পূর্বকোণ স্পোর্টস ডেস্ক

মাশরাফি মুর্তজা জাতীয় দলের অধিনায়ক। কেন তিনি দেশের মাটিতে বিসিবি একাদশের হয়ে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবেন? অধিনায়কত্বও করবেন? সাধারণত. জাতীয় দলের অধিনায়ক কোন টেস্ট খেলুড়ে দেশের সাথে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেন না। ক্রিকেটে অতিথি দল বিদেশ সফরে মূল ম্যাচের (টেস্ট আর ওয়ানডে) আগে গা গরমের ম্যাচ খেলে নিয়মিতই। সেখানে সাধারণত জাতীয় দলের বাইরে থাকা সম্ভাবনাময় ক্রিকেটারদেরই প্রাধান্য থাকে বেশি। অনেক সময় আবার জাতীয় দলের কাউকে কাউকেও রাখা হয় প্রস্তুতি ম্যাচে, যাতে তারা নিজেদের ঝালাই করে নিতে পারেন। তবে জাতীয় দলের ওয়ানডে অধিনায়ক কোন সফরকারী দলের সাথে বোর্ড একাদশের হয়ে ওয়ার্মআপ ম্যাচ খেলেন, এমন নজির খুব কম। খুঁজে পাওয়াই কঠিন। আজ বিকেএসপিতে ঘটছে সেই বিরল ঘটনাই। জাতীয় দলের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা বিকেএসপিতে বিসিবি একাদশের অধিনায়ক হিসেবে সফরকারি ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে মাঠে নামতে যাচ্ছেন। প্রথমে এ ম্যাচ হওয়া কথা ছিল ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে। কিন্তু মাঠ আন্তর্জাতিক ম্যাচ উপযোগি না হওয়ায় প্রস্তুতি ম্যাচটি ফতুল্লা থেকে বিকেএসপিতে স্থানান্তর করা হয়। ফতুল্লার প্র্যাকটিস ম্যাচ বিকেএসপিতে, যেহেতু তিনি অন্য ফরম্যাট খেলেন না, তাই ম্যাচ প্র্যাকটিসের জন্য এ ম্যাচে ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফিকে রাখা। সঙ্গে ইনজুরিমুক্ত তামিম ইকবালও থাকছেন বিসিবি একাদশে। খালি চোখে এটাই মূল ঘটনা। কিন্তু আসলে কি তাই? নাহ মোটেই তা নয়। কেউ কেউ হয়ত বলবেন, এটা নিছকই কাকতালীয়! আসলে তা নয়। মাশরাফির ক্যারিয়ারের উত্থানের সাথে জড়িয়ে আছে বিকেএসপি। তাই বিদায় বেলায় ক্যারিয়ার সায়াহ্নে আবার সেই বিকেএসপিতে ফেরা মাশরাফি বিন মর্তুজার। আঠারো বছর আগে যে বিকেএসপিতে সূচিত হয়েছিল ক্রিকেটার মাশরাফির অগ্রযাত্রা, ৩৫ বছরে দ্বারপ্রান্তে দাঁড়িয়ে বিদায়ের প্রহর গোনা মাশরাফি ঘুরেফিরে সেই বিকেএসপিতেই! বিসিবি একাদশের পক্ষে খেলতে নামবেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের কান্ডারি মাশরাফি। হয়তো এ মাঠে এটাই তার শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ। ২০১৯ বিশ্বকাপের পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানাতে পারেন ম্যাশ। তারপর হয়তো কয়েক মৌসুম ক্লাব ক্রিকেট এবং ঘরোয়া ক্রিকেট খেলবেন। যেহেতু বিকেএসপি ক্লাব ক্রিকেটের নিয়মিত ভেন্যু, তাই ঢাকা লীগ খেলতে মাশরাফি হয়ত আগামিতেও যাবেন সেখানে। বল হাতে আগুন ঝরাবেন, ব্যাটেও তান্ডব চালাবেন। কিন্তু জাতীয় পর্যায়ের কোন দলের লাল-সবুজ জার্সি গায়ে বিসিবির লোগো চাপিয়ে সম্ভবত আর খেলা হবে না। সে সম্ভাবনা প্রায় শূন্যের কোঠায়। ২০০১ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি, ক্যালেন্ডারের পাতা উল্টে হিসেব কষলে ১৭ বছর ১০ মাস আগের কথা। মাশরাফি বিন মর্তুজাকে দেশের ক্রিকেট অনুরাগীরা প্রথম চিনেছিল সেদিন। আজকের সফল, আলোচিত ও নন্দিত ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মর্তুজা এই বিকেএসপি থেকেই প্রথম পাদপ্রদীপের আলোয় উঠে এসেছিলেন।

Share