পূর্বকোণ ডেস্ক

২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলায় মামলার রায় ঘোষণার পর নগরী ও জেলার বিভিন্নস্থানে আনন্দ মিছিল করেছে আওয়ামী লীগ, মহিলা আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও স্বেচ্ছাসেবকলীগসহ অঙ্গসংগঠন। এসব সংগঠনের সমাবেশে বক্তারা বলেছেন, বিএনপি জামাত জোট খালেদা জিয়ার পুত্র আওয়ামী লীগকে ধ্বংস করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ দলীয় নেতাকর্মিদের হত্যা করার জন্য গ্রেনেড হামলার ঘটনা ঘটিয়েছিল। এ রায়ের মাধ্যমে জাতি একটি কলংক থেকে মুক্তি পেয়েছে।
রাউজান : নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবি এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি বলেছেন, বিএনপি জামাত জোট খালেদা জিয়ার পুত্র আওয়ামী লীগকে ধ্বংস করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ দলীয় নেতাকর্মিদের হত্যা করার জন্য গ্রেনেড হামলার ঘটনা ঘটিয়েছিল। এ রায়ের মাধ্যমে জাতি একটি কলংক থেকে মুক্তি পেয়েছে। গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ের পর গতকাল বুধবার উপজেলা আওয়ামী লীগ, মহিলা আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের উদ্যোগে আনন্দ মিছিল বের করা হয়। মিছিলশেষে আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন । পৌরসভা সদরের মুন্সিরঘাটা থেকে এবিএম ফজলে করিম চৌধুরীর নেতৃত্বে শুরু হওয়া এ আনন্দ মিছিল রাঙামাটি সড়ক হয়ে জলিল নগর বাস স্টেশন প্রদক্ষিণ করে পুনরায় মুন্সিরঘাটায় সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়।
এতে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আ.লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কামাল উদ্দিন আহমেদ, যুগ্ন সম্পাদক বশির উদ্দিন খান, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি জমির উদ্দিন পারভেজ, আওয়ামী লীগ নেতা আনোয়ারুল ইসলাম, কাজী মো. ইকবাল, আলমগীর আলী, জসিম উদ্দিন চৌধুরী, চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল ইসলাম, সরোয়ার্দী সিকদার, আবদুর রহমান চৌধুরী, বিএম জসিম উদ্দিন হিরু, প্রিয়তোষ চৌধুরী, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আবু জাফর চৌধুরী, শাহ আলম চৌধুরী, নজরুল ইসলাম চৌধুরী, নুরুল ইসলাম চৌধুরী শাহজান, কাউন্সিলর এডভোকেট সমীর দাশগুপ্ত, সাইফুল ইসলাম চৌধুরী রানা, ইফতেহার হোসেন দিলু, ইরফান আহমদ চৌধুরী, কামরুল হাসান বাহাদুর, স্বপন দাশগুপ্ত, মুক্তিযোদ্ধা ইউসুফ খান চৌধুরী, জসিম উদ্দিন, জানে আলম জনি, আজাদ হোসেন, এডভোকেট দীলিপ কুমার চৌধুরী, শওকত হাসান, মোসলেম উদ্দিন চৌধুরী, যুবলীগ নেতা সারজু মো. নাছের, সুমন দে, আহসান হাবিব চৌধুরী হাসান, জাহাঙ্গীর আলম, আজিজ উদ্দিন ইমু, সৈয়দ হোসেন কোম্পানী, বাবর উদ্দিন প্রমুখ।
কর্ণফুলী উপজেলা আওয়ামী লীগ : ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় রায়কে কেন্দ্র করে গতকাল বুধবার সকাল থেকে কর্ণফুলী মইজ্জ্যারটেক আখতারুজ্জামান বাবু চত্ত্বরে অবস্থান নেয় কর্ণফুলী উপজেলা আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, ছাত্রলীগ ও মহিলা লীগের নেতাকর্মীরা। উপজেলা আ.লীগের সভাপতি সৈয়দ জামাল আহমদের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক হায়দার আলী রণি সঞ্চালনায় অবস্থান কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন দক্ষিণ জেলা আ.লীগের সদস্য সিদ্দিক আহমদ বি.কম, দক্ষিণ জেলা শ্রমিকলীগের সেক্রেটারি ইঞ্জিনিয়ার ইসলাম আহমেদ, উপজেলা আ.লীগের সাবেক সভাপতি মোহাম্মদ আলী, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান দিদারুল ইসলাম চৌধুরী, চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম, জুলধা আ.