বিকাশ নাথ

সবজি উৎপাদনে অন্যান্য উপজেলার মত ব্যাপক খ্যাতি রয়েছে বোয়ালখালীর। এখানকার উৎপাদিত বেগুন অন্যান্য উপজেলায়ও জনপ্রিয়। কড়লডেঙ্গা পাহাড়ের পাদদেশ সংলগ্ন কৃষকরা বেশিরভাগ জমিতে চাষ করেছেন বেগুন। পাহাড়ি এলাকায় উৎপাদিত বেগুন খেতে সুস্বাদু। পাহাড়ের সমতল জমিতে বেগুনের ভাল ফলন হয় বলে বেগুন চাষ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। উপজেলার কড়লডেঙ্গা ইউনিয়ন ছাড়াও আরো কয়েকটি ইউনিয়নে বেগুন চাষ হয়েছে। বেগুনের বাম্পার ফলনের আশায় দিন অতিবাহিত করে যাচ্ছেন কৃষকরা। আবার অনেক সজবি চাষী এক ফসলী জমিতে তিন রকমের ফসল চাষ করে এলাকার সাড়া ফেলেছেন। বেগুন চাষে খরচ কম ও স্বল্প সময়ে লাভ বেশি হওয়ায় কৃষকরাও এতে দিনদিন আগ্রহী হচ্ছেন। উপজেলার সবচেয়ে বেশি বেগুন চাষ হয় কড়লডেঙ্গা পাহাড়ি সংলগ্ন জমিতে। অল্প পুঁজিতে বেগুন চাষ করে পাহাড়ি এলাকার অনেক কৃষক আজ স্বাবলম্বী হয়েছেন। বেগুন বিক্রী করে সাংসারিক খরচ মিটিয়ে বাড়তি টাকা সঞ্চয়ও করেছেন অনেকেই। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার পরামর্শে অনেকেই এক ফসলি জমিতে তিন ফসলি সবজি চাষ করে লাভবান হচ্ছেন। উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকার কৃষকরা বলেন, উপজেলার পাহাড়ি এলাকা ও সমতল ভূমিতে অসংখ্য তরি-তরকারি ও শাক-সবজি চাষী রয়েছেন। কৃষকরা হতাশা ব্যক্ত করে বলেন, সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তর যদি তাদের প্রতি সুদৃষ্টি দেয় তাহলে এলাকায় উৎপাদিত সবজির চাহিদা পূরণ করে দেশের অর্থনৈতিক ভিত্তি মজবুত করতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারবেন।