জ্ঞানী-গুণী মনী ষীদের মতে ‘আলস্য হল দোষের আকর।’ যা মানব চরিত্রের একটি নেতিবাচক উপসর্গ। বিভিন্নগুণে যেমন মানুষ গুণান্বিত হয়, শোভিত হয় তেমনি আলস্যের ন্যায় দোষও মানব চরিত্রকে কলংকিত করে। কর্মোদ্যম, পরিশ্রমের স্পহা, কাজের উদ্যোগ ও ইচ্ছার অভাবের সমাহারই হল আলস্য। নানা কারণে মানুষ অলস হয়। তবে মনের জোর থাকলে অসুস্থ, ক্ষীণ স্বাস্থ্য মানুষ ও কর্মোদ্যমী হতে পারে। আলস্যের মুখ্য কারণ হল মানসিক প্রবণতা, কাজ ও পরিশ্রমকে ভয় পাওয়া। জীবনে প্রতিষ্ঠিত হতে গেলে প্রতিনিয়ত সংগ্রাম করতে হয়। কেন না, কাজই জীবন। কাজে থাকতে হয় পরিপূর্ণ উদ্যমও স্পৃহা। প্রাচুর্যে পরিপূর্ণ ব্যক্তি ও অলসতায় ভোগে। এছাড়া মনোগত কারণেও অনেকে অলস হয়। লক্ষ্যহীন জীবনে তার কিছু করার থাকে না। আবার, কর্মহীন লোকেরাই হয় অলস। উদ্যোগ না থাকলে কিছু করার থাকে না। কাজে কর্মে উদ্যোগ ও আন্তরিকতার অভাবে মানুষ হয়ে পড়ে কর্মবিমুখও দায়দায়িত্বহীন। প্রবাদে আছে অহরফষব নৎধরহ রং ধ ফবারষং ড়িৎশংযড়ঢ় ‘অলস মস্তিষ্ক শয়তানের কারখানা’। মানব জীবনের সার্থকতা ও পরিচয় তার কর্মকা-ে নির্ভরশীল। অর্থাৎ কর্মই জীবনের সার কথা। শুধুমাত্র খেয়ে দেয়ে ঘুমিয়ে আমোদ-আহলাদে দিন কাটানোই জীবন নয়। মানব জীবনে থাকতে হয় বিশেষ উদ্দেশ্য ও নির্দিষ্ট লক্ষ্য। এই লক্ষ্য অর্জন করতে কাজে নিয়োজিত থাকতে হবে। কিন্তু কর্মবিমুখ মানুষের মন-মস্তিষ্ক নানা অর্থহীন ভাবনা ও কুচিন্তায় পরিপূর্ণ থাকে। অসার ও পঙ্গু জীবন মানুষের কাম্য নয়। সীমিত গন্ডির মধ্যে আবদ্ধ থাকা ও মানব জীবনের লক্ষ্য হতে পারে না।
অসল-অকর্মণ্য ব্যক্তি জীবনের মর্মার্থ খুঁজে পায় না। জীবনটা বিলাস-ব্যসনের ফুল সজ্জা নয়। এ জগতে মানুষের আগমন শুধুমাত্র খেয়ে পরে বেঁচে থাকার জন্য নয়। জীবনকে অর্থবহ করতে হলে অলসতাকে পরিহার করতে হবে। জীবন সংগ্রামে নিরলসভাবে নিয়োজিত থাকতে হবে। মহৎ কিছু করার বাসনা। মানবসেবা ও মানব কল্যাণে ব্রতী হতে হবে। জাগতিক চাওয়া পাওয়াই সব নয়। অপরের কল্যাণে নিজেকে বিলিয়ে দেওয়াও একটি মহৎ কাজ। সে জন্য অলসতা দূর করতে হবে। নিজেকে জীবন সাধনায় নিবেদিত করলে তবেই না সার্থকতা, যারা সত্য-সুন্দরের পূজারী তারা কখনো পরিশ্রম বিমুখ ও অলস হয় না। পরের উপর নির্ভরশীলতা ব্যক্তিত্বহীনতার পরিচায়ক। দুর্বল ও আয়েশী লোকেরাই পরনির্ভরশীল হয়। কিন্তু আত্মমর্যাদাসম্পন্ন ও ব্যক্তিত্ব পরায়ন লোক কখনো অপরের ওপর নির্ভর করে দিন যাপন করে না। তাই জীবনকে তাৎপর্যম-িত করতে হলে অলসতা দূরীভূত করে লক্ষ্য পানে ছুটতে হবে অবিচল চিত্তে। অদম্য মনে বলে।

লেখক : প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক : কর্ণফুলী জুটমিল গেইট ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি, রাঙ্গুনিয়া পৌর এলাকা

Share