চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রথম ৭ মাসে (জুলাই-জানুয়ারি) রপ্তানি আয় বেড়েছে আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ১৩ দশমিক ৩৯ শতাংশ। এ সময়ে রপ্তানি আয় হয়েছে দুই হাজার ৪১৮ কোটি মার্কিন ডলার যা লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় ৭ দশমিক ৯১ শতাংশ বেশি। অন্যদিকে, একক মাস হিসেবে সর্বশেষ জানুয়ারি মাসে রপ্তানি আয় আগের বছরের একই মাসের তুলনায় ৭ দশমিক ৯৫ শতাংশ বেড়েছে। রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, চলতি অর্থবছরের প্রথম ৭ মাসে রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২ হাজার ২৪০ কোটি ৭০ লাখ ডলার। এর বিপরীতে আয় হয়েছে ২ হাজার ৪১৮ কোটি ডলার। আর গত অর্থবছরের একই সময়ে আয় হয়েছিল ২ হাজার ১৩২ কোটি ৪৯ লাখ ডলার। অন্যদিকে, জানুয়ারি মাসে ৩৬২ কোটি ডলারের লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে রপ্তানি আয় হয়েছে ৩৬৮ কোটি ডলার। সুতরাং লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় গত মাসে রপ্তানি আয় ১ দশমিক ৫৯ শতাংশ বেশি হয়েছে। গত অর্থবছরের জানুয়ারিতে রপ্তানি আয়ের পরিমাণ ছিল ৩৪০ কোটি ৮৮ লাখ ডলার। প্রধান রপ্তানি পণ্য পোশাক খাতের আয় ধারাবাহিকভাবে ভাল হওয়ায় রপ্তানিতে ইতিবাচক প্রবৃদ্ধির ধারা অব্যাহত রয়েছে বলে ব্যবসায়ীরা মনে করছেন। -বাসস
তিনি রপ্তানি আয় সম্প্রসারণে প্রচলিত বাজার ছাড়াও নতুন বাজার সম্ভাবনাকে কাজে লাগানো এবং পণ্য বহুমুখীকরণ বিশেষ করে বেশি মূল্য সংযোজন হয় এমন পণ্য রপ্তানির প্রতি মনোযোগ দেওয়ার পরামর্শ দেন। ঢাকা চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি’ (ডিসিসিআই) সাবেক সভাপতি আবুল কাশেম খান বলেন, ব্যবসায় অনুকূল পরিবেশ আগের তুলনায় ভাল হওয়ায় পোশাক খাত দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছে। তবে অবকঠামোখাতে প্রয়োজনীয় উন্নয়ন করা গেলে রপ্তানি আয় আরো বাড়বে বলে তিনি মন্তব্য করেন। তিনি পোশাকের পাশাপাশি অন্যান্য পণ্য রপ্তানি বাড়াতে বৈচিত্র্যপূর্ণ শিল্প পণ্যের ক্ষেত্রে সরকারের নীতি সহায়তা ও প্রণোদনা দেওয়ার সুপারিশ করেন। ইপিবির হালনাগাদ প্রতিবেদন অনুযায়ী, পোশাক খাতের নিট পণ্য ( সোয়েটার, টি-শার্ট জাতীয় পোশাক) রপ্তানি আয় ও প্রবৃদ্ধি লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় দুই-ই বেড়েছে। ৯২৭ কোটি ৮৮ লাখ ডলারের লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে রপ্তানি আয় দাঁড়িযেছে ১ হাজার ১৪ কোটি ডলার। প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৩ দশমিক ৮৬ শতাংশ। গতবছরের একইসময়ে এই খাতে রপ্তানি ছিল ৮৯০ কোটি ৬৩ লাখ ডলার। আলোচ্য সময়ে ওভেন পণ্যেও (শার্ট, প্যান্ট জাতীয় পোশাক) রফতানি আয় আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় বেড়েছে। এক্ষেত্রে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৫ দশমিক ১৮ শতাংশ। ৯৫০ কোটি ২২ লাখ ডলারের লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে ওভেন পণ্য রফতানি হয়েছে ১ হাজার ৭ কোটি ৬৯ লাখ ডলারের। গতবছরের একই সময়ে এর পরিমাণ ছিল ৮৭৪ কোটি ৮৭ লাখ ডলার। জুলাই-জানুয়ারি সময়ে বড় পণ্যের মধ্যে প্লাস্টিক পণ্যের রপ্তানি আয় বেড়েছে। এই খাতে রপ্তানি আয়ের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৬ কোটি ৭০ লাখ ডলার, যার প্রবৃদ্ধি ১৯ দশমিক ৬৬ শতাংশ।
মাছ রপ্তানিতে প্রবৃদ্ধি হয়েছে উল্লেখ করার মত। এ সময়ে ৩৬ কোটি ১০ লাখ ডলারের মাছ রপ্তানি হয়েছে। এর প্রবৃদ্ধি ২ দশমিক শুন্য ১ শতাংশ। তবে চামড়া ও চামড়জাত এবং পাট ও পাট পণ্যের রপ্তানি গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় কমেছে। গতবছরের প্রথম সাত মাসে চামড়া ও চামড়জাত পণ্যের রপ্তানি ছিল ৭০ কোটি ৯৫ লাখ ডলারের, এবারের একই সময়ে এর পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৬২ কোটি ৬৪ লাখ ডলার। চলতি অর্থবছরের ৭ মাসে পাট ও পাটজাত পণ্য রপ্তানি হয়েছে ৪৯ কোটি ৮৬ লাখ ডলার। গত অর্থবছরের একই সময়ে এর পরিমাণ ছিল ৬৬ কোটি ১৮ লাখ ডলার। এছাড়া কৃষিজাত পণ্যের রপ্তানি আয় বেড়েছে। এ সময়ে ৫৭ কোটি ৯৬ লাখ ডলারের কৃষিজাত পণ্য রপ্তানি হয়েছে। প্রবৃদ্ধি ৬১ দশমিক শুন্য ৩ শতাংশ।পাশাপাশি আসবাবপত্র, হস্তশিল্প, বিশেষায়িত টেক্সটাইল পণ্য, রাসায়নিক পণ্য ও পাদুকার রপ্তানি বেড়েছে। তবে হোম টেক্সটাইলসহ কয়েকটি পণ্য রপ্তানি গত অর্থবছরের তুলনায় কমেছে।

Share
  • 26
    Shares