নীড়পাতা » সম্পাদকীয় » অনন্তপথের অভিযাত্রী মুক্তিযোদ্ধা-সাংবাদিক রইসুল হক বাহার

অনন্তপথের অভিযাত্রী মুক্তিযোদ্ধা-সাংবাদিক রইসুল হক বাহার

নিভে গেলো আকস্মিক হৃদরোগের আঘাতে আমাদের প্রিয় সহকর্মী বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা-সাংবাদিক রইসুল হক বাহার-এর জীবন প্রদীপ। মানুষের জীবনের এই এক অসহায়তা নিয়তি-নিয়ন্ত্রিত দুঃসময়ের কাল, যার নিয়ন্ত্রণ তার হাতে থাকে না। মাত্র ৬৫ বছরের একটি ক্ষুদ্র জীবনকাল। তিনি তা যাপন করে গেছেন সততার সাথে এবং আদর্শকে আশ্রয় করে। সাংবাদিকসমাজের কিংবা আপন পরিবারের কেউই ভাবতে পারেন নি যে, এমনই সহসাই তিনি সবাইকে ছেড়ে যাবেন। বাংলাদেশের মানুষের বর্তমান গড় আয়ুষ্কালের ৭৩ বছরের যাত্রাপথটুকুও তিনি পার হতে পারবেন না, এটি ছিলো আমাদের সবার কাছে অকল্পনীয়। আমাদের এককালের বহুদিনের সহকর্মীর এই ইন্তেকালের দুঃস্বপ্নে আমাদের পরাণের ভেতরের নিঃসঙ্গ ভূমি হাহাকারের লোনাঅশ্রুর বানে ভেসে যাচ্ছে। এই শোকের ভার বহন করার ক্ষমতা বাহারের বন্ধু-বান্ধব সম্পর্কিত কারোই নেই। তাঁর পরিবারের অপূরণীয় এই ক্ষতিটা পূরণ করা কোনোভাবেই সম্ভব নয়, কারো সাধ্যই নেই। মহান ¯্রষ্টা রইসুল হক বাহারের পরিবারকে শান্তি প্রদান করুন এবং এই শোক বহন করার শক্তি প্রদান করুন।
আমাদের চারপাশে দুঃসহ দিনকাল ও জীবনযাপনের নানা কর্মক্ষেত্রে সৎ, আদর্শবান ও যুক্তিবাদী মানবিক উদারচেতনার মানুষের বড়োই অভাব রয়েছে। রইসুল হক বাহারের মৃত্যুতে সেই অভাবের মাত্রাটা আরও বেড়ে গেলো। তাঁর আদি বাড়ি নোয়াখালীর কোম্পানিগঞ্জে। কর্মজীবনে তিনি ছিলেন চট্টগ্রামের বন্দরের একাউন্টন্স বিভাগের কর্মকর্তা। সেখানে সুনামের কারণে তিনি সকলের শ্রদ্ধার পাত্র হয়ে উঠেছিলেন। চাকুরীর পাশাপাশি যুক্ত ছিলেন সংবাদপত্রসমূহের সাথে। কর্মজীবন থেকে অবসরের পর সাংবাদিকতাতেই পরিপূর্ণ ভাবে নিজেকে জড়িয়ে নেন। অবশ্য, দৈনিক পূর্বকোণের আত্মপ্রকাশের পর, বন্দরের কর্মজীবনের পাশাপাশি এই পত্রিকার সাথে দীর্ঘ দেড়যুগ সংশ্লিষ্ট ছিলেন। দৈনিক সুপ্রভাত প্রকাশিত হলে সেখানে বার্তা সম্পাদকের দায়িত্ব নেন। কিছুকাল ডেইলি স্টার পত্রিকার চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান ছিলেন। সবশেষে, তিনি তাঁর দীর্ঘদিনের কর্মক্ষেত্র দৈনিক পূর্বকোণ পত্রিকায় সহযোগী সম্পাদক রূপে ফিরে আসেন।
সাংবাদিক রইসুল হক বাহার এখন আমাদের স্মৃতিতে বেঁচে থাকবেন। মানুষ তাঁর কর্মের মাঝেই বেঁচে থাকে। নীতিনিষ্ঠতার উদাহরণের মাঝে স্মরণীয় হয়ে থাকে। আমাদের মুক্তিযুদ্ধের একজন নিবেদিত সৈনিক ছিলেন রইসুল হক বাহার। চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের প্রাঙ্গণে তাঁকে ‘গার্ড অব অনার’ জানিয়ে অশ্রুভেজা নয়নে শেষ বিদায় জানালো জাতি। তাঁর মুক্তচিন্তা ও যুক্তিবাদী ভাবনা-চেতনা যদি আমাদের সকলের কাছে গ্রহণীয়-স্মরণীয় ও অনুসরণীয় হয়, তবেই তাঁর আত্মা প্রশান্তি লাভ করবে। মহান ¯্রষ্টা তাঁকে চিরশান্তিতে নিমগ্ন করুক।

Share