নীড়পাতা » প্রথম পাতা » ভর্তি বাণিজ্যের অভিযোগ এলেই দুদকের অভিযান

ভর্তি বাণিজ্যের অভিযোগ এলেই দুদকের অভিযান

ইমরান বিন ছবুর

চট্টগ্রামের বেসরকারি স্কুলের ভর্তিতে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ পেলেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালাবে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। কোনো শিক্ষার্থী বা অভিভাবক যদি দুদক হটলাইনে ১০৬ নম্বরে ডায়াল করে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের কথা জানায়, সেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অভিযান পরিচালনা করা হবে বলে জানান, চট্টগ্রামের দুদকের উপ-পরিচালক লুৎফুল কবির চন্দন।
নগরীর বেশির ভাগ বেসরকারি স্কুলই মানছে না শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ভর্তি নীতিমালা। সেসব স্কুলে নতুন ভর্তির ক্ষেত্রে আদায় করা হচ্ছে ইচ্ছেমত ফি। অন্যদিকে, পুনঃভর্তির নামে অভিভাবকদের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে মোটা অংকের টাকা। এছাড়া, ‘বিবিধ খাত বা অন্যান্য’ নামে বিভিন্ন স্কুলে অতিরিক্ত টাকা আদায়ের অভিযোগও পাওয়া গেছে।
অতিরিক্ত ভর্তি ফি আদায় প্রসঙ্গে চট্টগ্রাম দুদকের উপ-পরিচালক লুৎফুল কবির চন্দন জানান, স্কুলে অতিরিক্ত ভর্তি ফি আদায় সম্পর্কে এখনো পর্যন্ত কেউ আমাদের কাছে অভিযোগ করেনি। ১০৬ নম্বরে ডায়াল করে কেউ যদি স্কুলে অতিরিক্ত ভর্তি ফি নেয়া হচ্ছে এমন অভিযোগ করেন, তাহলে আমরা সাথে সাথে ওই স্কুলে অভিযান চালাবো। তিনি আরো জানান, যেহেতু আমাদের কাছে এখনো কোনো অভিযোগ আসেনি, তাই এখনো কোনো স্কুলে অভিযান পরিচালনা হয়নি। তবে অভিযোগ পেলে অভিযান চালানো হবে। স্কুল কর্তৃপক্ষ ভর্তি ফি’র নামে অতিরিক্ত টাকা আদায় বা আদায়ের চেষ্টা করলে ১০৬ নম্বর ডায়াল করে অভিযোগ জানানোর পরামর্শও দেন তিনি।
এ প্রসঙ্গে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) আমিরুল কায়ছার জানান, এখনো পর্যন্ত কোনো স্কুলের বিরুদ্ধে কেউ অভিযোগ করেনি। কেউ যদি নির্দিষ্ট কোনো স্কুলের নামে অভিযোগ করে, তাহলে তদন্ত করে বিধি মোতাবেক সেসব স্কুলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
বেসরকারি স্কুল-স্কুল এন্ড কলেজ মাধ্যমিক, নি¤œ মাধ্যমিক ও সংযুক্ত প্রাথমিক স্তরে শিক্ষার্থী ভর্তি নীতিমালায় বলা হয়েছে, সেশন চার্জসহ ভর্তি ফি সর্বসাকূল্যে মফস্বল এলাকায় ৫০০ টাকা, পৌর (উপজেলা) এলাকায় ১ হাজার টাকা, পৌর (জেলা সদর) এলাকায় ২ হাজার টাকা এবং ঢাকা ব্যতীত অন্যান্য মেট্রোপলিটন এলাকায় ৩ হাজার টাকার বেশি হবে না।
নীতিমালায় আরো বলা হয়েছে, একই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বার্ষিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে এক শ্রেণি থেকে অন্য শ্রেণিতে ভর্তির ক্ষেত্রে সেশন চার্জ নেয়া গেলেও পুনঃভর্তির ফি নেয়া যাবে না।
কনজুমারস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) এর তথ্য মতে, নগরীর প্রায় ১০ থেকে ১৫টি বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ভর্তি নীতিমালার বাইরে অতিরিক্ত ফি আদায় করছে। এসব স্কুলের মধ্যে- চট্টেশ^রী রোডে অবস্থিত চিটাগাং ন্যাশনাল ইংলিশ স্কুলে নতুন ভর্তিতে নেয়া হচ্ছে ১৫ হাজার ৬০০ টাকা। মেহেদী বাগ সানসাইন গ্রামার স্কুলে উন্নয়ন ফি ৯ হাজার এবং ভর্তি ৫ হাজার টাকা। চান্দগাঁও আবাসিকে ফুলব্রাইট টিউটেরিয়াল স্কুলে ৮ হাজার ৫০০ টাকা, বেপজা স্কুল এন্ড কলেজে ১০ হাজার ২০০ টাকা, টিএসপি কমপ্লেক্স ম্যাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ৫ হাজার টাকা এবং মেহের আফজল উচ্চ বিদ্যালয়ে ৩ হাজার ৬০০ টাকা নেয়া হচ্ছে। এছাড়াও শাহ ওয়ালী উল্লাহ ইন্সিটিটিউট ভর্তিতে ৩ হাজার ৫০০ টাকা এবং ইয়াং ওমেন’স ক্রিস্টিয়ান এসোসিয়েশন (ওয়াইডাব্লিউসিএ) স্কুলে ভর্তি ফি ৩ হাজার টাকা ছাড়াও আরো ৩ হাজার ৭৫০ টাকাসহ মোট ৬ হাজার ৭৫০ টাকা আদায় করা হচ্ছে।
এর আগে গত ৮ জানুয়ারি ভর্তিতে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ অনুসন্ধানে রাজধানীর ১৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের কাছে চিঠি পাঠিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এ ছাড়া তৃণমূল পর্যায়ে শিক্ষায় অনিয়ম ও দুর্নীতি খুঁজতে ৬৪ জেলা প্রশাসককে (ডিসি) পৃথক চিঠি দিয়েছে রাষ্ট্রীয় দুর্নীতিবিরোধী এ প্রতিষ্ঠান।

Share
  • 75
    Shares