পূর্বকোণ স্পোর্টস ডেস্ক

দুইবার পিছিয়ে পড়ার পর সমতায় ফিরে যোগ করা সময়ের গোলে আরামবাগ ক্রীড়া সংঘকে হারিয়ে ফেডারেশন কাপের সেমি-ফাইনালে উঠেছে আবাহনী লিমিটেড। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে গতকাল প্রথম কোয়ার্টার-ফাইনালে ৩-২ গোলে জিতে শিরোপাধারী আবাহনী। জয়ী দলের তিন গোলদাতা সানডে চিজোবা, সোহেল রানা ও কেরভেন্স ফিলস বেলফোর্ট। সপ্তম মিনিটের সুযোগ কাজে লাগিয়ে এগিয়ে যায় আরামবাগ। চিনেডু ম্যাথিউয়ের বাড়ানো বল ক্যামেরুনের পল এমিল বুক দিয়ে নামিয়ে দেওয়ার পর শাহরিয়ার বাপ্পী জোরালো শটে লক্ষ্যভেদ করেন। ২৯তম মিনিটে সমতায় ফেরে। ডান দিক দিয়ে আক্রমণে ওঠা বেলফোর্টের শট গোলরক্ষক ফেরানোর পর চিজোবার হেড ফেরান এক ডিফেন্ডার। ফিরতি শটে জাল খুঁজে নেন নাইজেরিয়ার ফরোয়ার্ড সানডে। পাঁচ মিনিট পরই আবাহনীর সমতায় ফেরার স্বস্তি উড়ে যায়। এমিলের থ্রু পাস অফসাইডের ফাঁদ ভেঙে নিয়ন্ত্রণে নেওয়া বাপ্পীকে ডি-বক্সের মধ্যে গোলরক্ষক শহীদুল আলম সোহেল ফাউল করলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। সফল স্পট কিকে আরামবাগকে ফের এগিয়ে নেন উজবেকিস্তানের ফরোয়ার্ড বোবোজনোভ ইকবালজন নরমাতোভিচ। প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে ডি বক্সের বাইরে থেকে সোহেলের বুলেট শটে মাজহারুল ইসলাম হিমেল পরাস্ত হলে সমতায় ফিরে বিরতিতে যায় আবাহনী। দ্বিতীয়ার্ধে গোলের সুযোগ কাজে লাগাতে পারছিল না আবাহনী। ৬৩তম মিনেট রায়হান হোসেনের থ্রো ইনে চিজোবা হেড দিতে ব্যর্থ হন। একটু পর দূরের পোস্টে থাকা তপু বর্মন বল জালে ঠেলতে পারেননি। অবশেষে দ্বিতীয়ার্ধের যোগ করা সময়ে বেলফোর্টের গোলে সেমি-ফাইনাল ওঠে আবাহনী। নাবীব নেওয়াজ জীবনের ফ্রি কিকে তপু ডাইভিং হেড করার পর হাইতির এই ফরোয়ার্ড টোকায় বল জালে জড়িয়ে দেন। শেষ বাঁশি বাজার পর শুরু হয় অপ্রীতিকর ঘটনা। আরামবাগের ডাগ আউট থেকে কয়েকজন গিয়ে সহকারী রেফারিদের মারতে শুরু করেন। পুলিশ দ্রুত গিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেয়।

Share