নীড়পাতা » শেষের পাতা » পাহাড়ে ফের পুলিশি অভিযান মহেশখালীতে শীর্ষ সন্ত্রাসী গ্রেপ্তার, ৩টি বন্দুক উদ্ধার

পাহাড়ে ফের পুলিশি অভিযান মহেশখালীতে শীর্ষ সন্ত্রাসী গ্রেপ্তার, ৩টি বন্দুক উদ্ধার

নিজস্ব সংবাদদাতা, মহেশখালী

মহেশখালী থানা পুলিশের দফায় দফায় অভিযানের অংশ হিসেবে আবার হোয়ানক ইউনিয়নের পুঁইছড়া গ্রামে পাহাড়ের ভিতরে
অভিযান চালিয়ে ৬ মামলার পলাতক আসামী শীর্ষ সন্ত্রাসী হোয়ানক পুইছড়া গ্রামের লাল মোহাম্মদ ফকিরের পুত্র মোহাম্মদ ইউনুছ (৫০) কে ৩টি দেশিয় তৈরী বন্দুক, ১০ রাউন্ড কার্তুজসহ গ্রেপ্তার করেছে ।
গতকাল (বুধবার) রাত ৩ টায় চলে এ অভিযান। ওই সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে সন্ত্রাসীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি বর্ষণ করে। পুলিশ আত্মরক্ষার্থে ২০ রাউন্ডের মতো গুলি বর্ষণ করে বলে পুলিশ সূত্রে জানা যায়। ইতিমধ্যে মহেশখালীতে সন্ত্রাস ও ইয়াবা বিরোধী বিশেষ অভিযানে ৬ জনের অধিক শীর্ষ সন্ত্রাসী এবং মাদক ব্যবসায়ী

পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ার পর অনেক গডফাদাররা আত্মগোপনে চলে গেছে। এছাড়া অনেকেই চলতি অভিযান থেকে রক্ষা পেতে গোপনে সটকে পড়েছে বলে নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে। পুলিশের প্রশংসনীয় অপারেশনের পর পুরো উপজেলার সন্ত্রাসী ইয়াবার গডফাদাররা আতংকে দিনাতিপাত করছে।
এদিকে পুলিশের একের একের পর এক অভিযানে টিকতে না পেরে ক্রস ফায়ার আতংকে থাকা সন্ত্রাসী, অস্ত্রের কারিগর, জলদস্যুরা ও মাদকের গডফাদারদের কয়েকটি উপ-গ্রুফ স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে আইনশৃঙ্খলা বাহীনীর কাছে অস্ত্র জমা দিয়ে আত্মসমর্পণ করতে যাচ্ছে বলে নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে। তবে অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চেয়ে পুলিশের সন্ত্রাস বিরোধী অভিযান চোখে পড়ার মত মহেশখালীতে।
মহেশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ পূর্বকোণকে জানান, গতকাল (বুধবার) ভোর রাত ৩টায় মহেশখালী থানার এস,আই রাজু আহমেদ গাজীর নেতৃত্বে একদল পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলার হোয়ানক ইউনিয়নের পাহাড়ি এলাকায় এক শ্বাসরুদ্ধকর অভিযান চালিয়ে ২ টি দেশীয় তৈরী বন্দুক, ১ টি দেশীয় তৈরি এলজি ও ১০ রাউন্ড কার্তুজসহ হোয়ানক ইউনিয়নের দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী, ৬ মামলার পলাতক আসামি মো. ইউনুস নামে এক সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তার করেছে। তার বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে।

Share