লীগের সভাপতি আমির আহমদ, রফিক আহমদ চেয়ারম্যান, বড়উঠান আ.লীগের সভাপতি আমজাদ হোসেন, সেক্রেটারি আবদুল মান্নান খান, আবুল কালাম, কামাল আহমদ রাজা, সাইফুদ্দিন টিপু, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি সোলায়মান তালুকদার, জেলা যুবলীগ নেতা আবদুল মান্নান, নাজিম উদ্দীন হায়দার, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি শাহেদুর রহমান শাহেদ, উপজেলা যুবলীগ সহ-সভাপতি মার্শাল মনির, মো. শহিদুল্লাহ, যুবলীগ নেতা মো. সেলিম, দেবরাজ রতন, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আবদুল মালেক রানা, মো. করিম, জাহাঙ্গীর, শহিদুল ইসলাম প্রমুখ।
নগর যুবলীগের আওতাধীন থানা ও ওয়ার্ডসমূহ: যুবলীগের কেন্দ্রীয় সদস্য দেবাশীষ পাল দেবু বলেছেন, এই বীভৎস হত্যার ন্যায় বিচার পাইনি। ২৪ জনের মৃত্যু ও শতাধিক হতাহতের জন্য দায়ী মাত্র ১৯ জনের ফাঁসি অগ্রহণযোগ্য। তিনি গতকাল দুপুরে ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলার রায়কে কেন্দ্র করে নাশকতা রোধে চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের আওতাধীন থানা ও ওয়ার্ডসমূহের অবস্থান কর্মসূচিতে এ কথা বলেন। মহানগর যুবলীগ নেতা আনিফুর রহমান লিটুর সভাপতিত্বে এবং যুবলীগ নেতা রায়হান নেওয়াজ সজীবের সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন যুবলীগ নেতা নূরন্নবী পারভেজ, মো. ইউনুছ, মারুফ আহমেদ সিদ্দিকী, ইরশাদ ইফতেখার মামুন, রাশেদ চৌধুরী, জাহেদ হোসেন খোকন, আমিনুল ইসলাম, মোহাম্মদ কায়সার, ফারুক হোসেন সুমন, ইয়াসিন আরাফাত, মো. শাহজাহান, মো. কাজী আরিফ, বশির আহমেদ, জুবায়ের হোসেন অভি, সাজেবুল ইসলাম সজীব, আলী আকবর জনি, মনিরুল হক প্রমুখ।
সীতাকু- : নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, গ্রেনেড হামলার রায়কে কেন্দ্র করে সীতাকু-ে নাশকতা প্রতিরোধে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে আ.লীগ ও অঙ্গ সংগঠন। গতকাল সকাল থেকে নিজ নিজ অনুসারী নেতাকর্মীদের উপজেলার ১০টি ইউনিয়নেই পৃথক পথসভা, বিক্ষোভ মিছিল করেছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য দিদারুল আলম, উপজেলা চেয়ারম্যান এস.এম আল মামুন ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান থানা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল বাকের ভূঁইয়া। এসব সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন পৌরমেয়র বদিউল আলম, আ ম ম দিলশাদ, চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম নিজামী, রেহান উদ্দিন রেহান, ছাদাকাত উল্লাহ, মো. শওকত আলী জাহাঙ্গীর, মোর্শেদুল আলম চৌধুরী ।
পটিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগ : রায় ঘোষণাকে কেন্দ্র করে যেকোন অপ্রীতিকর ঘটনা দমন করতে পটিয়ার রাজপথে ছিল আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ অঙ্গসংগঠনসমুহের নেতা-কর্মীরা। শান্তির হাট চত্বরে অবস্থান কর্মসুচিতে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আ.লীগের সাবেক সহ-সভাপতি আজিমুল হক, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক এম.এজাজ চৌধুরী, আমিনুল ইসলাম টিপু, এডভোকেট হোসাইন রানা, আবদুল্লাহ আল হারুন, মোহাম্মদ হারুন, রবিউল আলী, মোহাম্মদ জাফর, বদিউল আলম তুষার, উপজেলা যুবলীগ সভাপতি বেলাল উদ্দিন, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি কোরবান আলী, যুবলীগ নেতা এম বেলাল চৌধুরী, শফর আলী চৌধুরী, মোহাম্মদ নুরু, বোরহান উদ্দিন, মোরশেদ মেম্বার, শাহাদাত হোসেন সবুজ, মাহবুবুল হক চৌধুরী, তাজুল ইসলাম, আমজাদ হোসেন প্রমুখ।
