নীড়পাতা » জেলা-উপজেলা-গ্রাম » আনোয়ারায় লোকালয়ের ওপর দিয়ে বৈদ্যুতিক লাইন

জনমনে ক্ষোভ, ঝুঁকির শংকা

আনোয়ারায় লোকালয়ের ওপর দিয়ে বৈদ্যুতিক লাইন

নিজস্ব সংবাদদাতা, আনোয়ারা

আনোয়ারায় বসতবাড়ি লোকালয়ের উপর দিয়ে ২৩০ কেভি পাওয়ার গ্রিড লাইন নেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ফলে প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় বৈদ্যুতিক লাইনের কারণে ঝুঁকি, ক্ষয়ক্ষতির আশংকা করছেন স্থানীয়রা। ব্যাপারে স্থানীয়দের পক্ষ থেকে পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বরাবরে লাইন সরানোর জন্য লিখিত আবেদন করা হয়েছে। তাছাড়া ভূমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ এমপি জেলা প্রশাসক বরাবরেও লিখিত আবেদন করে বিষয়টি অবগত করা হয়।
জানা যায়, পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি আনোয়ারার পশ্চিমচাল গ্রামের উপর দিয়ে বৈদ্যুতিক লাইন নিয়ে যাচ্ছে। উক্ত লাইনের একটি টাওয়ার কবিরের দোকানের পশ্চিম পার্শ্বে স্থাপন করা হচ্ছে। উক্ত টাওয়ার হতে বৈদ্যুতিক লাইন বিল্ডিং বসতবাড়ির উপর দিয়ে আড়াআড়িভাবে চেয়ারম্যান সুলতান আহমদের বাড়ি অতিক্রম করে বাড়ির পশ্চিম পাশ ঘেষে জমিতে আরেকটি টাওয়ারে সংযুক্ত করা হচ্ছে। উক্ত লাইনটির প্রায় ৩০০ মিটার বিল্ডিং বসতবাড়ির উপর দিয়ে যাচ্ছে। উল্লেখ্য, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের বিধি অনুযায়ী বৈদ্যুতিক লাইনের উভয়পাশ হতে দশ মিটার দূরত্বের মধ্যে কোন বিল্ডিং স্থাপন করা যায় না। এদিকে পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশ (পিজিসিবি) লিমিটেডের ঠিকাদাররা জেলা প্রশাসকের একটি গণবিজ্ঞপ্তি দেখিয়ে উক্ত প্রকল্পের কাজ তড়িঘড়িভাবে শুরু করেছে। পিজিসিবি সহযোগী প্রতিষ্ঠানসমূহ আনোয়ারা উপজেলার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ জনপ্রতিনিধিকে বিষয়টি না জানিয়ে এসব কাজ করছে বলে অভিযোগ রয়েছে। আনোয়ারা উপজেলা ঘূর্ণিঝড় প্রবণ এলাকা। আনোয়ারার উত্তর পার্শ্বে কর্ণফুলী, দক্ষিণে সাঙ্গু পশ্চিমে বঙ্গোপসাগর। ঘূর্ণিঝড় প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে উক্ত টাওয়ার লাইনের কারণে জনসাধারণের ক্ষতি হলে এর দায়ভার কে গ্রহণ করবে তা নিয়ে এলাকায় প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। বিরাজ করছে ক্ষোভ।
খোঁজ নিয়ে যানা গেছে, কোনরকম পূর্ব বিজ্ঞপ্তি সুনির্দিষ্ট জায়গা অধিগ্রহণ ছাড়া এবং জমির মালিক পক্ষকে না জানিয়ে উক্ত প্রকল্পের টাওয়ার স্থাপনের কাজ শুরু করা হয়েছে।
পশ্চিমচাল এলাকার বাসিন্দা এস.এম.কামাল উদ্দিন চৌধুরী বলেন, বসতবাড়ি লোকালয় হতে ২৩০ কেভি পাওয়ার গ্রিড লাইন সরানো জন্য গত বছরের ২৪ ডিসেম্বর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট লিখিত আবেদন করেছি, কোন সাড়া পাওয়া যায়নি