ইমরান বিন ছবুর

নগরীর বায়েজিদের বাংলাবাজার ও শেরশাহ্ কলোনি এলাকায় গত সাতদিনে ৬০ শিশুসহ দুই শতাধিক লোক ডায়ারিয়ায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এলাকাবাসীর অভিযোগ, ওয়াসার পানি থেকেই এই ডায়ারিয়া হচ্ছে। গত ১৫ দিন ধরে বাংলাবাজার ও শেরশাহ্ কলোনি এলাকার ওয়াসার পানি ময়লা ও দুর্গন্ধ। ওয়াসার একটি টিম গতকাল মঙ্গলবার আক্রান্ত এলাকা পরিদর্শন করেছে।
বাংলাবাজার ও শেরশাহ্ কলোনি এলাকার বাসিন্দাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, গত এক সপ্তাহ যাবত ডায়ারিয়ায় দুই শতাধিক লোক আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের মধ্যে অধিকাংশ বায়েজিদের মেরিন সিটি মেডিকলে কলেজ ও হাসপাতাল এবং সাউদার্ন মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।
এ দুটি হাসপাতালে সরেজমিনে গিয়ে ডাক্তারদের সাথে কথা বলে জানা যায়, দুই হাসপাতালে ডায়ারিয়ায় আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছেন মোট ২০৩ জন। তার মধ্যে সাউদার্ন মেডিকেলে ৫০ জন শিশুসহ মোট ভর্তি হয়েছেন ১৬৩ জন। আর মেরিন সিটি হাসপাতালে ১০ শিশুসহ ৪০ জন ভর্তি হয়েছেন।
এ ব্যাপারে ওয়াসার প্রধান প্রকৌশলী এয়াকুব মোহাম্মদ সিরাজউদ্দৌল্লাহ’র সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ওয়াসার পানিতে ময়লা বা দুর্গন্ধ আছে, এমন অভিযোগ পাওয়ার সাথে সাথে বুধবার বিকেলে ওয়াসার কর্মকর্তারা এলাকায় গিয়ে তদন্ত শুরু করেছেন। ওয়াসা কোনো অভিযোগ পেলে সাথে সাথে কাজ শুরু করে দেয়। পাইপে কোনো লিকেজ হয়েছে কিনা তা খুঁজে বের করা হবে। তাছাড়া, বায়েজিদের বাংলাবাজার এবং শেরশাহ্ এলাকায় অনেকেই নালার ওপর ঘরবাড়ি নির্মাণ করায় বিভিন্ন সমস্যা হচ্ছে।
বাংলাবাজার এবং শেরশাহ্ কলোনি এলাকায় ডায়ারিয়ায় আক্রান্তের খবর জানা আছে কিনা জানতে চাইলে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সেলিম আক্তার চৌধুরী জানান, তিনি এ ব্যাপারে এখনো কোনো কিছু জানেন না। সকালে এ ব্যাপারে খোঁজ নিয়ে দেখবেন।
শেরশাহ কলোনির ফকির পাড়ার বাসিন্দা মো. কফিল উদ্দিন জনি জানান, ‘প্রায় সাত দিন ধরে বাংলা বাজার ও শেরশাহ কলোনি এলাকার মানুষ হঠাৎ করে ডায়ারিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছে। শিশুদের পাশাপাশি বড়রাও এই রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। বায়েজিদের মেরিন সিটি ও সাউদার্ন হাসপাতালে গত সাতদিনে অনেক রোগী ভর্তি হয়েছেন।’
তিনি আরো জানান, প্রায় ১৫ দিন যাবত এলাকার ওয়াসার পানিতে বিভিন্ন ময়লা দেখা দিয়েছে এবং সেই সাথে প্রচুর দুর্গন্ধ বের হচ্ছে। আমরা এলাকাবাসী মিলে কয়েকবার ওয়াসা কর্তৃপক্ষকে মৌখিক অভিযোগ করেছি। গত ২ ডিসেম্বর এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে লিখিত অভিযোগসহ পানির নমুনা দিয়ে এসেছি। ওয়াসা বিষয়টি দেখবে বলে এতদিন আসেনি। গতকাল বুধবার ওয়াসার লোক এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে পানির নমুনা নিয়ে গেছে।’
গতকাল মঙ্গলবার মেরিন সিটি মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডের বেডে শুয়ে থাকতে দেখা যায় কয়েকজন শিশুকে। কথা হয় বাংলা বাজার থেকে আসা অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র সাজ্জাদ হোসেন ও তার মায়ের সাথে। রোগীর মা শাহনাজ বেগম জানান, গত শনিবার হঠাৎ করে ছেলের ডায়ারিয়া শুরু হয়, যা চরম পর্যায়ে গেলে রাত ২টায় হাসপাতালে ভর্তি করাই ছেলেকে।’
শাহনাজ বেগম আরো জানান, আমাদের এলাকায় (বাংলা বাজার) আরো অনেকেই ডায়ারিয়ায় আক্রান্ত হয়েছে। গত শুক্রবার এই হাসপাতালে ডায়ারিয়ায় আক্রান্ত আমার এক প্রতিবেশিকে দেখে যাই। তার পরদিন আমার ছেলেকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
সাউদার্ন মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের অধ্যক্ষ এবং মেডিসিন বিভাগের প্রধান ডা. জয়াব্রত দাশের সাথে কথা হলে তিনি জানান, ‘আমরা প্রথমে এটাকে রোটা ভাইরাল বলে ধারণা করছি। এটি মূলত পানিবাহিত রোগ। প্রথমে যারা ভর্তি হয়েছে তারা খুব খারাপ অবস্থায় এসেছিল। প্রথমদিকে শিশুরা আক্রান্ত হয়েছে, এরপর বয়স্করা আক্রন্ত হয়েছে। এখন দেখছি নারীরাও আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে। আমরা সেম্পল কালেক্ট করেছি। সেম্পলগুলো নিজ উদ্যোগে কালচার করে দেখার চেষ্টা করছি মূল ঘটনা কী। এরজন্য ৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত সময় লাগবে।’

Share
  • 13
    Shares