্রতিদিনই বেড়ে চলেছে সবজির দামও। এসপ্তাহে প্রায় সব সবজির দাম বেড়েছে। এক সপ্তাহের ব্যবধানে প্রতি কেজি সবজিতে প্রায় ১৫-২০ টাকা বেড়েছে বলে জানান সবজি বিক্রেতারা। মিষ্টি কুমড়ো ১৫-২০ টাকা, লাউ ১০-১৫ টাকা ও বাঁধাকপি ১০-১৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বিক্রেতারা বলেন, মিষ্টি কুমড়ো, লাউ, বাঁধাকপি ও গাজরের দাম অন্য সবজির তুলনায় কম আছে। তবে অন্য সব সবজির দাম বেড়েছে। গত সপ্তাহে চিচিঙ্গা ছিল ৬০ টাকা। এ সপ্তাহে দাম বেড়ে ৬৫-৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ঝিঙা ৬০ টাকা। এক সপ্তাহের ব্যবধানে ৭০-৭৫ টাকা বিক্রি হচ্ছে। তিতকরলা ৭৫ থেকে ৮০ টাকা ধরে বিক্রি করছে। শিম ৩০ টাকা থেকে বেড়ে ৪০ টাকা, ফুলকপি ৩০ থেকে ৩৫ টাকা, শসা ২০ থেকে ২৫ টাকা, নতুন বরবটি ৭০ থেকে ৮০ টাকা, কচুলতি ৬০ টাকা, বেগুন ২৫ থেকে ৩০-৩৫ টাকা, টমেটো ৪০ থেকে ৬০ টাকা, কাঁচা মরিচ ৪০ থেকে ৪৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে কাঁচা কলা এক হালি ৪০ টাকা, ঢেঁড়শ ৬০ থেকে ৮০ টাকায় বিক্রি করছে। শিমের বিচি প্রতি কেজি ৭০-৮০ টাকা, খেসারির ডাল ৭০ টাকা। বাজারে এসেছে নতুন কাঁচা হেলন ডাল। এই ডাল কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে ৭০-৮৫ টাকা পর্যন্ত। কাঁচা সবজি সহ মাছ মাংসের দাম বৃদ্ধি হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন ক্রেতারা। পলাশ দাশ নামে সবজি বিক্রেতা বলেন, শীতের সিজন শেষ হওয়ায় সবজির দাম বাড়ছে। আবার এখন বাজারে আসছে নতুন সবজি। এখানে বাজার করতে আসেন পোশাক শ্রমিক তাহমিনা বেগম। তিনি বলেন, যেভাবে বাজারের দাম বেড়েছে তাতে আমাদের মত গরিবদের জীবন চালানো দায় হয়ে যাবে। সারাদিন যা আয় করি তা দিয়ে চাল, ডাল, তরি-তরকারি কিনতেই শেষ হয়ে যায়। শুধু সবজি না দাম বেড়েছে মাছ মাংসেরও। এমন হলে আমাদের পরিবার নিয়ে চলা কষ্ট হয়ে যাবে।
এদিকে আবার বেড়েছে মাছের দাম। গত বাজারে রুইমাছ ২৮০ টাকা ও দেশি রুই ৩০০,৩৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। গতকাল বাজার ঘুরে দেখা যায়, প্রতি কেজিতে প্রায় ১০ টাকা বেড়েছে মাছে। কাতল মাছ (জীবিত) কেজিতে ৩০০-৩৫০ টাকা। তেলাপিয়া ১২০-১৩০ টাকা। কৈ ৩৫০ টাকা, পাঙ্গাস ১৩০-১৫০ টাকা, সরপুঁটি ৩০০ টাকা। সামুদ্রিক মাছের মধ্যে ইলিশ মাছ ৬০০ গ্রাম ৭০০-৭৫০ টাকা। রূপচাঁদা ৭০০-৭৫০ টাকা, লাল কোরাল ৫৫০ টাকা, বড় চিংড়ি ৯০০ টাকা, মাঝারি চিংড়ি ৫০০ থেকে ৪৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
মাছ ব্যবসায়ী তমাল পাল বলেন, মাছের দাম গত এক মাস আগেই বেড়েছে। সাতক্ষীরা হ্যাচারি ও কাপ্তাই থেকে এখন মাছ আসছে। তবে সমুদ্রে ইলিশ পোনা ছাড়ায় সাগরে জাল ফেলা নিষেধ আছে তাই সামুদ্রিক মাছ আসা বন্ধ আছে।

Share