নীড়পাতা » জেলা-উপজেলা-গ্রাম » কক্সবাজারে আজ ৪ লাখ ৫১ হাজার ৬৬৫ শিশুকে খাওয়ানো হবে ভিটামিন ‘এ’

কক্সবাজারে আজ ৪ লাখ ৫১ হাজার ৬৬৫ শিশুকে খাওয়ানো হবে ভিটামিন ‘এ’

নিজস্ব সংবাদদাতা, কক্সবাজার

কক্সবাজারে ৪ লাখ ৫১ হাজার ৬৬৫ শিশুকে খাওয়ানো হবে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল। এরমধ্যে ৬ থেকে ১১ মাস বয়সী ৫২ হাজার ৩৩০ জন ও ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী রয়েছে ৩ লাখ ৯৯ হাজার ৩৩৫ শিশু। আজ ১৪ জুলাই সারাদেশের ন্যায় কক্সবাজারেও জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন চলবে। আট উপজেলা ছাড়াও পৃথকভাবে কক্সবাজার পৌরসভায় এ কার্যক্রম পরিচালিত হবে।
১২ জুলাই সকালে জেলা ইপিআই সেন্টারে জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন (১ম রাউন্ড) সফলভাবে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে এক সাংবাদিক অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে এসব তথ্য উল্লেখ করে জানানো হয়, ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন বাস্তবায়নের জন্য টিকাদান কেন্দ্রের সংখ্যা নির্ধারণ করা হয়েছে ১ হাজার ৯৫১ টি। তম্মধ্যে স্থায়ী টিকাদান কেন্দ্র ৯, অস্থায়ী ১ হাজার ৮৪০, ভ্রাম্যমাণ ২৭ ও ৭৫ টি অতিরিক্ত টিকাদান কেন্দ্র। এছাড়াও টিকাদান কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য নিয়োজিত থাকবেন স্বাস্থ্য সহকারী ২৩৫ জন, পরিবার কল্যাণ সহকারী ২১১ জন, স্বেচ্ছাসেবক ৫ হাজার ৪০৭ জন। পুরো কর্মসূচি তত্ত্বাবধানের জন্য ২১৯ জন তত্ত্বাবধায়ক নিয়োজিত থাকবেন।
সভায় জানানো হয়, ৬ থেকে ১১ মাস বয়সী শিশুকে খাওয়ানো হবে ‘নীল রঙের’ এবং ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী শিশুকে খাওয়ানো হবে ‘লাল রঙের’ ভিটামিন এ ক্যাপসুল। তবে ৪ মাসের মধ্যে যেসব শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হয়েছে, তাদেরকে ১৪ জুলাই’র ক্যাম্পেইনে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো যাবে না। আর যেসব শিশু মারাত্মক অসুস্থ তাদেরকেও ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো যাবে না।
ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন নিয়ে সাংবাদিকদের অবহিত করেন সিভিল সার্জন ডা. আব্দুস সালাম। এসময় উপস্থিত ছিলেন সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল কর্মকর্তা (রোগ নিয়ন্ত্রণ) ডা. রনজন বড়–য়া রাজন, ইউসিফের কর্মকর্তা তাহমিনা ফেরদৌসি, জিয়াউল হক ও জেলা স্বাস্থ্য তত্ত্বাবধায়ক সিরাজুল ইসলাম সবুজ।
এদিকে চন্দনাইশ উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের উদ্যোগে গত ১১ জুলাই সকালে দিবসটি পালন উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র‌্যালি উপজেলার প্রধান প্রধান সড়কগুলো প্রদক্ষিণ শেষে উপজেলা অডিটরিয়ামে এক আলোচনা সভা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আ.ন.ম. বদরুদ্দোজার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুল জব্বার চৌধুরী, বিশেষ অতিথি ছিলেন পৌর মেয়র মাহবুবুল আলম খোকা, দক্ষিণ জেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি, চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান। স্বাগত বক্তব্য রাখেন উপজেলা প. প. কর্মকর্তা আবু ছালেহ্ মো.ফোরকান উদ্দীন, মেডিকেল অফিসার ডা.সৌমেন মিত্র।
সভায় বক্তাগন পরিবার পরিকল্পনা কার্যক্রমে সম্পৃক্ত ব্যক্তিদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে পরিকল্পিত পরিবার গঠনে কাজ করার আহ্বান জানান। আগামী দিনের সুনাগরিক হিসেবে পরিবার, জাতি ও দেশের সেবায় ভূমিকা রাখার মত পরামর্শ প্রদানের জন্য নির্দেশ প্রদান করেন। অত্র উপজেলায় কর্মরত প্রতিটি ইউনিয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মচারীদের স্ব স্ব দায়িত্ব পালনে অবদান রাখার জন্য সম্মাননা প্রদান করা হয়। সম্মাননা প্রাপ্তরা হলেন- চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান, মো. আলমগীর, শাহানা ফেরদৌস, জামাল আহমেদ, মুক্তা দেব, জাহাঙ্গীর আলম। এ ছাড়াও পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জনাব গিয়াস উদ্দীন খান, সুমি আক্তার, রুবেল ভট্টাচার্য, জনাব কুতুব উদ্দীন, জামশেদ মো. গউজ, জাফর সাদেক, সিরাজ উদ্দীন, নিউটনদে, ও মেজবাহ্ উদ্দীন প্রমুখ।

Share