নীড়পাতা » শেষের পাতা » রাঙামাটিতে বিক্ষোভ সমাবেশ আজ সকাল-সন্ধ্যা হরতাল

আওয়ামী লীগ নেতা ও মেম্বার হত্যার প্রতিবাদ

রাঙামাটিতে বিক্ষোভ সমাবেশ আজ সকাল-সন্ধ্যা হরতাল

পূর্বকোণ প্রতিনিধি রাঙামাটি অফিস

পার্বত্য চট্টগ্রামে যারা সন্ত্রাস, হত্যা, গুম চাঁদাবাজিকে তাঁদের রাজনৈতিক আদর্শ হিসেবে গ্রহণ করেছে, তাঁরাই একের পর এক আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী সাধারণ মানুষ হত্যা, গুম, নির্যাতন করে যাচ্ছে। যারা পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে আওয়ামী লীগকে নিশ্চিহ্ন করতে চায় এবং পার্বত্য চট্টগ্রামে অবৈধ অস্ত্রের মজুদ গড়েছে তারাই হত্যা সন্ত্রাসী হামলা করেছে। প্রশাসন যদি এদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নেয়, তবে পার্বত্য চট্টগ্রামের সাধারণ মানুষ আইন হাতে তুলে নিতে বাধ্য হবেবলে মন্তব্য করেছেন সাবেক পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য

দীপংকর তালুকদার। জুরাছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক যুবলীগের সহসভাপতি অরবিন্দু চাকমাকে গুলি করে হত্যা এবং বিলাইছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি রাসেল মারমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে শারীরিক নির্যাতন করার প্রতিবাদে এবং দোষীদের দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবিতে গতকাল বুধবার বিকালে রাঙামাটি শহরে বিক্ষোভ মিছিল সমাবেশ করেছে জেলা পৌর আওয়ামী লীগসহ অঙ্গ সহযোগী সংগঠন। বিকাল ৪টায় পৌরসভা প্রাঙ্গণ হতে বিশাল একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে তা শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণশেষে জেলা প্রশাসন কার্যালয়ের সামনে গিয়ে সমাবেশে মিলিত হয়। সমাবেশ থেকে সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের দাবিতে আজ বৃহস্পতিবার রাঙামাটি জেলায় সকালসন্ধ্যা হরতাল আহবান করেছে রাঙামাটি জেলা যুবলীগ।
সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগ সহসভাপতি নিখিল কুমার চাকমা, পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ সদস্য মো. কামাল উদ্দিন, জেলা যুবলীগ সভাপতি রাঙামাটি পৌরসভা মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক প্রকাশ চাকমা জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ঝরনা খীসা প্রমুখ।
এদিকে, ঘটনার জন্য মুখোশবাহিনীর সন্ত্রাসীদের দায়ী করেছে ইউপিডিএফ তাদের সমর্থনপুষ্ট সংগঠনগুলো। ঘটনার প্রতিবাদে এবং খুনিদের দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবিতে রাঙামাটিখাগড়াছড়ি রুটে সড়ক নৌপথে বৃহস্পতিবার আধা বেলা অবরোধ কর্মসূচি দিয়েছে মূল ইউপিডিএফ সমর্থনপুষ্ট নব্য মুখোশবাহিনী প্রতিরোধ কমিটি।
এদিকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সর্বাত্মক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী কর্তৃপক্ষ। রাঙামাটি কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সত্যজিৎ বড়ুয়া বলেন, শহরসহ জেলায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে স্পর্শকাতর স্থানগুলোতে বাহিনীর পর্যাপ্ত সদস্য মোতায়েন থাকবে