ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : সাংবাদিক জামাল খাসোগির হত্যাকা- নিয়ে মার্কিন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ-র ব্রিফিং শোনার পর ওই ঘটনার জন্য সৌদি আরবের যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানকে দায় দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের জ্যেষ্ঠ সিনেটররা। এ বিষয়ে আগের চেয়েও বেশি নিশ্চিত হয়েছেন বলে মঙ্গলবার জানিয়েছেন তারা। খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্সের।
সিআইএ পরিচালক জিনা হাসপেলের সঙ্গে বৈঠকের পর এক সংবাদ সম্মেলনে রিপাবলিকান সিনেটর লিন্ডসে গ্রাহাম বলেছেন, ‘এই কাজটি এমবিএসের (মোহাম্মদ বিন সালমান) কমান্ড ও তার অধীনে থাকা লোকজনের পরিকল্পনায় সংঘটিত হয়েছে, এই সিদ্ধান্তে না আসার জন্য আপনাকে ইচ্ছাকৃতভাবে অন্ধ হয়ে থাকতে হবে।’
খাসোগির ওপর ভয়াবহ হামলা সম্পর্কে লিন্ডসে গ্রাহাম বলেন, জালাল খাসোগি হত্যার সঙ্গে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান জড়িতি এটা আমি নিশ্চিত।’ সাউথ ক্যারোলিনার এই রিপাবলিকান সৌদি যুবরাজকে ‘ধ্বংসাত্মক’, ‘পাগল’ এবং ‘বিপজ্জনক’ বলে বর্ণনা করেছেন।
যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের নিন্দা করতে ট্রাম্প প্রশাসনের ওপর চাপ সৃষ্টির উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, হয়তো অভিযুক্ত করার মতো কোনো ‘ধূমায়িত বন্দুক’ সেখানে ছিল না কিন্তু ‘ধূমায়িত করাত’ তো ছিল।
এ মন্তব্যের মাধ্যমে গ্রাহাম একটি হাড় কাটার করাতের দিকে ইঙ্গিত করেছেন, যেটি খাসোগির মৃতদেহ টুকরা টুকরা করতে ব্যবহার করা হয়েছিল বলে জানিয়েছেন তদন্তকারীরা।
খাসোগি হত্যা ১১ জনকে অভিযুক্ত করেছে সৌদি। তারা কেউই যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান এই হত্যাকা-ের সঙ্গে জড়িত তা স্বীকার করেনি।
এ পর্যন্ত তাদের সবচেয়ে কঠোর কিছু অভিযোগ তুলে ধরে, রিপাবলিকান ও ডেমোক্র্যাট, উভয় দলের সিনেটরা জানিয়েছেন, তারা এখনো এমন একটি প্রস্তাব পাস করতে চান যাতে ‘যুক্তরাষ্ট্র খাসোগি হত্যার নিন্দা করে’ সৌদি আরবকে একটি বার্তা দিতে পারে। কিন্তু কোন প্রক্রিয়ায় এটি করা হবে তা নিয়ে পরিষ্কারভাবে বিভক্ত হয়ে পড়েছেন তারা।

Share