গণসঙ্গীত শিল্পী অশোক সেনগুপ্ত কলকাতার টাটা মেডিক্যাল সেন্টারে চিকিৎসারত অবস্থায় গতকাল বুধবার ভোর সোয়া ৬ টায় ডাক্তাররা তার প্রয়াণের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।
মৃত্যুকালে তিনি সহধর্মিনী রত্না সেনগুপ্তা, দুই সন্তান তিলোত্তমা সেনগুপ্তা, ইমন সেনগুপ্ত (প্রয়াত), জামাতা নাট্যজন অসীম দাশসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।
কাল শুক্রবার সকাল ১০ টায় তাঁর মরদেহ রাখা হবে চট্টগ্রাম শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে যেখানে সর্বস্তরের মানুষ তাঁকে শেষবারের মত শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করবে। এরপর অভয়মিত্র মহা শ্মশানে তাঁর শেষকৃত্য অনুষ্ঠিত হবে।
প্রসঙ্গত, অশোক সেনগুপ্তের জন্ম বোয়ালখালীর খিতাপচর গ্রামে ১৯৪৯ সালে। মা মৃণালিনা সেনগুপ্তা ও পিতা যতীন্দ্রলাল সেনগুপ্ত। ১৩ বছর বয়সে সঙ্গীত জীবনের প্রারম্ভ থেকে ৬৯ এর উত্তপ্ত রাজপথ থেকে শুরু করে স্বাধীন বাংলাদেশে স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে স্বৈরাচারের উদ্ধত রাইফেলকে পরোয়া না করে রাজপথে, গ্রামে-গঞ্জে গণসংগীত নিয়ে সাহসী ভূমিকা রাখেন অশোক সেনগুপ্ত। বেতারে আধুনিক গানে এবং বিটিভিতে নজরুল সংগীতে প্রথম শ্রেণির শিল্পী হিসেবে তালিকাভুক্ত ছিলেন তিনি এবং বেতারে ২০ বছরেরও অধিক সময় ধরে সঙ্গীত পরিচালক হিসেবে অন্তর্ভুক্ত ছিলেন অশোক সেনগুপ্ত।
অশোক সেনগুপ্ত এ পর্যন্ত ৪০০ এরও অধিক গণসংগীত রচনা করেছেন। দিয়েছেন সুর, গেয়েছেনও। নিজের লেখা প্রায় শতাধিক আধুনিক ও ধর্মীয় গানের ¯্রষ্টা তিনি।-বিজ্ঞপ্তি

Share