নীড়পাতা » জেলা-উপজেলা-গ্রাম » নারীদের স্বাবলম্বী করতে কার্যক্রম বাস্তবায়িত হচ্ছে

কক্সবাজারে মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী

নারীদের স্বাবলম্বী করতে কার্যক্রম বাস্তবায়িত হচ্ছে

নিজস্ব সংবাদদাতা, কক্সবাজার

মহিলা শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি বলেছেন, প্রকল্পের কাজ যথাযথ এবং স্বচ্ছতার সাথে বাস্তবায়ন করার জন্যে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সহায়তা নিতে হবে। তাহলে সুবিধাভোগী নির্বাচনে স্থানীয় প্রতিনিধিরা সহায়তা করতে পারবেন। প্রকল্প সুবিধা কোন ধরণের মহিলারা প্রাপ্য সেটা স্থানীয় প্রতিনিধিরা ভাল বুঝবেন এবং প্রকল্পের কার্যক্রম সঠিকভাবে সম্পাদন করা হচ্ছে কিনা তা স্থানীয় প্রতিনিধিরা মূল্যায়ন করতে পারবেন।
গতকাল (শনিবার) বিকেলে কক্সবাজার সার্কিট হাউজের সম্মেলন কক্ষে মহিলা শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীন জাতীয় মহিলা সংস্থার উন্নয়ন প্রকল্পসমূহের বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। কক্সবাজার জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান কানিজ ফাতেমা আহমেদের সভাপতিত্বে পর্যালোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন জাতীয় মহিলা সংস্থার নির্বাহী পরিচালক জাহানারা বেগম, জাতীয় মহিলা সংস্থা কর্তৃক বাস্তবায়িত অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নে নারী উদ্যোক্তাদের বিকাশ সাধন (৩য় পর্যায়) প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক, সরকারের অতিরিক্ত সচিব আনোয়ারা বেগম, তথ্য আপা প্রকল্পের পরিচালক সরকারের অতিরিক্ত সচিব মীনা পারভীন, নগর ভিত্তিক প্রান্তিক মহিলা উন্নয়ন প্রকল্পের পরিচালক সরকারের যুগ্ম সচিব নুরুন্নাহার হেনা, কক্সবাজার জেলা প্রশাসক আলী হোসেন এবং জেলা ভিত্তিক কম্পিউটার প্রশিক্ষণ (৩য় পর্যায়) প্রকল্পের পরিচালক জি এম নজমুল হোসেন খান।
প্রতিমন্ত্রী প্রকল্প পরিচালকদের উদ্দেশ্যে বলেন, নারীদের অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী করার জন্যে মহিলা শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে নানামুখী কার্যক্রম বাস্তবায়িত হচ্ছে। আর এই কার্যক্রম বাস্তবায়নের তদারকি করছেন আপনারা। আপনারা সঠিকভাবে সুবিধাভোগী নির্বাচন করবেন। প্রয়োজনে স্থানীয় প্রশাসনের সহযোগিতা নিবেন। কোন রকমের গাফলতি আমি সহ্য করবো না।
উল্লেখ্য, মহিলা শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় মহিলাদের আত্মনির্ভরশীল করার জন্যে নানামুখী প্রশিক্ষণ চালিয়ে যাচ্ছে। তম্মধ্যে রয়েছে কম্পিউটার প্রশিক্ষণ, ফ্যাশন ডিজাইন, বিউটিফিকেশন, ক্যাটারিং, মোবাইল সার্ভিসিং, মাশরুম চাষ, মৌমাছি চাষ, বিজনেজ ম্যানেজমেন্ট, মোমবাতি তৈরী, ব্লকবাটিক, হ্যান্ডলোম প্রভৃতি। এতে প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে যাতায়াত বাবদ ভাতা প্রদান করা হচ্ছে। ক্ষেত্র বিশেষে প্রশিক্ষণার্থীদের চাকুরির ব্যবস্থা করছে