নিজস্ব সংবাদদাতা হ আনোয়ারা

ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ এমপি বলেছেন, উপরে আল্লাহ নিচে শেখ হাসিনা। তার একক প্রচেষ্টায় আওয়ামী লীগ টানা ৩য় বারের মত ক্ষমতায় এসেছে। দেশের জনগণ তার সুশাসনের কারণে এখন ব্যাপক প্রশংসা করছেন। শেখ হাসিনা গণতন্ত্রের প্রত্যয় নিয়ে দেশ শাসন করছেন। সারা দেশের অব্যাহত উন্নয়নের কারণে আওয়ামী লীগ সরকারকে জনগণ পুনরায় নির্বাচিত করেছে। তিনি বলেন, চট্টগ্রামে ৪ মন্ত্রী দিয়েছেন শেখ হাসিনা। আমরা ৪ জনে মিলে চট্টগ্রামের উন্নয়ন ও রাজনৈতিক ভাবে কাজ করবো। গতকাল শুক্রবার বিকেলে কর্ণফুলীর দৌলতপুর কেইপিজেড এর প্রধান গেইটে আনোয়ারা-কর্ণফুলী আওয়ামী লীগের যৌথ উদ্যোগে গণসংবর্ধনায় সংবর্ধিত প্রধান অতিথি হিসেবে ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ এমপি এসব কথা বলেন। ভূমিমন্ত্রী আরও বলেন, দলের চেয়ে ব্যক্তি হিসেবে শেখ হাসিনা অনেক জনপ্রিয়। বিশ্বের ১০ প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে একজন হচ্ছেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, চট্টগ্রামবাসীর জন্য আমার দরজা সবসময় খোলা থাকবে। দলমত নির্বিশেষে সকলে আসতে পারবেন। আমার বাবার মত আমিও সার্সন রোডের বাসা উম্মুক্ত করে দিলাম। আমার এই সংবর্ধনা আনোয়ারা কর্ণফুলীবাসীকে উৎসর্গ করলাম। প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাই আজকের এই সংবর্ধনার এই সম্মান শেখ হাসিনার জন্য। আমি ও আমরা কৃতজ্ঞ। সর্বোপরি চট্টগ্রামবাসী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞ। তিনি বিগত ৫ বছরে আমার সততা, নিষ্ঠার বিবেচনা করেই আমাকে পূর্ণ মন্ত্রী করেছেন। এই সরকার দুর্নীতিমুক্ত সরকার। তিনি বলেন বিগত ৫ বছরে কোন দুর্নীতি আমাকে স্পর্শ করতে পারেনি। আগামী দিনেও পারবে না। কর্ণফুলী আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান ফারুক চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও কর্ণফুলী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হায়দার আলী রনি ও আনোয়ারা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ মালেকের যৌথ সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন পটিয়া থেকে নির্বাচিত সাংসদ সামশুল হক চৌধুরী, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আবুল কালাম চৌধুরী, এড. জসিম উদ্দিন, সাতকানিয়া পৌর মেয়র মো. জোবাইর, দক্ষিণ জেলা যুবলীগের সভাপতি আ.ম.ম টিপু সুলতান ও দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের প্রমুখ। সংবর্ধনা সভায় উপস্থিত ছিলেন, সাবেক সাংসদ চেমন আরা তৈয়ব, আনোয়ারা উপজেলা চেয়ারম্যান তৌহিদুল হক চৌধুরী, আনোয়ারা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক এম.এ মান্নান চৌধুরী, আনোয়ারা ও কর্ণফুলী উপজেলার এডহক কমিটির সদস্যবৃন্দ ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন। সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদের সংবর্ধনাকে কেন্দ্র করে নেতাকর্মীদের মাঝে উৎসবের আমেজ বয়ে যায়। সকাল থেকে নেতাকর্মীরা সংবর্ধনাস্থলে আসতে শুরু করে। বিকাল গড়াতেই খ- খ- মিছিলে সংবর্ধনাস্থল কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায়। দুই উপজেলার বিভিন্ন ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন থেকে নেতাকর্মীরা বিভিন্ন ব্যানার, ফেস্টুন নিয়ে নেতাকর্মীরা সংবর্ধনা সভায় যোগ দেন। ঘোড়ার গাড়ি করে বিশাল বহর নিয়ে মন্ত্রী সংবর্ধনাস্থলে পৌঁছলে নেতাকর্মীদের করতালি ও মুহুর্মুহু স্লোগানে সভাস্থলে উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করে । এ সময় মন্ত্রী দুই হাত নেড়ে সবাইকে অভিবাদন জানান। সংবর্ধনা সভায় তিনি আরও বলেন, আগামী পাঁচ বছরে আনোয়ারা ও কর্ণফুলী হবে আধুনিক উপ-শহর। দুই উপজেলাকে শিল্প নগরীতে রূপান্তর করা হবে। ইতিমধ্যে দুই উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুতায়ন সংযোগ নিশ্চিত করা হয়েছে। ওয়াসা পানির লাইনের ব্যবস্থাও প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দিয়েছেন। শীঘ্রই এর সুফল পাওয়া যাবে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অর্থনৈতিক স্বাধীনতার ডাক দিয়েছেন। তিনি দেশকে স্বনির্ভর করার জন্য কাজ করছেন। সামনে বঙ্গবন্ধুর শতবার্ষিকী উদযাপন করা হবে। ২০২১ সালে দেশ মধ্যম আয়ে পরিণত হবে। ২০৪১ সালে সুুখী সমৃদ্ধশালী উন্নত দেশ হবে। তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর যে স্বপ্ন ছিল তা বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। তিনি নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বলেন, সততা ও সুনামের সাথে কাজ করতে হবে। কোন ধরনের দুর্নাম সহ্য করা হবে না। এমন কোন কর্মকা- করবেন না। যা আমার ও দলের ক্ষতি হয়। তিনি সকলকে আনোয়ারা কর্ণফুলীসহ চট্টগ্রামের উন্নয়নে সহযোগিতা করার জন্য আহ্বান জানান।

Share
  • 4
    Shares