উপজেলাস্থ দলীয় কার্যালয়ের সামনে অবস্থান কর্মসুচিতে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক পৌরমেয়র অধ্যাপক হারুনুর রশীদ, পৌরসভা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর আলম, উপজেলা আ.লীগ নেতা আবদুল খালেক, ফজলুল হক আল্লাই, এম.এন নাছির, নাজিম উদ্দিন পারভেজ, কাউন্সিলর শেখ সাইফুল ইসলাম, পৌরসভা যুবলীগ সভাপতি নুর আলম ছিদ্দিক, সাধারন সম্পাদক রফিকুল আলম, উপজেলা যুবলীগ নেতা আবুল হাসনাত ফয়সাল, মো.দিদার,ফোরকান,ওয়াসিম,আমীর খসরু, ঝন্টু, মুন্না,রফিক, মুবিন, আওয়াল, নজরুল, জেলা ছাত্রলীগ সহ সভাপতি তারেকুর রহমান তারেক, দপ্তর সম্পাদক আবু তৈয়ব সোহেল, পৌরসভা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ইকবালুর রহমান ওপেল,উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক সাজ্জাতুল বশর, কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি নাজমুল সাকের ছিদ্দিকী প্রমুখ।কমলমুন্সির হাটে অবস্থান কর্মসুচিতে উপস্থিত ছিলেন কচুয়াই ইউপি চেয়ারম্যান ইনজামুল হক জসিম, উপজেলা যুবলীগের সহ সভাপতি শাহজাহান চৌধুরী, প্রচার সম্পাদক মো.এনামুল হক মজুমদার, সাবেক যুগ্ন সম্পাদক নাছির উদ্দিন, সদস্য ফিরোজ, ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি শেখ এরশাদ, সধারন সম্পাদক দিদার যুবলীগ নেতা পাবেল কাদের প্রমুখ।
আনোয়ারা : নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার রায়কে স্বাগত জানিয়ে আনোয়ারায় আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে আনন্দ মিছিল, অবস্থান কর্মসূচি ও মিষ্টি বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল বুধবার সকাল থেকে আনোয়ারা উপজেলার ১১টি ইউনিয়নে ১৭টি স্পটে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা অবস্থান নেন। খন্ড খন্ড মিছিল ও সমাবেশ করে। আনোয়ারা উপজেলার চাতরী চৌমুহনীতে উপজেলা চেয়ারম্যান তৌহিদুল হকের নেতৃত্বে আনন্দ মিছিল বের করা হয়। দুপুরে আনোয়ারা উপজেলা চেয়ারম্যান সমিতির সভাপতি চেয়ারম্যান মামুনুর রশিদ চৌধুরী আশরাফের সভাপতিত্বে অবস্থান কর্মসূচিতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা চেয়ারম্যান তৌহিদুল হক চৌধুরী । একই সময়ে আনোয়ারা সদরে উপজেলা আ.লীগের সভাপতি অধ্যাপক এম.এ মান্নান চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক এম. এ মালেকের নেতৃত্বে রায় ঘোষণার পর আনন্দ মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি আনোয়ারা সদরের স্টেশন রোডসহ বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে আনোয়ারা সরকারি কলেজে গিয়ে শেষ হয়।
চন্দনাইশ : নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, গ্রেনেড হামলার রায় প্রকাশিত হওয়ার পর পর চন্দনাইশে বিভিন্ন এলাকায় মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। গতকাল ১০ অক্টোবর গ্রেনেড হামলার রায় ঘোষণার হওয়ার পর চন্দনাইশ উপজেলা, পৌরসভা, বিভিন্ন ইউনিয়ন আ.লীগ পৃথক মিছিল ও সমাবেশ করেছে । এসকল সমাবেশে বক্তব্য রাখেন স্থানীয় সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম চৌধুরী, উপজেলা আ.লীগের সভাপতি মো. জাহিদুল ইসলাম জাহাঙ্গীর, দক্ষিণ জেলা আ.লীগের সহ-সভাপতি চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান, উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুল জব্বার চৌধুরী।
রায় প্রকাশের পর থেকে বিকাল পর্যন্ত বিজিসি ট্রাস্ট, গাছবাড়ীয়া পুরাতন কলেজ গেট, দক্ষিণ গাছবাড়ীয়া মক্কা পেট্রোল পাম্প, দেওয়ানহাট মোড়, দোহাজারী সদর, চন্দনাইশ পৌরসভা, সাতঘাটিয়া পুকুর পাড়সহ বিভিন্ন স্পটে সমাবেশ ও মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।
