নিজস্ব সংবাদদাতা, সীতাকু-

সীতাকু-ে এক বিধবার বাড়িতে মধ্যরাতে রীতিমতো তা-ব চালিয়েছে একদল দুষ্কৃতিকারী। তারা রাতারাতি একটি কাঁচা ঘর সম্পূর্ণরূপে ভেঙে গুঁড়িয়ে দিয়ে লুট করেছে ঘরে থাকা টিভি, নগদ টাকা, স্বর্ণালংকারসহ যাবতীয় মালামাল। এ হামলায় এক বৃদ্ধাসহ আহত হয়েছে তিনজন। এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে ভুক্তভোগীরা।
অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গত বুধবার রাত আনুমানিক দেড়টার দিকে উপজেলার সলিমপুর ইউনিয়নের মধ্যম সলিমপুর গ্রামের দাইয়াবাড়ির মৃত শাহ আলমের বাড়িতে অতর্কিতে হামলায় চালায় অর্ধ শতাধিক দুষ্কৃতিকারীর একটি দল। তারা প্রায় দুই ঘণ্টা ওই বাড়িতে অবস্থান করে সেখানে তা-ব চালায়। এ সময় টিন ও বেড়ায় নির্মিত দুই কক্ষের সম্পূর্ণ বসতঘরটি ভেঙে গুঁড়িয়ে টিনগুলো পাশর্^বর্তী পুকুরে ফেলে দেয়। এছাড়া ঘরে থাকা যাবতীয় মূল্যবান সরঞ্জাম লুট করে নেয়। সরেজমিনে গত ১১ জানুয়ারি দুপুরে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, শাহ আলমের বিধবা স্ত্রীর আশ্রয়স্থল বাড়িটি সম্পূর্ণরূপে উপড়ে ফেলা হয়েছে। ভেঙে ফেলা হয়েছে পাকা টয়লেটও। ফলে এদিন খোলা আকাশের নিচে বসেই রান্না করছিলেন পরিবারের বাসিন্দারা। সেখানে উপস্থিত ওই বাড়ির হানিফের স্ত্রী কামরুন্নাহার অভিযোগ করে বলেন, আমাদের জায়গাটি নিয়ে পাশের অন্য একটি পরিবারের সাথে মামলা চলছে। মামলার কোন রায় হয়নি। এ অবস্থায় আমাদেরকে উচ্ছেদ করে জায়গাটি তাদের দখলে রয়েছে দেখানোর জন্যই এভাবে অমানুষিক হামলা চালানো হয়েছে। তিনি পাশের একটি অসম্পূর্ণ পাকা ঘর দেখিয়ে বলেন, আমরা ওই ঘরটি নির্মাণ করছি। এ কারণে ঘরে নগদ তিন লাখ টাকা ছিল। সেই টাকা এবং স্বর্ণালংকার, টিভিসহ মালামাল নিয়ে গেছে। হামলায় ছিল ওসমান, ফারুক, দিদার ও আজিজুর রহমানসহ অর্ধ শতাধিক দুষ্কৃতিকারী। তাদের হামলায় আমি, হোসনেয়ারা বেগম ও ফরিদা ইয়াসমিন আহত হয়েছি। তিনি বলেন, আমি এ নির্মম ঘটনার বিচার চাই। এদিকে পরিদর্শনকালে ওই এলাকার ইউপি সদস্য জাবেদ বলেন, যেভাবে মধ্যরাতে সেখানে হামলা হয়েছে তা অমানবিক। এ ঘটনার বিচার হওয়া উচিত।
এদিকে অভিযোগ বিষয়ে জানতে চাইলে হামলার নেতৃত্বে থাকা ফারুক অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ওই জায়গা ও ঘর আমাদের। আমরা কেন দখল করতে যাব? তিনি বলেন, তারা নিজেরাই ঘরটি ভেঙেছে।
এদিকে গত শুক্রবার ভুক্তভোগী পরিবারের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে। সীতাকু- থানার ওসি মো. দেলওয়ার হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ভুক্তভোগীরা এ বিষয়ে একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। আমরা তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।

Share