নিজস্ব প্রতিবেদক

সর্বস্তরের জনগণের উষ্ণ ভালবাসায় সিক্ত হয়েছে দৈনিক পূর্বকোণ। প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল ১০ ফেব্রুয়ারি সকাল থেকে রাত অবধি বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ, বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন, দৈনিক পূর্বকোণের পাঠক ও শুভানুধ্যায়ীগণ ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়েছে দৈনিক পূর্বকোণকে। এসময় প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করতে গিয়ে সবাই বলেছেন, জনগণের সুখ-দুঃখের কথা বলে পূর্বকোণ। উন্নয়নের কথা বলে পূর্বকোণ। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করে পূর্বকোণ। এজন্য পূর্বকোণ পাঠকপ্রিয় পত্রিকা। ভবিষ্যতেও এই ধারা অব্যাহত থাকবে বলে প্রত্যাশা।
সিটি মেয়র : দৈনিক পূর্বকোণের জন্মদিনে চট্টগ্রাম সিটি মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিন দি পূর্বকোণ লিমিটেডের চেয়ারম্যান ও দৈনিক পূর্বকোণের প্রকাশক জসিম উদ্দিন চৌধুরী এবং সম্পাদক ডা. ম. রমিজ উদ্দিন চৌধুরীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। এসময় নগরবাসীর পক্ষ থেকে পূর্বকোণ পরিবারকে ধন্যবাদ জানিয়ে মেয়র বলেন, হাটি হাটি পা পা করে দৈনিক পূর্বকোণ ৩৩ বছর পার করে ৩৪ বছরে পা দিয়েছে। পূর্বকোণ প্রথমে সমস্যা চিহ্নিত করে জনমত তৈরি করে। আর জনমত সৃষ্টি হলে চিহ্নিত সমস্যা সমাধানের জন্যে লেখনীর মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট নীতি নির্ধারকদের উপর চাপ সৃষ্টি করে। যা প্রশংসার দাবিদার। পূর্বকোণ আরো বেশি চট্টগ্রামের কথা বলবে এ আশাবাদ ব্যক্ত করে মেয়র বলেন, বিলবোর্ডর জন্য খোলা আকাশ দেখতে পেতো না নগরবাসী। বিলবোর্ডমুক্ত নগর গড়তে দৈনিক পূর্বকোণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। বিলবোর্ডের বিরুদ্ধে জনমত তৈরি করেছে। যার কারণে বিলবোর্ড উচ্ছেদ করতে আমার অনেক সুবিধা হয়েছে। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। অর্থনীতিতে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ। আমরা আশা করছি ২০৪১ সালে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক সমৃদ্ধ একটি দেশ হিসাবে আত্মপ্রকাশ করবে।
নিয়ম না মেনে নগরীতে যত্রতত্র ব্যানার পোস্টার লাগানো হচ্ছে দাবি করে মেয়র বলেন, নগরীর প্রতিটি দেয়ালে পোস্টার লাগিয়ে নোংরা করা হচ্ছে। বিদেশি লোকজন যেখানে সেখানে পোস্টার ব্যানার লাগনো দেখে আমাদের সম্পর্কে নেতিবাচ ধারনা পোষণ করে। বিলবোর্ড উচ্ছেদের মতো এসব বিষয় নিয়েও পূর্বকোণ জনমত গঠনে ভূমিকা রাখলে এসব কাজ করতে আমাদের জন্য সুবিধা হবে। আমি বিশ্বাস করি নগরীতে যারা বসবাস করে তারা প্রত্যেকেই সচেতন নাগরিক। অনুষ্ঠান শেষ হয়ে যায় কিন্তু পোস্টার ব্যানার সরানো হয় না। নগরীর প্রধান সড়কসহ বিভিন্ন সড়কের আশেপাশে ব্যক্তিমালিকানাধীন অনেক ধনাঢ্য বক্তির বাড়িঘর আছে। তারা নিজেদের সীমানা দেয়ালগুলো ভেতরে ঠিকটাক রাখলেও বাইরে কখনো রং কিংবা চুনকাম করে না। এতে শহরের সৌন্দর্য অনেকটা ম্লান হয়ে যায়।
এমএ সালাম : চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এমএ সালাম বলেন, চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী সংবাদপত্র দৈনিক পূর্বকোণ ৩৩ বছর পেরিয়ে ৩৪ বছরে পা দিয়েছে।
