জ্যোতিষশাস্ত্র চর্চা ও গবেষণা মানব জীবনে জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত সুনিপুণভাবে মানবজীবনে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করার একটি মহান বিদ্যা। সব ধর্মে হাজার হাজার বছর পূর্বে এই জ্যোতিষশাস্ত্র অত্যন্ত সমাদৃত ছিল। গত ৮ নভেম্বর সকাল ১০ টার সময় ৭ নম্বর লাভলেন আনন্দ কমিউনিটি সেন্টারে বিভাগীয় শাখার সভাপতি অধ্যক্ষ এ আর আচার্য্যরে সভাপতিত্বে সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন ড. মাধবাচার্য্য। বিশেষ অতিথি ছিলেন লায়ন ডা. বরুণ কুমার আচার্য বলাই, যীশু কুমার আচার্য, মংথুই প্রু মারমা, কৃষ্ণপদ আচার্য ও তপন নয়ন আচার্য। উক্ত অনুষ্ঠানের প্রারম্ভে পবিত্র কোরান তেলাওয়াত পাঠ করেছেন সৈয়দ আতিকুর রহমান। পবিত্র শ্রীমদ্ভগবদ্গীতা পাঠ করেন স্বপন কুমার চক্রবর্তী এবং পবিত্র ত্রিপিটক পাঠ করেন মংথুই প্রু মারমা। সভায় বক্তারা বলেন, জ্যোতিষবিদ্যা প্রকৃতপক্ষে অক্ষরজ্ঞানসম্পর্কীয় কোন সাধারণ বিদ্যা নয়।
এই জ্যোতিষশাস্ত্র সামগ্রিকভাবে মানবকল্যাণে নিবেদিত, সকল জ্যোতিষীদের জ্ঞানের পরিধি প্রসারিত করার জন্য চট্টগ্রামে একটি জ্যোতিষ ইন্সটিটিউট করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। বক্তব্য রাখেন অধ্যক্ষ এ আর আচার্য, স্বপন কুমার চক্রবর্তী, অধ্যাপক নীলমণি শর্ম্মা, সলিল আচার্য, কৃষ্ণপদ আচার্য, কংকন ভট্টাচার্য, কার্ত্তিক কুমার আচার্য, বিপুল সরকার, বিপ্লব আচার্য প্রমুখ।-বিজ্ঞপ্তি

Share