দলের বিদেশবিষয়ক ফরেইন এফেয়ার্স কমিটি পুনর্গঠন করেছে বিএনপি। দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীকে ২১ সদস্যের এ কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ করেছেন দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। ফরেইন এফেয়ার্স কমিটির চারজন সদস্য এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। নিজের নাম উদ্ধৃত হতে চাননি বলে তাদের নাম অনুল্লেখ রাখা হলো।
গত ১৭ জানুয়ারি তারেক রহমানের নির্দেশে এফএসি ভেঙে দেওয়া হয়। পুনর্গঠিত এ । ৯ম পৃষ্ঠার ৪র্থ ক.­

কমিটিতে নতুন কয়েকজন সদস্যকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। ইতোমধ্যে কমিটির নির্বাচিত সদস্যদের চিঠি দিয়ে জানানো হয়েছে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘এ রকম কিছু না, সবাই মিলেমিশেই ফরেইন উইংয়ের কাজ করেন। দ্রুতই হয়তো কমিটির বৈঠক হতে পারে। আমরা তো নিয়মিতই বসি।’
দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার বলেন, ‘আমির খসরুই চেয়ারম্যান হবেন, তিনি তো আগে থেকেই কাজ করছেন। তিনি তো সিনিয়র পারসন হিসেবে আছেন।’
আগের কমিটির সব সদস্যই নতুন কমিটিতে আছেন। নতুন সদস্য হিসেবে প্রয়াত নেতা তরিকুল ইসলামের ছেলে সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিত, মানবাধিকারবিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট আসাদুজ্জামান আসাদসহ ৫-৬ জন নতুন সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। গেল সপ্তাহের বিভিন্ন দিনে প্রত্যেক সদস্যদের চিঠি দিয়ে এ তথ্য জানানো হয়েছে।
চিঠিপ্রাপ্তির কথা জানিয়ে এডভোকেট আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, ‘আমি গত সপ্তাহে চিঠি পেয়েছি। নতুন আর কে-কে অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন, তা বলতে পারবো না। আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী কমিটির চেয়ারম্যান।’
২১ সদস্যের ফরেইন এফেয়ার্স কমিটিতে পুরানো সদস্যদের মধ্যে আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী ছাড়াও সাবেক পররাষ্ট্র সচিব রিয়াজ রহমান, সাবিহ উদ্দিন চৌধুরী, ড. আসাদুজ্জামান রিপন, শামা ওবায়েদ, ব্যারিস্টার নওশাদ জমির, রুমিন ফারহানা, ফাহিমা নাসরিন মুন্নী, মীর হেলাল, তাবিথ, জেবা খান প্রমুখ আছেন।
ফরেন এফেয়ার্স কমিটির আহ্বায়ক ইনাম আহমেদ চৌধুরীর পদত্যাগের কারণে আগের কমিটি ভেঙে দেওয়া হয়। গত ১৯ ডিসেম্বর ইনাম আহমেদ আওয়ামী লীগে যোগ দেন। এরপরই দলের নীতি ও বৈদেশিক কাজে নতুন অগ্রগতি আনতে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। ইনাম আহমেদ বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। জোট সরকারের সময় তিনি প্রাইভেটাইজেশনের চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ পেয়েছিলেন।

Share