স্পোর্টস ডেস্ক

গত জানুয়ারিতে অনুষ্ঠিত ত্রিদেশীয় সিরিজে আঙুল ফেটে গিয়েছিল বিশ্বসেরা অল-রাউন্ডার সাকিব আল হাসানের। সেই আঙুল এখনও সুস্থ হয়নি। তারপরেও দেশের স্বার্থে ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জে তিন ফরম্যাটের প্রতিটি ম্যাচেই খেলেছেন তিনি। টেস্ট হারলেও অধিনায়ক হিসবে দলকে টি-টোয়েন্টি সিরিজ উপহার দিয়েছেন। ব্যাটে-বলে তিনি ছিলেন দুর্দান্ত। কিন্তু এই অদম্য মনোভাবের জন্য তাকে বেশ বড় মাশুলই দিতে হচ্ছে। গতকাল সাকিবের নেতৃত্বে দেশে এসে পৌঁছেছে টিম টাইগার। বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি নিজেই শোনালেন দুঃসংবাদ। আগামী মাসে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে এশিয়া কাপ। আঙুলের চোটে সাকিবের হয়তো নাও খেলা হতে পারে এশিয়া কাপে ! হ্যাঁ, সাকিব এই চোট বয়ে বেড়াচ্ছেন ছয় মাস ধরে। মূল সমস্যা হচ্ছে ব্যাটিংয়ের সময়। চোট থেকে পুরোপুরি সেরে না ওঠায় ব্যাটিংয়ে সাকিব শতভাগ দিতে পারছেন না। ইনজেকশন নিয়ে খেলতে হচ্ছে। তাই এবার দরকার স্থায়ী চিকিৎসা। এদিকে অস্ট্রেলিয়ার চিকিৎসকরা বলেছেন, অপারেশন ছাড়া আঙুল সুস্থ করার কোনো সুযোগ নেই। দীর্ঘ ৮ মাস ধরে বয়ে বেড়ানো চোটের ধকল আর সইতে পারছেন না সাকিব। বিমানবন্দরে তিনি বললেন, ‘আমরা সবাই জানি যে সার্জারি করতে হবে।

এখন যেটা আলোচনা হচ্ছে, কোথায় করলে ভালো হয়, কবে করলে ভালো হয়। তবে আমি মনে করি, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব করে ফেলা ভালো। খুব সম্ভবত এশিয়া কাপের আগেই হবে।’
১৫ সেপ্টেম্বর থেকে আরব আমিরাতে শুরু হচ্ছে এশিয়া কাপ। স্বভাবতই প্রশ্ন এসেছে এশিয়া কাপ খেলা নিয়ে। উত্তরে সাকিব জানালেন, পুরোপুরি ফিট হয়েই আবার মাঠে নামেতে চান তিনি। সেক্ষেত্রে এশিয়া কাপের আগেই অপারেশন টেবিলে যেতে চান তিনি, ‘আমি তো তাই মনে করি হওয়া উচিৎ কারণ চাই না যে ফুল ফিট না থেকে খেলতে। কাজেই সেভাবে যদি চিন্তা করি এশিয়া কাপের আগে হবে এটাই নরমাল।’ এশিয়া কাপের আগে যদি অস্ত্রোপচারে যান সাকিব, তবে ওই টুর্নামেন্টে আর খেলা হবে না দেশসেরা এই ক্রিকেটারের। কারণ অপারেশনের পর পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠতে দুই মাস সময় লাগবে তার।

Share
  • 18
    Shares