রাঙ্গুনিয়া : নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, রায় ঘোষণার পর রাঙ্গুনিয়া আওয়ামী পরিবারের ব্যানারে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় তাৎক্ষণিক আনন্দ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। ইছাখালী সদরে অনুষ্ঠিত আনন্দ মিছিলটি কাপ্তাই সড়ক প্রদক্ষিণ করে শেষ হয়। মিছিলে অংশ নেন রাঙ্গুনিয়া পৌরসভার মেয়র ও উত্তর জেলা আ.লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মো. শাহজাহান সিকদার, উপজেলা আ.লীগ সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) ইঞ্জিনিয়ার সামশুল আলম তালুকদার, সাংগঠনিক সম্পাদক আকতার হোসেন খাঁন, সদস্য এমরুল করিম রাশেদ, পৌরসভা আওয়ামীলীগ সভাপতি মাস্টার আসলাম খাঁন, সাধারণ সম্পাদক ও পৌরসভার কাউন্সিলর মোহাম্মদ সেলিম, উপজেলা যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মো. ইউনুচ, সিনিয়র সহসভাপতি বি কে লিটন চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক নাছির উদ্দিন আহম্মেদ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি নাছির উদ্দিন রিয়াজ, সাধারণ সম্পাদক দিদারুল আলম, উত্তরজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক হালিম তালুকদার, ছাত্রলীগ নেতা ইউসুফ রাজু, রাসেল রাসু প্রমুখ।
বোয়ালখালী : নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, ২১আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করে মিষ্টি বিতরণ করেছে বোয়ালখালী পৌরসভা আওয়ামী লীগ। গতকাল (বুধবার) দুপুরে রায় ঘোষণার পর উপজেলা পরিষদ চত্বরে নেতাকর্মীদের মাঝে এ মিষ্টি বিতরণ করা হয়। পৌরসভা আ.লীগের আহবায়ক জহুরুল ইসলাম জহুরের নেতৃত্বে মিষ্টি বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন জেলা যুবলীগ নেতা মো. আজগর, উপজেলা আ.লীগ নেতা মোশারফ হোসেন,উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবদুল মোনাফ মহিন, আবদুল ছোবান, মো.ইব্রাহিম, দেলওয়ার হোসেন, আবুল হোসেন, মো.সাইদুল, আবদুর রহিম প্রমুখ।
বাঁশখালী : নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় ঘোষণায় বাঁশখালীতে আ.লীগ,যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও মহিলা আ.লীগের উদ্যোগে বিভিন্নস্থানে গতকাল বুধবার সকাল ও দুপুরে আনন্দ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা সদর, বৈলছড়ি, চেচুরিয়া, চৌমুহনী, চাম্বল বাজার, গুনাগরী চৌমুহনী, নাপোড়া বাজার, প্রেম বাজার, পুকুরিয়া, চানপুরসহ বিভিন্ন স্থানে উৎসাহ উদ্দীপনায় দলীয় নেতা কর্মীরা মিছিল ও সমাবেশ করেন।
উপজেলা সদরে মিছিল ও সমাবেশের নেতৃত্ব দেন বাঁশখালী উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল গফুর, উপজেলা আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিউদ্দিন চৌধুরী খোকা, দপ্তর সম্পাদক শ্যামল দাশ, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি চেয়ারম্যান অধ্যাপক তাজুল ইসলাম, চেয়ারম্যান রশিদ আহামদ চৌধুরী, চেয়ারম্যান আ ন ম শাহাদত আলম, চেয়ারম্যান কফিল উদ্দিন চৌধুরী, চেয়ার মুজিবুল হক চৌধুরী চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইয়াছিন, চেয়ারম্যান বদরুদ্দিন চৌধুরী, সাবেক চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক সিকদার পৌর আ.লীগের তপন দাশগুপ্ত, নীলকন্ঠ দাশ, কাউন্সিলর তপন বড়–য়া, কাউন্সিলর আবদুর রহমান, কাউন্সিলর আজগর হোসাইন, শেখ আলী মোস্তফা মিশু চৌধুরী, মহিলা আ.লীগের সভাপতি রেহানা আক্তার কাজেমী, ওলামা লীগের আক্তার হোসেন প্রমুখ।

Share