নীড়পাতা » সম্পাদকীয় » জনগণের স্বাস্থ্যনিরাপত্তা উন্নতির স্বার্থেই প্রয়োজন

জনগণের স্বাস্থ্যনিরাপত্তা উন্নতির স্বার্থেই প্রয়োজন

বাংলাদেশকে নিয়ে শ্লাঘার অনেক কিছুই আছে এখন আমাদের। যতোই রাজনৈতিক অস্থিরতা বিরাজ করুক মানুষের আন্তরিক চেষ্টায় এদেশ বিকশিত হচ্ছে। এগিয়ে চলছে জনকল্যাণ আর্থসামাজিকভাবে নানা কর্মকাে। নারীর ক্ষমতায়ন থেকে শুরু করে স্বাস্থ্যসেবাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রেই রয়েছে উল্লেখযোগ্য উত্তরণ। সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতা যেমন বেড়েছে, তারই হাত ধরে জীবনযাত্রার মানেও লেগেছে উন্নতির ছোঁয়া।
রাজনৈতিক পরিবেশের বর্তমান স্থিতিশীলতার ধারা অব্যাহত থাকলে এই সাফল্যের ধারাবাহিকতা বজায় রাখা সম্ভবত তেমন কঠিন হবে না। কেবল দরকার, গণতন্ত্রকে সমুন্নত রাখা, জাতির অগ্রযাত্রা উন্নতির লক্ষ্যে নানা পর্যায়ে গৃহীত পরিকল্পনাগুলোর সঠিক বাস্তবায়ন। এক্ষেত্রে দায়িত্ব প্রাপ্তদের স্ব স্ব ক্ষেত্রে দায়িত্ব পালনের আন্তরিকতা প্রশ্নাতীতভাবে আবশ্যক। ম্যালেরিয়া প্রতিরোধের ক্ষেত্রেও বিশেষ সাফল্য এসেছে এদেশে। তবে, বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা (হু) প্রকাশিত গত এক বছরে বিশ্বব্যাপী ম্যালেরিয়া পরিস্থিতি বিষয়ক প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে, ম্যালেরিয়া নিয়ন্ত্রণে বিশ্বের নানা দেশ অনেকদূর এগিয়ে গেলেও এক্ষেত্রে বাংলাদেশের পরিস্থিতি আরও বেশি উৎসাহব্যঞ্জক হওয়া উচিত ছিলো। প্রকাশিত তথ্য মতে, সামগ্রিকভাবে ম্যালেরিয়ার মৃত্যুর সংখ্যা সারাবিশ্বে আগের তুলনায় অর্ধেকে নেমে এসেছে। বিশ্ব ম্যালেরিয়া পরিস্থিতি নিয়ে এটিও স্বস্তির সংবাদ বিশ্ববাসীর জন্য। বাংলাদেশের মানুষের জন্য এক্ষেত্রে আরও বাস্তবানুগ হওয়া দরকার রয়েছে। ডায়াবেটিস, কিডনী রোগ, হৃদরোগ ক্যান্সার চিকিৎসার ক্ষেত্রে আরও বেশি ফলপ্রসূ উদ্যোগ দরকার।
এদেশে মাতৃমৃত্যু শিশুমৃত্যু রোধে দৃশ্যমান উন্নতি হয়েছে। একইভাবে দেশের ম্যালেরিয়া উপদ্রুত অঞ্চল পার্বত্য এলাকাগুলোতে মৃত্যুহার যথেষ্ট পরিমাণ কমিয়ে আনা সম্ভব হয়েছে। তবে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু)’ প্রতিবেদনে যা প্রকাশ পেয়েছে, তাতে মানুষের শঙ্কিত হবারও কারণ রয়েছে কোনো কোনো এলাকায়। আইসিডিডিআরবি বিশেষজ্ঞদের মতে, পদক্ষেপ গ্রহণ বাস্তবায়নে ফারাক থাকার কারণে বাংলাদেশে ম্যালেরিয়া পরিস্থিতি বিগত কালের তুলনায় হঠাৎ করে খানিকটা প্রশ্নের সম্মুখীন হয়েছে। এটা দেশে দেশের বাইরে ম্যালেরিয়া নিয়ে কাজ করছে যে সমস্ত সংস্থা তাদের মাঝে উদ্বেগের জন্ম দিয়েছে। তাই, আগামী দিনগুলোতে আরো বেশি ম্যালেরিয়া ঝুঁকি সম্ভাব্য মৃত্যুর ঘটনার ক্ষেত্রে আগের তুলনায় আরও বেশি সতর্কতা অবলম্বন এবং রোগের বিস্তৃতি রোধের প্রস্তুতি নেওয়া জরুরি হয়ে পড়েছে। একইভাবে মানবস্বাস্থ্যে অন্যান্য ক্ষেত্রগুলোতেও বিশেষ নজর দেওয়া দরকার।
ম্যালেরিয়া প্রতিরোধে বাংলাদেশের দীর্ঘকালের অভিজ্ঞতা রয়েছে। রয়েছে ম্যালেরিয়াপ্রবণ এলাকাগুলোর বিষয়ে প্রয়োজনীয় তথ্যউপাত্ত। সমস্ত তথ্যাবলী থেকেই আমাদের নিরন্তর গবেষণা প্রতিকার সন্ধান সম্ভব। দেশের পার্বত্য অঞ্চলগুলোতে ম্যালেরিয়ার প্রকোপ বেশি এবং প্রাণঘাতী ম্যালেরিয়ারও রয়েছে নানা ধরন। এসব থেকে মানুষকে রক্ষা প্রতিকারমূলক ব্যবস্থাদি গ্রহণে সর্বদা সক্রিয় থাকাই আবশ্যক। আমরা মনে করি, প্রকৃত অর্থে জনগণের স্বাস্থ্য নিরাপত্তার জন্য সব ধরনের রোগ নিরাময়ের বিশেষ পদক্ষেপও নেওয়া উচিত।
আমাদের দরকার দেশের ম্যালেরিয়া ভাবাপন্ন অঞ্চলগুলোতে পর্যাপ্ত পরিমাণে চিকিৎসা সেবার সম্প্রসারণ, ঔষধ বিতরণ এবং মশা বিতারক ওষুধ মিশ্রিত মশারীর সরবরাহ নির্দিষ্ট জনগোষ্ঠীর কাছে পৌছে দেওয়া। ম্যালেরিয়া নির্মূলের সংগ্রামটা সত্যিই কঠিন। অন্যান্য রোগের ক্ষেত্রে তুলনায় কিছুটা সহজ। এক্ষেত্রে অন্যান্য মারণ রোগের চিকিৎসার বিষয়টিকেও বৃহত্তর স্বার্থে গুরুত্ব দেওয়ার কথাটি আমাদের সংশ্লিষ্টদের ভাবনায় স্থান দিতে হবে

Share