নিজস্ব প্রতিবেদক

গাজী মো. শাহজাহান জুয়েরেল আয়ের উৎস হচ্ছে বাড়ি, এপার্টমেন্ট, দোকান ভাড়া। এছাড়াও সঞ্চয়ী আমানতের সুদ হিসেবেও আয় আসে। বছরে বাড়ি, এপার্টমেন্ট, দোকানভাড়া থেকে আয় করে ৬৭ লাখ ৮১ হাজার ৭৮১ টাকা। সঞ্চয়ী আমানতের সুদ পান ৩৯ হাজার ৪১৪ টাকা। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনী হলফনামায় এ তথ্য দিয়েছেন তিনি।
দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক গাজী মোহাম্মদ শাহজাহান জুয়েল আগামী নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী হতে যাচ্ছেন। নির্বাচন কমিশনে দাখিল করা হলফনামায় এ তথ্য দিয়েছেন তিনি। ২০০৮ সালের নির্বাচনে দেওয়া হলফনামায়ও বাড়ি, এপার্টমেন্ট, দোকান ভাড়া থেকে আয়ের উৎস উল্লেখ করেছিলেন। নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এই খাত থেকে তাঁর আয় ছিল এক লাখ ৬৩ হাজার ৬৬০ টাকা। ১০ বছরে তাঁর আয় বেড়েছে ৪১ দশমিক ৬৮ গুণ।
নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অস্থাবর সম্পত্তির আর্থিক পরিমাণ উল্লেখ করেছিলেন ৭২ লাখ ৩৮ হাজার ৯৫০ টাকা। আর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দেখিয়েছেন ৪৪ লাখ ৭৪ হাজার ৮৪৩ টাকা। ১০ বছরে অস্থাবর সম্পত্তির আর্থিক পরিমাণ করেছেন প্রায় দেড় গুণ। তবে স্ত্রী ও নির্ভরশীলদের সম্পদ বেড়েছে।
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে নির্বাচন কমিশনে দায়ের করা হলফনামায় গাজী মোহাম্মদ শাহজাহান জুয়েলের অস্থাবর সম্পদের মধ্যে নিজের নামে নগদ টাকা আছে দুই লাখ ২১ হাজার ৭৪ টাকা। নির্ভরশীলদের মধ্যে স্ত্রীর নামে সাত লাখ চার হাজার টাকা। ছেলে গাজী মো. সাদমান সিজানের নামে আছে ১০ লাখ ২৬ হাজার টাকা। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে নিজ নামে জমা আছে এক লাখ ২৫ হাজার ৬০৩টাকা। বাস, ট্রাক, মোটরগাড়ির মধ্যে ২২ লাখ ৫০ হাজার টাকা দামের একটি কেয়া জিপ রয়েছে। নিজ নামে স্বর্ণালঙ্কার আছে ২৫ ভরি। যার আর্থিক মূল্য (১৯৯৫ সালের হিসাবে) ২০ হাজার টাকা। স্ত্রীর নামে ৫০ ভরি ও নির্ভরশীলদের নামে আছে ৩০ ভরি। যার আর্থিক মূল্য উল্লেখ করা হয়নি। আসবাবপত্র নিজ নামে ১৫ হাজার টাকার। বাড়ি ভাড়া বাবদ নিজের আয় এক লাখ ১৩ হাজার ১৬৬ টাকা।
স্থাবর সম্পদের মধ্যে শাহজাহান জুয়েলের ১৭ শতক কৃষিজমি আছে যার আর্থিক মূল্য ১৩ লাখ ১৮ হাজার একশ টাকা। ঢাকায় নিজের নামে দুটি অকৃষি জমি রয়েছে। যার আর্থিক মূল্য এক কোটি ২০ লাখ ৩২ হাজার টাকা। আবাসিক ও বাণিজ্যিক দালানের মধ্যে চট্টগ্রামে ছয় কোটি ৬৭ লাখ ৫৬ হাজার ২৬৯ টাকা দামের দুটি দালান রয়েছে। ঢাকায় তিন কোটি ৬১ লাখ ৪২ হাজার ১৯৬ টাকা দামের দুটি দালান রয়েছে। এছাড়াও ঢাকায় ৮৪ লাখ ৭৮ হাজার ৫৬৮ টাকা দামের একটি দালান নির্মাণাধীন রয়েছে। ঢাকায় থাকা নিজের নামে ২৪ লাখ টাকা দামের একটি এপার্টমেন্ট আছে।
গাজী মোহাম্মদ শাহজাহান জুয়েলের অস্থাবর সম্পত্তির পরিমাণ কমলেও বেড়েছে স্থাবর সম্পত্তির পরিমাণ। ১০ বছরে স্থাবর সম্পত্তির পরিমাণ দ্বিগুণের বেশি বেড়েছে।

Share
  • 1
    Share