মা নুষ সৃষ্টি র সে রা। সব ধরনের গুণাবলী দিয়ে তাকে সৃষ্টি করা হয়েছে। মানুষই আদর্শ সৃষ্টি। মানুষ তার জীবনযাপনে নানাধরনের কাজে জড়িয়ে পড়ে। চেষ্টা করে সবকিছু গুছিয়ে একটি সুন্দর জীবন গঠন করতে। জীবন গঠনের বাঁকে বাঁকে মানুষ নানা স্বপ্ন দেখে।
বড় লোকের বড় স্বপ্ন, মধ্যবিত্ত ও অসচ্ছল মানুষেরও থাকে অনেক স্বপ্ন। উচ্চবিত্তের স্বপ্নের শেষ নেই। কিন্তু ছোট ছোট স্বপ্ন দেখে জীবন গঠনের চেষ্টা করে মধ্যবিত্ত ও অসচ্ছল মানুষ। আর্থিক সংগতিহীন মানুষের তেমন স্বপ্ন থাকে না। অসহায়ের স্বপ্ন থাকে কীভাবে দু’বেলা অন্ন জোগাড় করে জীবন পার করা যায় তা।
তাদের স্বপ্নের পরিধি বেশিদূর এগোয় না। স্বপ্ন দেখতে দেখতেই তার বেলা শেষ হয়ে আসে। তাদের হয়তো স্বপ্ন থাকে পরিবারের জন্য কষ্টের আয় দিয়ে ঝুপড়ি ঘরটা মেরামতের, বাচ্চা থাকলে ঈদে তার জন্য একটি স্বল্পমূল্যের জামা কেনার অথবা বছর ছ’মাসে একবেলা খাবার পেটপুরে খাবার বা জমানো খুচরো পয়সা দিয়ে সাধ্যের ভেতর একটা নতুন জিনিস কেনার।
দিনে আনে দিনে খায় এমন মানুষের স্বপ্ন থাকে খেয়ে পরে একটু বেঁচে থাকার। যারা ট্রলি, রিকসা চালায় তাদের হয়তো একটি স্বপ্ন থাকে নিজের একটা ট্রলি/রিকসা হবে। সেটা দিয়ে সে রোজগাড় করবে। বউ, ছেলেমেয়েকে নিয়ে একটু শান্তিতে ঘুমাবে। বড় স্বপ্ন সেতো কল্পনায়!
অন্য ক্ষুদ্র আয়ের মানুষ তাদের স্বপ্নকে বড় করে দেখতে পারে না। সীমাবদ্ধতার কারণে তাদের স্বপ্ন বাড়তে পারে না। মধ্যবিত্ত মানুষও স্বপ্ন দেখে। কিন্তু তাদের কষ্টটা অন্য অনেকের চেয়ে বেশি।
তারা তাদের কষ্টটুকু অন্যদের বুঝাতে পারে না। মুখ বুজে সহ্য করতে হয়। স্বপ্ন দেখে হয়তো তার আয় দিয়ে সন্তান মানুষ করবে, পরিবারকে একটু ভালোভাবে চালাবে। কিন্তু সাধ্যে কুলোয় না। শেষে টানাটানি দেখা দেয়। চরম অভাবের সংসার না হলেও বড় স্বপ্ন দেখতে পারে না ওরাও। হাতে গোনা দু’একজন তাদের ব্যতিক্রম। তাও বড়লোকের স্বপ্নের মতো নয়। নিজের সাধ্যের মধ্যে যতটুকু ততটুকুই।
স্বপ্নবাজ মানুষ হয়তো স্বপ্ন দেখতেই পারে। কিন্তু যারা ছোট ছোট স্বপ্ন দেখে তাদের জীবনের চলার পথ মসৃণ নয়। স্বপ্নের বাস্তবায়ন করতে চাইলেও তা সম্ভব হয় না। কিন্তু স্বপ্ন দেখতে কোন দোষ নেই। মধ্যবিত্ত ও অসহায় মানুষ বড় স্বপ্ন দেখতেও ভয় করে। ছোট ছোট স্বপ্নের মাঝেই তদের আনাগোনা। তাদের সম্ভাবনার সেই ছোট স্বপ্নগুলোও বিভিন্ন দুর্বিপাকে অনেক সময় অদৃশ্য হয়ে যায়। চোখের আড়াল হয়। চলে যায় সীমানার বাইরে। ছোট ছোট স্বপ্নগুলোও অনেক সময় সুখের হয় যখন তা বাস্তবায়নের আশা জাগে। আশা জাগে নতুন করে বাঁচার । কিন্তু তাও যদি ভেঙে খান খান হয় তাহলে জীবনটাই বিষাদে ভরে উঠে।
মানুষের ছোট ছোট স্বপ্নগুলোকে বাঁচাতে সমাজ ও রাষ্ট্র পৃষ্ঠপোষকতা করতে পারে চাইলে। সামর্থ্যবান মানুষ এবং আত্মীয়-স্বজন চাইলে এগিয়ে আসতে পারেন। আমরা সবার জন্য দারিদ্র মুক্ত দেশ গড়ার স্বপ্ন দেখি।
কিন্তু শুরুতেই যদি অসহায় মানুষের ছোট ছোট স্বপ্নগুলো নষ্ট হয়, বড় হতে না দিই তাহলে তা কেবল মুখের বুলিতেই থেকে যাবে।
জীবন গঠনে স্বপ্ন হয়তো উল্টোটাই হতে পারে। সেজন্য হতাশ কিংবা অসহায়ত্ব বোধ করার কোন কারণ নেই। জীবনকে কেবল স্বপ্নের বাহুডোরে
না বেঁধে সম্মুখপানে এগিয়ে যেতে হবে। এর কোন বিকল্প নেই।
ছোট ছোট স্বপ্ন দেখা মানুষগুলোকে শ্রদ্ধা জানাই। চাই তাদের স্বপ্নগুলো বাস্তবে রূপ লাভ করুক। বেঁচে থাকুক স্বপ্নগুলো।

লেখক : শিক্ষক ও প্রাবন্ধিক।

Share
  • 8
    Shares