নিজস্ব সংবাদদাতা, রোয়াংছড়ি

বান্দরবানের রোয়াংছড়িতে তুলাছড়ি পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীরা সুপেয় পানি পাওয়ায় আনন্দে উল্লাসে মেতে উঠেছে।
এলাকাবাসীসহ তুলাছড়ি পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়–য়া সকল ছাত্র-ছাত্রীদের একটি প্রধান সমস্যা ছিল খাওয়ার পানি নিয়ে। ওই বিদ্যালয়ে ছিল না কোন নলকূপ, নেই কোন রিংওয়েল। প্রত্যন্ত অঞ্চলের সাধারণ জনগণের বিশুদ্ধ পানি সংকট ছিল। স্কুলের শিক্ষক ও ছাত্রছাত্রীরা ঝিরির পানি পান করতো। ওই স্কুলে পড়ালেখা করতে আসা শিক্ষার্থীরা ঝিরির পানি পান করার ফলে নানা রোগে ভুগতো। এবারে সুপেয় ও বিশুদ্ধ পানি পেয়ে স্কুলপড়–য়া সকল ছাত্রছাত্রী আনন্দ উল্লাস করছে। জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অফিসের স্টাফ জহিরুল ইসলাম বলেন, খাওয়ার পানির সংকট নিরসনের লক্ষ্যে সরকার গুরুত্বপূর্ণ স্থানে গভীর নলকূল এবং রিংওয়েল স্থাপন করেছে। শুধু তাই নয় পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর (উশৈসিং) এমপি’র প্রচেষ্টায় দুর্গম পাহাড়ের সুপেয় পানি সরবরাহের ব্যবস্থা গ্রহণে মাধ্যমে প্রত্যন্ত এলাকারও বিশুদ্ধ পানির চিন্তা দূর হয়েছে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দুর্গম এলাকার বসবাসকারীদের বিশুদ্ধ পানি সংকট নিরসনে চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।
ইতিমধ্যে সরকার বরাদ্দকৃত একশটি গভীর নলকূপ স্থাপন হলে বিশুদ্ধ পানি সংকট নিরসন হবে। গভীর নলকূপ স্থাপনের ফলে অবিরত নির্গত পানিগুলো ব্যবহারযোগ্য হয়েছে। প্রধান শিক্ষক শিমন দাশ গুপ্ত বলেন, এখন বিশুদ্ধ পানির কোন সমস্যা নেই। তুলাছড়ি পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ডিপ টিউবয়েল স্থাপনের ফলে পর্যাপ্ত পরিমাণে বিশুদ্ধ পানি ব্যবহার করতে পাচ্ছে। রোয়াংছড়ি সদর ইউপি ৩ নং ওয়ার্ডে মেম্বার গাদিলাল তঞ্চঙ্গ্যা বলেন, এই এলাকার বিশুদ্ধ বা খাওয়ার পানি নিয়ে প্রচুর সমস্যা ছিলেন। এখন খাওয়ার পানির চিন্তা দূর হয়েছে।
রোয়াংছড়ি সদর ইউপি চেয়ারম্যান চহ্লামং মারমা বলেন, প্রত্যেক ইউনিয়নে জনসংখ্যা অনুপাতে ডিপওয়েল ও রিংওয়েল কম বেশি বরাদ্দ পেয়েছি। এ কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা গেলে এলাকাবাসীর বিশুদ্ধ পানির সমস্যা দূর হবে। উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী মো. আশরাফুল ইসলাম বলেন, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী অফিসের মাধ্যমে রোয়াংছড়ি উপজেলায় প্রত্যেকটি ইউনিয়নে বিশুদ্ধ ও সুপেয় পানি সরবরাহ করা লক্ষ্যে দেড় কোটি টাকা বরাদ্দে প্রকল্প বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে। ইতিমধ্যে একশটি গভীর নলকূপ স্থাপনের লক্ষ্যে কার্যক্রম চলছে।

Share