নিজস্ব সংবাদদাতা, কক্সবাজার

কক্সবাজার পৌরসভার দক্ষিণ পাহাড়তলী জিয়ানগর এলাকায় ২০০ টাকার জন্য প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে মো. নবাব (৩০) নামের একব্যক্তি খুন হয়েছেন। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল (বৃহস্পতিবার) ভোরে তার মৃত্যু হয়। বর্তমানে নবাবের ছোট ভাই জাহেদও ছুরিকাঘাতে আহত হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছেন চট্টগ্রামে। নিহত নবাব জিয়ানগর এলাকার মৃত লাল মোহাম্মদ লালুর মেঝ ছেলে। তিনি পেশায় একজন রং মিস্ত্রি।
পুলিশের দাবি, আর্থিক লেনদেনজনিত কারণে বুধবার বিকেলে নিজ বাসার সামনে নবাব ও তার ভাইকে ছুরিকাঘাত করে স্থানীয় আইয়ুব নামের এক যুবক। এ ঘটনায় প্রাথমিকভাবে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ আইয়ুবের ছোট ভাই ইলিয়াস ও মা নুর বেগমকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, কিছুদিন আগে প্রতিবেশী আইয়ুব জোর করে ৬০০ টাকা নেন নবাবের ভাতিজা সোহেলের কাছ থেকে। পরে ওই টাকার জন্য আইয়ুবকে খোঁজতে থাকেন সোহেল। গত বুধবার সকালে আইয়ুবের ছোট ভাই ইলিয়াসের সাথে দেখা হয় সোহেলের।

এসময় আইয়ুব কোথায় জানতে চান এবং পাওনা ৬০০ টাকা বাবদ দুইশ’ টাকা দিয়ে দেওয়ার জন্য বলেন। ইলিয়াস বিষয়টি বড় ভাই আইয়ুবকে অবগত করেন। এতে আইয়ুব ক্ষিপ্ত হয়ে বিকাল ৩ টার দিকে সোহেলের বাসায় যান। ওখানে উভয় পক্ষে কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে সোহেলের চাচা নবাবের ভাই জাহেদকে ছুরিকাঘাত করে আইয়ুব। এসময় চিৎকার শুরু হলে এগিয়ে আসে নবাব। একই সাথে নবাবকে ছুরি মেরে পালিয়ে যায় আইয়ুব।
নবাবের ভাতিজা মো. জুয়েল বলেন, ছুরিকাঘাত অবস্থায় তাদের উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। একপর্যায়ে অবস্থার অবনতি হলে বুধবার সন্ধায় তাদের চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করে। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল (বৃহস্পতিবার) ভোরে নবাবের মৃত্যু হয়। বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন জাহেদ।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি (তদন্ত) খায়রুজ্জামান জানান, প্রাথমিকভাবে জানা গেছে আর্থিক লেনদেন জনিত কারণে ঘটনাটি ঘটেছে। হত্যাকা-ে অভিযুক্ত আইয়ুব চিহ্নিত সন্ত্রাসী। এছাড়া ইয়াবা সেবনকারীও। তাকে গ্রেপ্তারে অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ। তবে এ ঘটনায় আইয়ুবের ছোট ভাই ইলিয়াস ও মা নুর বেগমকে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।

Share
  • 87
    Shares