ঢাকা মেট্রোকে প্রথম ইনিংসে বড় লিড এনে দেওয়া সাদমান ইসলাম ফিরেছেন আক্ষেপ নিয়ে। ১১ রানের জন্য ক্যারিয়ারের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি পাননি তিনি। জবাব দিতে নেমে দ্বিতীয় ইনিংসে দুই ওপেনারকে দ্রুত হারিয়েছে ঢাকা বিভাগ। ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে গতকাল তৃতীয় দিনের প্রায় অর্ধেক সময়ের খেলা ভেসে যায় বৃষ্টিতে। ৪ উইকেটে ৩১২ রান নিয়ে দিন শুরু করে মেট্রো। বেশিক্ষণ টিকেননি আগের দিনের অপরাজিত দুই ব্যাটসম্যান সাদমান ও মেহরাব হোসেন জুনিয়র। দিনের তৃতীয় ওভারে বাঁহাতি স্পিনার নাজমুল ইসলাম অপু ফিরিয়ে দেন সাদমানকে। আগের দিনের ১৮৬ রানের সঙ্গে তিন রান যোগ করে শুভাগত হোম চৌধুরীর হাতে ধরা পড়েন বাঁহাতি এই ওপেনার। ৩২৬ বলে খেলা তার ১৮৯ রানের ইনিংস গড়া ২১ চার ও ১ ছক্কায়। বাঁহাতি মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান মেহরাব জুনিয়রকে দ্রুত ফেরান সালাউদ্দিন শাকিল। টেলএন্ডারদের নিয়ে দলকে চারশ রানের কাছে নিয়ে নিয়ে যান জাবিদ হোসেন। এই কিপার ব্যাটসম্যান অপরাজিত থাকেন ৩২ রানে। ৬৯ রানে শেষ ৬ উইকেট হারিয়ে প্রথম ইনিংসে ৩৮৭ রানে থামে মেট্রো। ৮০ রানে ৪ উইকেট নেন বাঁহাতি পেসার সালাউদ্দিন। দুটি করে উইকেট নেন বাঁহাতি স্পিনার নাজমুল ও পেসার শাহাদাত হোসেন। তৃতীয় দিনের খেলা শেষে ঢাকা বিভাগের সংগ্রহ ২ উইকেটে ৫০। দ্বিতীয় ইনিংসে দলটি এখনও পিছিয়ে ১৩১ রানে। ১৮১ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে শুরু করা ঢাকা শুরুতেই হারায় রনি তালুকদারকে। বেশিক্ষণ টিকেননি আরেক ওপেনার আব্দুল মজিদ। সাইফ হাসান অপরাজিত ২৭ রানে। বাঁহাতি পেসার আবু হায়দারের বলে কট বিহাইন্ড হয়ে ফিরেন রনি। মজিদকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন প্রথম ইনিংসে ৭ উইকেট নেওয়া বাঁহাতি স্পিনার আরাফাত সানি। কক্সবাজারে সিলেট ও চট্টগ্রামের মধ্যে দ্বিতীয় স্তরের অন্য ম্যাচের তৃতীয় দিনের খেলাও ভেসে গেছে বৃষ্টিতে। প্রথম দিন ৯ উইকেটে ২৮২ রান করে চট্টগ্রাম। বৃষ্টির দাপটে খেলা সম্ভব হয়নি দ্বিতীয় দিনে।-বিডিনিউজ

Share