নীড়পাতা » প্রথম পাতা » দৌড়ঝাঁপ শুরু আওয়ামী লীগে, নিরব বিএনপি

চট্টগ্রামের ১৪ উপজেলার নির্বাচন

দৌড়ঝাঁপ শুরু আওয়ামী লীগে, নিরব বিএনপি

মোহাম্মদ আলী

উপজেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগের মধ্যে দৌড়ঝাঁপ শুরু হলেও নিরব বিএনপি। তাদের মধ্যে এ নিয়ে কোন আগ্রহই দেখা যাচ্ছে না। আগামী মার্চে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের সম্ভবনা রয়েছে। এ নিয়ে প্রক্রিয়া শুরু করেছে নির্বাচন কমিশন।
চট্টগ্রামে উপজেলার সংখ্যা ১৫টি। কর্ণফুলী ছাড়া অন্য ১৪ উপজেলায় এবার নির্বাচন হবে বলে জানা গেছে। উপজেলাগুলো হচ্ছে : সন্দ্বীপ, মিরসরাই, সীতাকু-, হাটহাজারী, ফটিকছড়ি, রাউজান, রাঙ্গুনিয়া, বোয়ালখালী, পটিয়া, আনোয়ারা, চন্দনাইশ, বাঁশখালী, সাতকানিয়া ও লোহাগাড়া।
উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে রাজনৈতিক দলগুলোর সম্ভাব্য চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরা মাঠ পর্যায়ের সরব হয়ে উঠেছেন। বিশেষ করে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীদের অনেকে স্থানীয় এমপি-মন্ত্রী এবং জেলা ও উপজেলার শীর্ষ নেতাদের সাথে যোগাযোগ বাড়িয়ে দিয়েছেন। এ নিয়ে স্থানীয় রাজনীতি সরগরম হয়ে উঠছে। স্থানীয় সরকার নির্বাচনগুলোর মধ্যে অন্যতম নির্বাচন হলো ‘উপজেলা পরিষদ নির্বাচন’। এর আগে গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে চট্টগ্রামের ১৬টি সংসদীয় আসনে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট প্রার্থীরা। নির্বাচনের পর বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট অনেকটা নিরব রয়েছে।
পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, সর্বশেষ চট্টগ্রামের ১৪ উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ৮টি এবং বিএনপি ও জামায়াত তিনটি করে উপজেলায় জয়লাভ করে। এর মধ্যে আওয়ামী লীগ সন্দ্বীপ, সীতাকু-, ফটিকছড়ি, রাউজান, রাঙ্গুনিয়া, বোয়ালখালী, আনোয়ারা ও চন্দনাইশ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে জয়লাভ করে। বিএনপি বিজয়ী হয় মিরসরাই, হাটহাজারী ও পটিয়া উপজেলায়। জামায়াতের প্রার্থী জয়লাভ করেন বাঁশখালী, সাতকানিয়া ও লোহাগাড়া উপজেলায়। এবারও আধিপত্য ধরে রাখতে আওয়ামী লীগ কোমর বেঁধে মাঠে নামছে বলে দলের একাধিক সূত্র জানিয়েছে। এ জন্য সম্ভাব্য প্রার্থীরাও দলীয় মনোনয়ন পেতে নেতাদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ সালাম দৈনিক পূর্বকোণকে বলেন, ‘উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী চূড়ান্ত মনোনয়ন দেবে দলের ‘মনোনয়ন বোর্ড’। তবে এখনো নির্বাচন নিয়ে আমাদের কাছে কোন নির্দেশনা আসেনি। আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী তৃণমূল থেকে মতামত নিয়ে কয়েকজন সম্ভাব্য প্রার্থীর তালিকা কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ডের কাছে পাঠানো হয়। এরপর মনোনয়ন বোর্ড সেখান থেকে প্রার্থী চূড়ান্ত করবেন।’
যোগাযোগ করা হলে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীম দৈনিক পূর্বকোণকে বলেন, ‘উপজেলা নির্বাচন নিয়ে বিএনপি এখনো কোন সিদ্ধান্ত নেয়নি। বর্তমান সিইসি’র অধীনে কোন সুষ্ঠু নির্বাচন হতে পারে না তা দেশবাসী প্রমাণ পেয়েছে গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে। এ কারণে বিএনপির মধ্যে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে কোন আগ্রহ দেখা যাচ্ছে না।’

Share