১৯৮৬ সালে যাত্রা শুরু করে পূর্বকোণ। শুরু থেকে চট্টগ্রামের সমস্যা, উন্নয়ন ও সাধারণ মানুষের অধিকার আদায়ের পক্ষে এ পত্রিকা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। আমরা আশা করবো ঐতিহ্যের ধারাবাহিকতায় পূর্বকোণ তার স্বকীয়তা বজায় রাখবে। সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে কথা বলবে। ৩৪ বছরে পদার্পনের আজকের এই দিনে শ্রদ্ধার সাথে স্মরন করছি পূর্বকোণের প্রতিষ্ঠাতা মরহুম ইউসুফ চৌধুরীকে। আজকে খুবই মনে পড়ছে স্থপতি তসলিম উদ্দিন চৌধুরীকে। তিনি অত্যন্ত মেধা সম্পন্ন একজন সম্পাদক ছিলেন। আমার বিশ্বাস এতকাল যাবত সত্য ও ন্যায়ের পথচলার ধারা ও সফলতা ধরে রাখতে পারবে।
মঈনুদ্দিন খান বাদল এমপি :
দৈনিক পূর্বকোণের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে শুভেচ্ছা জানাতে এসে সংসদ সদস্য মইনুদ্দিন খানা বাদল বলেন, দৈনিক পূর্বকোণ নিজেকে ছাড়িয়েছে অনেক আগে। পূর্বকোণ সাধারন মানুষের কথা বলে, দেশের কথা বলে। চট্টগ্রামের ইতিহাস ঐতিহ্য তুলে ধরতে কাজ করে যাচ্ছে নিরলসভাবে। দৈনিক পূর্বকোণ আগামী দিনে আরো বেশী উত্তরনে দেখতে চাই।
ডিসি : সর্বাধিক প্রচারিত দৈনিক পূর্বকোণের জন্মদিনে ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়েছেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মো. ইলিয়াস হোসেন। তিনি বলেন, সমস্যা চিহ্নিত করে সংবাদ প্রকাশে পূর্বকোন গুরুত্বপুর্ন ভুমিকা পালন করছে। ৩৪ বছরে পদার্পনে পূর্বকোণ পরিবারের সবাইকে শুভেচ্ছা জানাই।। পূর্বকোণ আমাদের সাথে আছে, আমরাও পূর্বকোণের সাথে আছি। আমি পত্রিকাটির উত্তরোত্তর সফলতা কামনা করি।
প্রফেসর সেকান্দর খান : ইস্টডেল্টা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর সেকান্দর খান দৈনিক পূর্বকোণের জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানাতে এসে বলেন, যে কোন পত্রিকার প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী একটি বিশেষ সময়। আমি নিশ্চিতভাবে বলতে চাই, পূর্বকোণ মানুষের ভালোবাসা নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। পূর্বকোণের পাতায় আমরা দিন দিন নিত্য নতুন ফিচার দেখতে পাচ্ছি। আমি পত্রিকাটির সফলতা কামনা করি।
জাফরুল ইসলাম চৌধুরী : দৈনিক পুর্বকোণের ৩৪ বছরের পদার্পনে উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা জানাতে এসেছিলেন সাবেক মন্ত্রী জাফরুল ইসলাম চৌধুরী।
তিনি বলেন, চট্টগ্রামের উন্নয়নে পূর্বকোণ গুরুত্বর্পর্ন ভুমিকা রাখছে। প্রতিদিন নানা সমস্যা ও সম্ভবনার কথা তুলে ধরা হয় পত্রিকাটির পাতায়। আমি পূর্বকোণের সফলতা কামনা করছি।
আমরা নেটওয়ার্ক :
জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাতে এসে আমরা নেটওয়ার্কের আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক শোভন সেন গুপ্ত বলেন,দৈনিক পূর্বকোণ শুধু চট্টগ্রামে নয়-জাতীয়ভাবেও পরিচিত একটি আধুনিক দৈনিক। রাউজানের সন্তান হিসাবে পূর্বকোণকে আমি নিজের পত্রিকা মনে করি। সমস্যা-সাম্ভবনার কথা ছাড়াও সমাজে বিভিন্ন ক্ষেত্রে নীরবে কাজ করা মানুষগুলোকে কাজ করছে পূর্বকোণ। প্রচারনা ছাড়া যারা দিনের পর দিন মানুষের কল্যানে কাজ করে যাচ্ছে পরিবর্তনের কারিগর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তাদেরকে তুলে ধরছে এ পত্রিকা। আমি পূর্বকোণের উত্তরোত্তর সফলতা কামনা করছি।
খায়রুল আলম সুজন :
বাংলাদেশ ফ্রেইড ফরোয়ার্ড এসোসিয়েশনের পরিচালক খাইরুল আলম দৈনিক পূর্বকোণের জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাতে এসে বলেন, আমি পূর্বকোণের নিয়মিত পাঠক। আমার প্রিয় পত্রিকা ৩৩ বছর পেরিয়ে ৩৪ বছরে পা দিয়েছে এটি আমার কাছে অত্যন্ত আনন্দের। ৩৪ বছর নয় । আমি দোয়া করছি-আমার প্রিয় পত্রিকা যেন ৩৪০ বছর পূর্তি উৎসব করতে পারে। ভোরে ঘুম থেকে উঠে পূর্বকোণ পড়া আমার কাছে নেশার মতো। মানব সেবা নিয়ে দৈনিক পূর্বকোণ যে কাজগুলো করে যাচ্ছে আমি তার সফলতা কামনা করছি।

Share