ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : জার্মানির একটি পত্রিকা ইউরোপে যাওয়ার সময় নিহত ৩৩ হাজার ২৯৩ জন শরণার্থীর নাম অন্তর্ভুক্ত করে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। শরণার্থী সঙ্কট কতটা ভয়াবহ আকার ধারন করেছে তাই দেখানোর উদ্দেশ্য ছিল পত্রিকাটির।ডার টাগেসপিগেলনামের জার্মান পত্রিকাটি গত নভেম্বর শরণার্থীদের নামের সম্পূর্ণ তালিকাসহ প্রতিবেদনটি প্রকাশ করে। দৈনিক পত্রিকাটির ৪৬ পৃষ্ঠা জুড়ে ছাপানো হয় পুরো প্রতিবেদনটি।
তুরস্কের একজন শিল্পীদ্য লিস্টশিরোনামের তালিকাটি তৈরি করেন। ওই শিল্পীর নাম বানু সেনেটগলু। তালিকাটিতে ১৯৯৩ সাল থেকে ২০১৭ সালের ১৫ জুন পর্যন্ত ইউরোপে আশ্রয় প্রার্থী সব শরণার্থীর নাম, বয়স, লিঙ্গ, জাতীয়তা মৃত্যুর কারণ উল্লেখ করা হয়েছে। হৃদয়বিদারক প্রতিবেদনটির মূল লক্ষ্য ছিল এটা বোঝানো যে, নিহত ব্যক্তিরাও মানুষ। তারাও কোন একটি জায়গা থেকে আসছিলেন। তাদের অতীত ছিল। তাদেরও একটা জীবন ছিল। পাঁচ শতাধিক সংগঠন ব্যক্তির তালিকাটি প্রস্তুত করা হয়। এরপরও সেনেটগলু মনে করেন যে, ওই তালিকায় মোট নিহতদের খুব ছোট একটি অংশের নাম প্রকাশ করা গেছে।
বছর জাতিসংঘের রিফিউজি এজেন্সি বলেছে, লাখ ৫২ হাজার ২০৩ জন মানুষ সমুদ্রপথে ইউরোপে যাওয়ার চেষ্টা করেছে।
তালিকাটি প্রকাশ করার পর ইউরোপের বহু সাংবাদিক সাধারণ মানুষ টুইটারে সেটি শেয়ার করেন এবং শরণার্থীদের ভয়াবহ শঙ্কটে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। একজন ব্যক্তি তালিকাটি শেয়ার করে লেখেন, ‘এটা ভয়ংকর। আমি গত ৩০ বছর ধরে যে শহরে থাকি তার জনসংখ্যা ৩৩ হাজারের কম।