নিজস্ব প্রতিবেদক

শিক্ষার আলো ছড়াতে শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিগণ স্কুল কলেজ প্রতিষ্ঠায় নিজের জমি দান করে দেয়ার নজির সর্বত্র। কিন্তু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জমি দখলের নজির কম। সেই ধরণের একটি নজির আয়েশা মন্জু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ঘটেছে। চান্দগাঁও এলাকার মৌলভী পুকুর পাড়স্থ আয়েশা মন্জু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠ দখলের অভিযোগ পাওয়া গেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক ব্যক্তি বলেন, আমরা দেখেছি স্কুলের সামনে প্রায় তিন শতক পরিমাণ মতো জায়গাতে বিভিন্ন গাছ ও ফুলের নার্সারী ছিল। অনেক দিন ধরেই আজাদ হোসেন ওই জায়গা দখলে নেওয়ার চেষ্ঠা করে আসছিল। স্থানীয় মানুষ, শিক্ষক, শিক্ষার্থীদের বাধার মুখে দখল করতে পারেনি। গত ঈদুল আযহার বন্ধের সময় তিনি ওই জায়গাতে ভাড়া ঘর নির্মাণ করেছেন।
বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, ১৯৯৫ সালে ১০ শতক জমির উপর প্রতিষ্ঠা করা হয় বিদ্যালয়টি। একাডেমিক ভবনের বাইরে প্রায় চার শতক জমি স্কুলের মাঠ হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। কিন্তু সম্প্রতি স্থানীয় প্রবাসী এক ব্যক্তি স্কুলের মাঠ দখল করে ভাড়া ঘর নির্মাণ করেছে। এ বিষয়ে মহানগর জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা এবং চান্দগাঁও থানায় অভিযোগ করা হয়। আদালত ১৪৫ ধারা জারীর পরও আইনের তোয়াক্কা না করে স্থাপনার নির্মাণ কাজ চালিয়ে যায়।
সরেজমিন পরিদর্শনে দেখা গেছে স্কুলের সামনে যে পরিমাণ জায়গা ছিল বলে স্কুল কর্তৃপক্ষ দাবি করছেন ততটুক জায়গা নেই। পূর্বে যে গাছ ও ফুলের নার্সারী ছিল বলে জানান তাও দেখা যায়নি। অভিযোগের ভিত্তিতে আজাদ হোসেনের সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে তার মুঠোফোনটি (০১৮২০০০২০০২) বন্ধ পাওয়া যায়।
আজাদ হোসেনের ভাই তাসকির আহমেদের সাথে যোগাযোগ করে বিষয়টির সত্যতা জানতে চাইলে তিনি জানান, আমি এ বিষয়ে কিছুই জানি না। আমার ভাইয়ের সাথে আমার কোন ধরণের যোগাযোগ নেই।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা চান্দগাঁও থানার উপ-পরিদর্শক কাজল সরকার জানান, এ বিষয়ে দু’পক্ষের মধ্যে আদালতে ভূমি সংক্রান্ত বিষয়ে মামলা চলমান রয়েছে। মহানগর জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালত থেকে আইন শৃংঙ্খলা বজায় রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। আমরা দু’পক্ষের মধ্যে যেন কোন ধরনের বিশৃংঙ্খলা সৃষ্টি না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখছি।

Share
  • 1
    Share