হারুনুর রশিদ ছিদ্দিকী, পটিয়া

 

 

কর্ণফুলী উপজেলার জুলধা ডাঙ্গারচর প্রধান সড়ক একটু বৃষ্টিতেই কাদা পানিতে সয়লাভ হয়ে যায়। গত ১৫ বছরেও সড়কটির কাজ সম্পন্ন না হওয়ায় ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ সাধারণ মানুষকে। তাই দ্রুত সড়কটির সংস্কারকাজ সম্পন্ন করতে এলাকাবাসী কর্ণফুলী উপজেলা প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করেন। জানা যায়, কর্ণফুলী উপজেলার জুলধা পাইপের গোড়া থেকে ডাঙ্গারচর ঘাট পর্যন্ত কয়েক কিলোমিটার সড়ক দিয়ে প্রতিদিন বিভিন্ন পেশার মানুষ, স্কুল-কলেজ পড়–য়া ছাত্রছাত্রীদের যাতায়াত করে। এছাড়াও এটি ডাঙ্গারচর ও দক্ষিণ জুলধা গ্রামের মানুষের উপজেলায় আসার একমাত্র আঞ্চলিক সড়ক।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সড়কটি সর্বশেষ ২০০২ সালে সংস্কার হয়েছিলো। তারপর থেকে সড়কটি সংস্কার না হওয়ায় কয়েক গ্রামের মানুষকে জুলধা পাইপের গোড়া থেকে ডাঙ্গারচর যাওয়ার জন্য ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে প্রতিনিয়ত। মহিলা ইউপি সদস্য রতœা দত্ত বলেন, ২০০২ সালে সড়কে ইট দিয়ে কার্পেটিংয়ের কাজ করেছিলো। তারপর আর কাজ করা হয়নি। বর্ষাকালে কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে সড়কটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। সড়কটি এখন ব্যবহার অনুপযোগী। তাই দ্রুত সড়কটি সংস্কার হলে এলাকার মানুষের কষ্ট দূর হবে।
স্থানীয় জুলধা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিক আহমেদ বলেন, এ সড়কে দেড় কিলোমিটার অংশের টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষ হওয়ার পরেও সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কাজ শুরু না করায় সড়কটির এ অবস্থা হয়েছে। বাকি অংশের কাজ খুব দ্রুত শুরু করা হবে। কর্ণফুলীর অতি. দায়িত্বপ্রাপ্ত উপজেলা প্রকৌশলী বিশ্বজিৎ দত্ত বলেন, ইতিমধ্যে জুলধা ডাঙ্গারচর সড়কের প্রায় দুই কিলোমিটার সড়কের সংস্কারের জন্য প্রায় ৫০ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল।
পূর্বের ঠিকাদার কাজ অর্ধ-সমাপ্ত করে চলে যাওয়ায় পরবর্তীতে আরেকজন ঠিকাদারকে কাজ করার জন্য দেয়া হয়েছে। আশা করি খুব শীঘ্র এ সড়কের সংস্কার কাজ শেষ হবে।

Share