নিজস্ব সংবাদদাতা, বাঁশখালী

বাঁশখালী উপজেলার পুইছড়ি ইউনিয়নের বাসিন্দা জাফর আহমদের বাড়ির উপর থেকে পল্লী বিদ্যুতের নতুন খুঁটির টাঙ্গানো সংযোগ তার সরিয়ে নেয়ার জন্য বাঁশখালী পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে আবেদন করেছেন জাফর আহমদ। আবেদনের ফলে পল্লী বিদ্যুৎ খুঁটি সরিয়ে নিতে বিদ্যুৎ অফিস তৎপর হলে পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের লাইনম্যান পরিচয় দানকারী, দালাল মোহাম্মদ মহসিন অভিযোগকারী জাফর আহমদের লবণ ব্যবসা বন্ধ করে দেয়ার হুমকি দিয়েছেন। এ নিয়ে এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, পুইছড়ি ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের প-িতকাটা গ্রামের বাসিন্দা পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের দালাল মহসিন প্রকাশ মাহমদ হোছন গ্রামের সহজ সরল ১৭০-১৮০ পরিবারের কাজ থেকে ২ বছর পূর্ব হতে খুঁটি ও নতুন বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়ার নাম করে ৪ হাজার থেকে ৫ হাজার টাকা হারে আদায় করে নেয়। গত ১ বছর পূর্বে দালাল মহসিন ঠিকাদারের যোগসাজশে খুঁটির ম্যাপ পরিবর্তন করে বসতবাড়ির উপর দিয়েসহ এলোমেলোভাবে বিদ্যুৎ খুঁটি স্থাপন করে। বিদ্যুৎ সংযোগ পাওয়ার আশায় স্থানীয় লোকজন ছনুয়া লাইনের সাথে বিদ্যুৎ সংযোগ স্থাপনের দাবি জানিয়ে আসছিলেন। কিন্তু দালাল মহসিন ঠিকাদারের যোগসাজশে বিদ্যুৎ খুঁটি কম দেখিয়ে পুইছড়ি প্রেমবাজার লাইন দিয়ে নতুন সংযোগ দেয়ার পাঁয়তারা চালিয়ে যাচ্ছে। প-িতকাটা এলাকায় একজন পল্লী বিদ্যুতের দালালের কারণে দীর্ঘদিন ধরে সংযোগ মিলেনি বলে অভিযোগ উঠেছে। ঐ দালাল নিজেকে রাজনৈতিক দলীয় পরিচয় দিয়ে বসতভিটা থেকে বিদ্যুৎ খুঁটি ও তার সরিয়ে সংযোগ প্রদানের জন্য পল্লী বিদ্যুত অফিসে অভিযোগকারী জাফর আহমদকে লবণ ব্যবসাসহ যাতায়াত বন্ধ করে দেয়ার হুমকি দিয়েছে।
পুইছড়ি ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের সদস্য জহিরুল ইসলাম বলেন, প-িতকাটা গ্রামের কিছু অংশে বিদ্যুৎ সংযোগ রয়েছে। এখনো ২ শতাধিক পরিবার বিদ্যুৎ সংযোগের আওতায় আসেনি। এলাকার লোকজন আবেদন করেছে শুনেছি। দীর্ঘদিন ধরে বিদ্যুৎ না পাওয়ার কারণ জানিনা।
পল্লী বিদ্যুতের পরিচালক জাফর আহামদ বলেন, পুইছড়ি ইউনিয়নের প-িতকাটা গ্রামে বসতবাড়ির উপর দিয়ে বিদ্যুৎ সংযোগের তার টাঙ্গানো নিয়ে অফিসে অভিযোগ এসেছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হয়েছে। অভিযোগ আসলে বসতবাড়ির উপর দিয়ে নতুন লাইন টাঙ্গানো যাবে না, লাইনটি পরিবর্তন করে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হবে।
বাঁশখালী পল্লী বিদ্যুতের ডিজিএম নাইমুল হাসান বলেন, পুইছড়ি ইউনিয়ন থেকে এক বিদ্যুৎ গ্রাহকের পটিয়া জিএম অফিসের মাধ্যমে খুঁটি ও তার সরানোর একটি অভিযোগ পাওয়া গেছে। বসতবাড়ির উপর দিয়ে যাওয়া লাইনটির ডিজাইন পরিবর্তন করেছে ঠিকাদারের লোকজন। এই লাইনে খুঁটি ও তার পরিবর্তন করা হবে। তারপর এলাকায় বিদ্যুতায়ন করা হবে। পল্লী বিদ্যুতের লাইনম্যান পরিচয় দানকারি দালাল মহসিনকে চেনেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিদ্যুৎ অফিসে এলাকা ভিত্তিক অনেক খারাপ লোক রয়েছে।

Share