নীড়পাতা » মহানগর » বর্ণিল সাজে ফিরিঙ্গিবাজার

হকারমুক্ত ফুটপাত, ঝকঝকে রাস্তা

বর্ণিল সাজে ফিরিঙ্গিবাজার

৩৩ নং ফিরিঙ্গিবাজার ওয়ার্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক

যেন আর এক ফিরিঙ্গিবাজার। সেই সবসময়ের চেনা ফিরিঙ্গিবাজার নয়, বর্ণিল সাজে সজ্জ্বিত ফিরিঙ্গিবাজার। একেবারে ঝকঝকে তকতকে রাস্তা। হকারবিহীন ফুটপাত।
গতকাল পটিয়ার জনসভায় যোগদানের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্ভাব্য যাতায়াত পথের একটি ছিল এই ফিরিঙ্গিবাজার। তাই ব্যানার, ফেস্টুন, পোস্টার, তোরণ আর মনোরম সাজে সাজানো হয় ফিরিঙ্গিবাজার, ব্রিজঘাট, মেরিনার্স রোড, কবি নজরুল ইসলাম সড়ক ( আংশিক ) সিটি কর্পোরেশনের কর্মীরা এই এলাকা নিয়ে গত একটি সপ্তাহ কর্মব্যস্ত দিন অতিবাহিত করেন। কয়েকটি ধাপে কাজ করেন তারা। পথকে ঝকঝকে তকতকে করতে কর্পোরেশনের পরিচ্ছন্নকর্মীদের ব্যস্ততার শেষ ছিল না। কোতোয়ালি মোড় থেকে অভয়মিত্র ঘাট রোড, ব্রিজঘাট রোডের উন্নয়ন, রাস্তা কার্পেটিং সৌন্দর্যবর্ধনের জন্য কোটি ১৭ লাখ টাকার একটি প্রকল্প রয়েছে সিটি কর্পোরেশনের। এটা বাস্তবায়ন জোরদার করার পাশাপাশি সৌন্দর্য বৃদ্ধির আরও বিভিন্ন কাজ করা হয়। সড়ক পাশের ফুটপাতের হকারদের তুলে দেয়া হয়। এলাকার নিত্য সমস্যা হকারদের ফুটপাত দখল। এতে পথচারীদের চলাচলে সমস্যায় পড়তে হয়। বিশেষ করে মহিলা শিশুদের চরম বিড়ম্বনা পোহাতে হয়। বাধ্য হয়ে তাদেরকে যেতে হয় ফুটপাত ছেড়ে মূল সড়ক দিয়ে। সড়কপথ তাতে সংকুচিত হয়ে সৃষ্টি হয় যানজটের। একই সঙ্গে প্রায় ঘটে ছোটখাটো দুর্ঘটনা। গতকাল হকারমুক্ত ফুটপাত দিয়ে অবাধে চলাচল করেন পথচলতি মানুষ। সৌন্দর্যবর্ধনের জন্য রাস্তায় মার্কিং করা হয়েছে সাদা রং দিয়ে। চলে পরিচ্ছন্নতা অভিযান। সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্নকর্মীরা নিদারুন ব্যস্ত সময় কাটিয়েছেন এই দিন।
গতকাল ফিরিঙ্গিবাজার এলাকার সবখানে ছিল কড়া নিরাপত্তা। মোড়ে মোড়ে ছিল অতিরিক্ত পুলিশ। প্রধানমন্ত্রীর পটিয়ার জনসভাকে সফল করতে কাউন্সিলর যুবলীগ নেতা আলহাজ হাসান মুরাদ ( বিপ্লব )’ নেতৃত্বে স্থানীয় আওয়ামী লীগ অঙ্গসংগঠনসমূহ আনন্দ মিছিল, সভাসমাবেশ করে প্রস্তুতি নেন। তোরণে ছেয়ে গেছে সমগ্র ফিরিঙ্গিবাজার, ব্রিজঘাট এলাকা। আইল্যান্ডের ওপর স্থাপন করা হয়েছে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রতীকনৌকা।এসব নিয়ে এক উৎসবমুখর পরিবেশ তৈরি হয়েছে ফিরিঙ্গিবাজার ওয়ার্ডের সবখানে। কাউন্সিলর হাসান মুরাদ (বিপ্লব) গতকাল দৈনিক পূর্বকোণকে জানান, সারাবছর এমন সুন্দর পরিচ্ছন্ন রাখতে চান ফিরিঙ্গিবাজার ওয়ার্ডকে। জনসচেতনতার অভাবসহ নানা সীমাবদ্ধতার কারণে তা সম্ভব হয় না। তারপরও ব্যাপারে তাঁর সর্বাত্মক প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। তিনি ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট সবার সহযোগিতা কামনা করেন

Share