চট্টগ্রাম বন্দরে হচ্ছে নতুন বহুমুখী কন্টেইনার টার্মিনাল। ফলে দেশের প্রধান সমুদ্রবন্দর চট্টগ্রামের সক্ষমতা বাড়তে চলেছে। চট্টগ্রাম বন্দর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (চবক) তিন হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ৫২ একর জমির ওপর লালদিয়া মাল্টিপারপাস টার্মিনাল নামে একটি মেগা কন্টেইনার টার্মিনাল নির্মাণ করতে যাচ্ছে।
লালদিয়া কন্টেইনার টার্মিনালটি নির্মিত হবে পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপ (পিপিপি)’ আওতায়।
এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)’ সহায়তায় পাঁচ সদস্যের একটি কনসোর্টিয়াম প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে।
বন্দরের আমদানিরপ্তানি কার্যক্রম সহজ এর সক্ষমতা বাড়ানোর লক্ষ্যে বন্দর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের উদ্যোগ।
জানা যায়, টার্মিনাল তৈরির জন্য নির্ধারিত ৫২ একর জমিতে বসবাসরত ৫০০ পরিবারকে নগরীর চান্দগাঁও থানাধীন হামিদচরে পুনর্বাসিত করা হবে।
সরকার লালদিয়ার উচ্ছেদকৃত পৃথক বাড়ি নির্মাণ করবে।
চবক চেয়ারম্যান সংশ্লি­ষ্টদের জানান, বন্দর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বন্দরের সক্ষমতা বাড়াতে নতুন টার্মিনাল নির্মাণ যন্ত্রপাতি ক্রয়সহ বেশ কিছু স্বল্প দীর্ঘমেয়াদী প্রকল্প হাতে নিয়েছে।
এতদসংক্রান্ত একাধিক সভায় বিজিএমইএ, বিকেএমইএ, চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ, শিপিং এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনস, চট্টগ্রাম কাস্টমস, চট্টগ্রাম রেলওয়ে, বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠন, বাংলাদেশ ব্যাংক, সিএন্ডএফ এজেন্টস অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ কন্টেইনার ডিপো অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধিরা অংশগ্রহণ করেন।
বাংলাদেশ থেকে অধিক পরিমাণে ওষুধ আমদানি করতে ভুটানের আগ্রহ

বাংলাদেশ থেকে অধিক পরিমাণে ওষুধ আমদানির আগ্রহ প্রকাশ করেছেন ভুটান। মূলত: গুণগতমানের জন্য বাংলাদেশি ওষুধ ক্রমেই ভুটানে জনপ্রিয় হচ্ছে।
অ্যডভানটেজ আসামশীর্ষক আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ সম্মেলনে একথা জানা যায়। বৈঠকে দ্বিপাক্ষিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আলোচনা হয়। সময় ভুটান বাংলাদেশের মধ্যে কানেকটিভিটি জোরদার, দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য বৃদ্ধি বিনিয়োগ সম্প্রসারণ, ভুটান থেকে বাংলাদেশের জন্য বিদ্যুৎ পাথর আমদানি, বাংলাদেশ থেকে ভুটানে ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ রপ্তানি, যৌথ উদ্যোগে শিল্পায়নসহ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য বিষয় আলোচনায় স্থান পায়।বৈঠকে ভুটানের প্রধানমন্ত্রী সে দেশের হেল্থ ট্রাস্ট ফান্ডে আগামী এক বছরের জন্য বাংলাদেশ সরকারের ওষুধ সরবরাহের প্রতিশ্রুতির প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, ভুটানের জনগণ সব সময় বাংলাদেশের উদারতাকে গভীর বন্ধুত্বের প্রতীক হিসেবে মনে রাখবে। তিনি দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য বাড়াতে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ নৌপথ ব্যবহারের আগ্রহ প্রকাশ করেন।
বাংলাদেশ ভুটান থেকে বিদ্যুৎ আমদানিতে আগ্রহী। লক্ষ্যে খুব শীঘ্রই ভুটানের হাইড্রো বিদ্যুৎ প্রকল্প বাস্তবায়িত হবে বলে আশা প্রকাশ করা হয়েছে।
ব্লুইকোনোমির সম্ভাবনা আমরাও কাজে লাগাতে পারবো

সমুদ্রসম্পদ নির্ভর ব্লুইকোনোমির সম্ভাবনা কাজে লাগিয়ে ২০৩০ সাল নাগাদ এই খাত থেকে অর্থনীতিতে শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন হবে বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা বলেন, ‘ব্লুইকোনোমি দেশের অর্থনীতির একটি অসাধারণ ক্ষেত্র সৃষ্টি করেছে। বিভিন্ন দেশ এই ব্লুইকোনমি কাজে লাগিয়ে নিজেদের সমৃদ্ধশালী করছে। তারা পারলে আমরা কেন পারব না? তাদের মতো আমাদেরও পারতে হবে। তবে সেটা করার জন্য সঠিক পরিকল্পনা গ্রহণ বাস্তবায়নের মাধ্যমে খাতের বহুমাত্রিক ব্যবহার আনা প্রয়োজন। এজন্যে সমুদ্রসম্পদ আহরণের পদ্ধতি যেমন জানতে হবে তেমনি ব্লুইকনোমি খাতে উন্নয়ন করতে উপকূলীয় মানুষকে সম্পৃক্ত করতে হবে। তাদের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে দেশের বিপুল সম্পদ আহরণে সময় ক্ষেপণ না করে সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে।
প্রসঙ্গত, ২০১২ সালের ১৪ মার্চ মিয়ানমারের কাছ থেকে এক লাখ ১১ হাজার ৬৩১ বর্গকিলোমিটার এবং ২০১৪ সালের জুলাই ভারতের কাছ থেকে পায় ১৯ হাজার ৪৬৭ বর্গকিলোমিটার।
শেষ পর্যন্ত এক লাখ ১৮ হাজার ৮১৩ বর্গকিলোমিটারের টেরিটোরিয়াল সমুদ্র, ২০০ নটিক্যাল মাইল একচ্ছত্র অর্থনৈতিক অঞ্চল এবং চট্টগ্রাম উপকূল থেকে ৩৫৪ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত মহীসোপানের তলদেশে অবস্থিত সব ধরনের প্রাণিজ অপ্রাণিজ সম্পদের ওপর সার্বভৌম অধিকার প্রতিষ্ঠা নিশ্চিত করতে পেরেছে। [সূত্র : পত্রপত্রিকা]
আবদুল মুহিদ