নিজস্ব প্রতিবেদক

বিদেশে পালিয়ে যাওয়ার সময় ঢাকার হযরত শাহ্জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে এক ইয়াবা ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। তার নাম জোবায়ের প্রকাশ রেদোয়ান। গতকাল (বৃহস্পতিবার) তাকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি প্রকাশ করে পুলিশ। ধৃত জোবায়ের নগরীর হালিশহর থেকে নগর গোয়েন্দা পুলিশের হাতে ১৩ লাখ পিস ইয়াবা উদ্ধার হওয়ার ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলার আসামি।
পুলিশ জানায়, মো. রেজওয়ান প্রকাশ রেদোয়ান প্রকাশ জুবায়ের (৫৫) নগরীর

বায়েজিদ থানাধীন মোজাফ্ফর নগর রোড নং-৩/১ এলাকার মৃত মো. সিদ্দিকের পুত্র। গত বুধবার গঐ ০১৯৭ ফ্লাইটযোগে মালয়েশিয়া পালিয়ে যাওয়ার সময় হযরত শাহজালাল আন্তজার্তিক বিমান বন্দরে ইমিগ্রেশন পুলিশের সহায়তায় তাকে নগর গোয়েন্দা (বন্দর) পুলিশ গ্রেপ্তার করে।
উল্লেখ, গত ৩ মে নগরের হালিশহরের একটি বাড়ি থেকে ১৩ লাখ পিস ইয়াবাসহ মো. হাসান ও মো. আশরাফ নামে দুই ভাইকে গ্রেপ্তার করে নগর গোয়েন্দা পুলিশের বন্দর বিভাগ। তাদের বিরুদ্ধে হালিশহর থানায় মামলা হয়। আসামিরা পরবর্তীতে জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করে তারা ইয়াবা পাচারের সাথে জড়িত। ঘটনার সাথে জড়িত অপরাপর আসামিদের নামসহ গ্রেপ্তার আসামি মো. রেজওয়ান (৫৫) এই মামলার ঘটনায় জড়িত থাকার বিষয়ে এজাহার নামীয় ধৃত আসামি আশরাফ আলী (৪৭) ও রাশেদ প্রকাশ মুন্না (৩৫) বিজ্ঞ আদালতে ১৬৪ ধারার জবানবন্দি প্রদান করে।
জিজ্ঞাসাবাদে আরো জানা যায়, ইয়াবা ট্যাবলেটগুলোর মূল হোতা রোহিঙ্গা মো. আব্দুর রহিম। রোহিঙ্গা আব্দুর রহিম ও গ্রেপ্তার আসামি রেজওয়ানের পরস্পর যোগসাজস রয়েছে। রোহিঙ্গা নাগরিক আব্দুর রহিম বিভিন্ন সময় বার্মা হতে রেজওয়ান (৫৫) সহ ইতিপূর্বে গ্রেপ্তার আসামিদের মাধ্যমে চট্টগ্রামে বিভিন্ন মাদক ব্যবসায়ীর কাছে ইয়াবা পাচার করত। বার্মার নাগরিক আব্দুর রহিমের শ্যালক ধৃত আসামি রাশেদ (৩৫) বার্মা হতে আসা ইয়াবা ট্যাবলেটসমূহ কার নিকট কী পরিমাণে পাচার করা হবে তা নির্ধারণ করত। ইয়াবা ট্যাবলেটগুলো মাদক ব্যবসায়ীদের নিকট পৌঁছানোর পর তাদের কাছ থেকে ইয়াবা বিক্রির টাকা সংগ্রহ করে অবৈধ পথে বার্মা অবস্থানকারী আব্দুর রহিমের কাছে পাচার করত রাশেদ। ঘটনার সময় জব্দকৃত ১৩ লক্ষ ইয়াবা বার্মা হতে পাচারের পর গ্রেপ্তার হওয়া আসামি আশরাফ আলীর বাসায় রেখেছিল। আসামি মো. রেজওয়ান (৫৫) ইতিপূর্বে বেশ কয়েকবার বার্মা থেকে রহিমের আনা ইয়াবা গ্রহণ করে বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে প্রেরণ করেছে এবং সে আন্তজার্তিক মাদক পাচার দলের সক্রিয় সদস্য বলে স্বীকার করে।

Share
  • 18
    Shares